ভিডিও ফুটেজ দেখে জড়িতদের চিহ্নিত করে বহিষ্কার করা হয়েছে : লেখক

Dhaka Post Desk

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

ঢাবি

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:১৮ এএম


ভিডিও ফুটেজ দেখে জড়িতদের চিহ্নিত করে বহিষ্কার করা হয়েছে : লেখক

দুইপক্ষের রেষারেষি ও মারামারির ঘটনায় ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত এবং সাংগঠনিক শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে ১৬ জনকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।

ভিডিও ফুটেজ দেখে এসব নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। কীসের ভিত্তিতে বহিষ্কার করা হলো— এমন প্রশ্নের জবাবে রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, আমরা একটা তদন্ত কমিটি করেছিলাম, তারা তাতে আস্থা রাখতে পারছে না। তাই আমরা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ একটি বডি মিলে এই ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত করেছি। আমরা ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলায় জড়িতদের চিহ্নিত করে তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ ঘটনার আরও তদন্ত চলবে বলে জানান লেখক ভট্টাচার্য।

আরও পড়ুন: ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত, বহিষ্কার ১৬

রোববার ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সহ সভাপতি পক্ষের নেত্রীরা অভিযোগ করেন, কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের ফোন ধরেন না, যার ফলে তারা কোনো অভিযোগ জানাতে পারেন না। এ বিষয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা আমাদের কোনো ফোনই দেয়নি। সবকিছু নিয়ে মিথ্যাচার করেছে। তারা যে সিট বাণিজ্য ও চাঁদাবাজির কথা বলেছে, এটার কোনো প্রমাণ তো দিতে পারছে না তারা। কমিটি দেওয়ার পর থেকেই একটি অংশ বার বার কমিটিকে বিতর্কিত করা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিল।

গত ২২ সেপ্টেম্বর ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রীভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার বিরুদ্ধে ‘সিট বাণিজ্য ও চাঁদাবাজির’ অভিযোগ এনে গণমাধ্যমে বক্তব্য দেওয়ায় শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাতে সংগঠনটির সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌসকে ছাত্রীনিবাসের একটি কক্ষে আটকে রেখে মারধর করার অভিযোগ উঠে।

এ ঘটনায় মধ্যরাতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের একাংশের বিক্ষোভে ইডেন কলেজ ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভকারীরা রীভা ও রাজিয়ার বহিষ্কারের দাবি জানান।

পরে রোববার দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সুপারিশসহ প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ আসে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে। তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন— ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি তিলোত্তমা শিকদার ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেনজির হোসেন নিশি।

তদন্ত কমিটির প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করে রোববার দুপুরে বিরোধী পক্ষ সংবাদ সম্মেলন করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সাংগঠনিক ব্যবস্থা না এলে গণপদত্যাগের হুঁশিয়ারি দেন তারা।

এরপর বিকেলে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সংবাদ সম্মেলন করতে এলে আবারও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে দুইপক্ষ। প্রায় আধাঘণ্টা ধরে দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ক্যাম্পাসে পুলিশ মোতায়েন করে কলেজ কর্তৃপক্ষ।  দুইপক্ষের মারপিটে কলেজ শাখার সভাপতিসহ অন্তত ১০ জন আহত হন বলে জানা গেছে। সংঘর্ষের জন্য উভয়পক্ষ পরস্পরকে দায়ী করেছে।

এইচআর/এসএসএইচ

Link copied