মানবিক কারণে নিয়োগ দিয়েছি : অধ্যাপক আব্দুস সোবহান

Dhaka Post Desk

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক, রাবি

০৮ মে ২০২১, ১৯:১৮


মানবিক কারণে নিয়োগ দিয়েছি : অধ্যাপক আব্দুস সোবহান

অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান

মানবিক বোধ থেকেই ১৪১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সদ্য সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান। শনিবার (০৮ মে) বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটির সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান। 

অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান বলেন, আমি আগে থেকেই বলেছি এই নিয়োগগুলো হওয়া দরকার ছিল। ২০১৩ সালের পর ২০২১ এই ৮ বছরে কোনো নিয়োগ হয়নি। আমরা নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছিলাম। হঠাৎ করে এর মধ্যে করোনা চলে আসে। আমরা তখন নিয়োগ বন্ধ করে দেই। এরপর ক্যাম্পাসে গুঞ্জন শোনা যায় কিছু শিক্ষকের মুখে। তারা বলতে থাকেন যে এ নিয়োগ দেওয়া যাবে না, মন্ত্রণালয় থেকে নিষেধাজ্ঞা আসবে। সেটা অবশেষে সত্য হলো। ডিসেম্বরের ১৩ তারিখ সকালে আমার কাছে ইমেইল আসে। আমি বিস্মিত হলাম। যারা ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করছিল তারা কীভাবে জানলো যে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে? গুঞ্জনটা সত্যে পরিণত হলো, আমি তাদের বলেছি এই কথা।

তিনি আরও বলেন, আমরা যখন ভাইভা নিব তখন নিষেধাজ্ঞা আসে। করোনার জন্য স্থগিত রাখি। ২০০টি পদে আমরা বিজ্ঞাপন দিয়েছিলাম, যারা প্রার্থী ছিল তাদের সমস্ত কিছু হয়ে গিয়েছিল। শুধু ভাইভা বাকি ছিল। সুতরাং তারা এটা পাওয়ার দাবি রাখে। 

অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান, আমি মনে করি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শুধু এই নিয়োগ না, আরও নিয়োগ দিতে হবে। না দিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হবে। বিশ্ববিদ্যালয় মুখ থুবড়ে পড়বে। 

তিনি বলেন, কিছু শিক্ষক শুরু থেকেই বিরোধিতা করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় অচল করার, স্বাভাবিক কাজকর্ম চলতে না দেওয়ার। সেটাকে উৎসাহিত করা হয়েছে। 

মানবিক কারণে এই নিয়োগ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে রাবির সদ্য সাবেক এই উপাচার্য বলেন, এখানে যারা এ নিয়োগটা ডিজার্ব করে তারাই পেয়েছে। আমি মানবিক কারণে তাদের নিয়োগ দিয়েছি। তাদের প্রত্যেকেই অনার্স-মাস্টার্স পাস। তারা একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেণির একটা চাকরি করবে, আমি মনে করি এটা যৌক্তিক। তারা আওয়ামী পরিবারের সন্তান। তাদের ক্রমাগত দাবিতে আমি মানবিক বোধ করেছি তাদের চাকরি পাওয়া উচিত। তাদের চাকরি দিয়েছি, কেউ আমাকে বলেনি।

এদিকে তদন্ত শেষ সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। 

তিনি বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে ইউজিসি যে তদন্ত কমিটি করেছে আমরা সেটা তদন্তে এখানে এসেছি। আমরা চাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হবে শিক্ষা এবং গবেষণার কেন্দ্রবিন্দু। স্বল্প সময়ের মধ্যে পুরো বিষয়টি তদন্ত করে আমরা একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে চাই। এর জন্য আমরা সবার সঙ্গে কথা বলেছি, সমস্ত তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেছি। আমরা বিষয়গুলো বিশ্লেষণ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দেব।

তিনি বলেন, আমাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য সাতদিন সময় পেয়েছি। আশা করি সময়সীমার মধ্যেই সেটা দিতে পারব। 

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ড. মো. জাকির হোসেন আখন্দ ও ইউজিসির পরিচালক মোহাম্মদ জামিনুর রহমান।

এর আগে গত ৬ মে (বৃহস্পতিবার) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান তার মেয়াদের শেষ কার্যদিবসে একসঙ্গে ১৪১ জনকে নিয়োগ দেন। এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এই নিয়োগকে অবৈধ উল্লেখ করে সন্ধ্যায় তদন্ত কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।  শনিবার (০৮ মে) তদন্ত কমিটির সদস্যরা ক্যাম্পাসে এসে বর্তমান উপাচার্য (দায়িত্বপ্রাপ্ত), সাবেক উপাচার্য, রেজিস্ট্রার ও নিয়োগের সঙ্গে সংশিষ্ট সকলের সঙ্গে বৈঠক করেন। 

মেশকাত মিশু/আরএআর

Link copied