রংপুরে ইভ্যালি ও কিউকমের বিরুদ্ধে ৩২ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলা

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

১২ মে ২০২২, ০৭:২০ পিএম


রংপুরে ইভ্যালি ও কিউকমের বিরুদ্ধে ৩২ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলা

রংপুরে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি ও কিউকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও চেয়ারম্যানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে আদালতে পৃথক দুটি মামলা করেছেন এক ব্যবসায়ী।তাদের বিরুদ্ধে লোভনীয় অফারে পণ্য সরবরাহের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে ৩২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনেছেন মামলার বাদী অমিত বণিক।

আসামিরা হলেন, ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেল, চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিন, কপল দেবনাথ দ্বীপ, নাসরিন আক্তার, সবুজ সাইক, মারুফ হোসেন ও মো. খুরশিদ।

এছাড়া অপর একটি মামলায় কিউকম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রিপন মিয়া ও প্রতিষ্ঠানটির চিফ ডেলিভারি অফিসার তানোয়ার চৌধুরী বীরকে আসামি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) দুপুরে রংপুর চীফ মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি আমলি আদালতে মামলাটি দায়ের করেন বাদী অমিত বণিক।

পরে শুনানি শেষে রংপুর চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (আমলী) আদালতের বিচারক এফ. এম আহসানুল হক আগামী ১২ জুন মামলার দিন ধায্য করেছেন। একই সঙ্গে ইভ্যালির সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন বিচারক।

ঢাকা পোস্টের এ প্রতিবেদককে এসব তথ্য নিশ্চিত করে বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সিপন সাহা বলেন, রংপুর নগরীর থানা রোড এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী অমিত বণিক প্রতারণার শিকার হয়ে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি ও কিউকম লিমিটেডের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে মামলা করেছেন।

অভিযোগ করা হয়েছে, ইভ্যালি বিভিন্ন লোভনীয় অফারে টিভি, সিসি ক্যামেরা, ওয়াশিং মেশিন, কম্পিউটার মনিটর, গ্যাসের চুলাসহ নানা পণ্য সরবরাহের কথা বলে ২০২০ সালের ৫ ডিসেম্বর থেকে পরবর্তী সময়ে তিন দফায় ২০ লাখ ৪৬ হাজার ৯৮৫ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পণ্য সরবরাহ করেননি। বরং প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্বরত কর্মকর্তারা ৪৫ দিনের পণ্য সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দিলেও অর্থগ্রহণের পর তারা পুরোপুরি যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। 

একই রকম অভিযোগ কিউকম লিমিটেডের ব্যাপারেও। এ প্রতিষ্ঠানটি ৩০ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহের শর্তে ১১ লাখ ৫৫ হাজার ২১৪ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। 
 
বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সিপন সাহা বলেন, নিয়ম অনুযায়ী পণ্য সরবরাহ করার কথা থাকলেও প্রতিষ্ঠান দুটির কেউই তা করেননি। বরং ভোক্তার সঙ্গে এক প্রকার প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এ ঘটনায় টাকা লেনদেনের উপযুক্ত প্রমাণাদিসহ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আগামী ১২ জুন শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন আদালত। একই সঙ্গে ইভ্যালির সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন বিচারক।

ফরহাদুজ্জামান ফারুক/এমএএস

Link copied