৩০০ বছর ধরে যে দরবারে দেখা যায় বিরল নিদর্শন

Dhaka Post Desk

সৈয়দ মেহেদী হাসান, বরিশাল

২৭ জুন ২০২২, ০৪:৫৮ পিএম


অডিও শুনুন

তারা এসেছিলেন ইসলাম প্রচার করতে। সেই সুবাদে চন্দ্রদ্বীপের রাজা তাদের জন্য পাঠান উপঢৌকন। কিছুদিন যেতেই আবার উপহার ফেরত চান জমিদার। উপহার দিয়ে ফেরত নেওয়ার এই হীনম্মন্যতা মেনে নিতে পারেননি তারা। তাই সিদ্ধান্ত নেন চলে যাবেন।

কথিত আছে, তবে যাওয়ার আগে অলৌকিক ক্ষমতায় মাটির সুড়ং থেকে স্বর্ণ, রৌপ্য, পিতলের থালা, কাপড়, খাদ্যশস্য, জীবন্ত ঘোড়া উগড়ে দিয়ে সেই সুড়ং ধরে গায়েব হয়ে যান ১২ জন আউলিয়া। খবর শুনে জমিদার ঘোড়ার বহর ছুটিয়ে আসেন ঘটনাস্থলে। নিজের ভুল বুঝতে পেরে যতটুকু এলাকায় আউলিয়াদের পা পড়েছে, সেই জমি খাজনামুক্ত করে দেন। সুড়ঙের চারপাশে তুলে দেন প্রাচীর।

ক্ষমতার পালাবদলে হারিয়ে গেছে ‘বাঙাল’ রাজত্ব। ঐতিহাসিকভাবে সবচেয়ে সমৃদ্ধ জনপদ বাকলার চিহ্নও বিলীন। বাঙাল, বাকলা বা চন্দ্রদ্বীপ— কোনো সাম্রাজ্যই আর নেই। অতঃপর প্রতিষ্ঠা পাওয়া চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের আধ্যাত্মিক সাধকদের তীর্থস্থান বারো আউলিয়ার দরগাহর গোড়াপত্তনের কিংবদন্তি এভাবেই হয়েছে।

বাকলার রাজধানী কচুয়া বিলীন হয়ে গেছে নদীগর্ভে। কিন্তু ইতিহাস, ঐতিহ্যের অমোচনীয় সাক্ষী আর মানবকল্যাণের স্মারক হয়ে আজও টিকে আছে বারো আউলিয়ার দরগাহ বা দরবার।

জানা যায়, এ দরবারে শুধু ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের আনাগোনা নয়, সনাতন ধর্মাবলম্বীরাও আসেন পূজা দিতে। শতাব্দীর পর শতাব্দী এই দরবারে মুসলমানরা আদায় করছেন নামাজ, সনাতনীরা দিচ্ছেন পূজা। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নবান্ন উৎসব। ফলে অসাম্প্রদায়িক চেতনার উৎকৃষ্ট উদাহরণ হয়ে আছে বাকেরগঞ্জের বারো আউলিয়ার দরবার।

সরেজমিনে দেখা যায়, বারো আউলিয়াদের চলে যাওয়ার সেই সুড়ং মতান্তরে মাছিম শাহের কবর ঘিরে রাখা পাকুড়গাছের শিকড়ে-ডালে অসংখ্য পলিথিন এবং কাপড় বেঁধে রাখা হয়েছে। ভক্তদের বিশ্বাস, মনের আশা পলিথিনে বা কাপড়ে লিখে এই গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখলে তা পূরণ হয়। আবার আশা পূরণ হলে তা নিজ দায়িত্বে খুলে ফেলতে হয়।

দরবারের গোড়াপত্তনের ইতিহাস
বাকেরগঞ্জের বারো আউলিয়ার দরবার প্রতিষ্ঠার দুই ধরনের তথ্য পাওয়া যায়। এর মধ্যে সিরাজ উদ্দিন আহমেদের ঐতিহাসিক গ্রন্থ ‘বরিশাল বিভাগের ইতিহাস’-এ সম্রাট আওরঙ্গজেবের শাসনামলে প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সে হিসাবে ৩০০ বছরের পুরোনো অর্থাৎ ১৬৫৮ থেকে ১৭০৭ সালের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত।

অন্যদিকে দরবারে পালিত ৫৬৫তম ওরস মাহফিলের হিসাব অনুসারে রয়েছে ১৪৫৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা। যদিও বারো আউলিয়ার দরবারের ওরসের বর্ষ হিসাব সঠিক, তা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

উপঢৌকন বিষয়ে জনশ্রুতি রয়েছে, বাকেরগঞ্জের প্রতিষ্ঠাতা মির্জা আগা মুহাম্মদ বাকের খাঁ রাজার দেওয়া উপঢৌকন বারো আউলিয়ার কাছ থেকে ফেরত নিতে চেয়েছিলেন। অর্থাৎ সম্রাট আওরঙ্গজেব নতুবা তার দ্বিতীয় পুত্র মির্জা আজম শাহের মাধ্যমে বাংলার রাজত্ব পাওয়া মুর্শিদ কুলী খানের শাসনামলে প্রতিষ্ঠিত। কারণ, ওই সময়ে বাকের খাঁ এই অঞ্চলের জমিদার বা বাদশায় নিযুক্ত কর্মচারী ছিলেন।

ইতিহাস বলছে, পারস্য থেকে বাংলায় আসা অভিজাত সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন মির্জা আগা মুহাম্মদ বাকের খান। তিনি ছিলেন বুজুর্গ উমেদপুর ও সলিমাবাদ পরগনার প্রভাবশালী জমিদার। মোগল আমলের এ দুটি পরগনা (বর্তমানে বৃহত্তর বরিশাল জেলার) বিশাল অংশে বিস্তৃত ছিল। আগা বাকের ছিলেন নবাব সরফরাজ খানের অধীনে ওডিশার নায়েব নাযিম রুস্তম জংয়ের জামাতা। ওডিশার অধিকার নিয়ে রুস্তম জং ও আলীবর্দী খানের মধ্যকার সংঘর্ষে আগা বাকেরের দুঃসাহসী ভূমিকা ছিল।

১৭৪১ সালের ডিসেম্বরে আলীবর্দী খান বিশেষ অভিযান চালিয়ে মহানদীর দক্ষিণ তীরে রায়পুর নামক স্থানে নবাব সরফরাজ খানের অধিনস্ত মির্জা আগা মুহাম্মদ বাকের খানকে পরাজিত করেন। তবে ১৭৪২ সালের শুরুর দিকে আলীবর্দী খানের কাছে আত্মসমর্পণ করেন বাকের খান। তাঁকে বুজুর্গ উমেদপুর ও সলিমাবাদ পরগনার জায়গির প্রদান করা হয়।

১৭৫৪ সালে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত আগা বাকের তার জায়গিরে বহাল ছিলেন। আগা বাকের বুজুর্গ উমেদপুরে একটি বড় গঞ্জ প্রতিষ্ঠা করেন। নিজের নামানুসারে নাম দেন বাকেরগঞ্জ। বাকেরগঞ্জ তখন একটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দরে রূপ নেয়। যেখানে পারস্য, আর্মেনিয়া, কাশ্মীর থেকে বণিকরা লবণ ও চামড়ার ব্যবসা করতে আসতেন।

বাকের খানকে পরাজিত করে জায়গির প্রদানকারী আলীবর্দী খান ছিলেন ষষ্ঠ মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের দ্বিতীয় পুত্র মির্জা আজম শাহের দররবারের কর্মচারী। ১৭৪০ সালে তিনি দিল্লির রাজদরবারে অবস্থানরত বন্ধু মুতামানউদ্দৌলার সহযোগিতায় বাদশাহ মুহম্মদ শাহের কাছ থেকে বাংলা, বিহার ও ওডিশার শাসনভার গ্রহণ করেন।

এ সময়ের মধ্যে প্রতিষ্ঠা পাওয়া বারো আউলিয়ার দরবারটি ছিল মূলত আউলিয়াদের ধ্যানের জায়গা। স্থানীয় জমিদারের সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হলে সুড়ঙ্গ পথে নিরুদ্দেশ হন আউলিয়ারা। ভক্তরা মাজারের উত্তর পাশে সেই সুড়ঙ্গপথে দুধ ঢেলে দিত। যা কাছের একটি পুকুরে গিয়ে জমা হতো। সেই পুকুরটিকে বলা হয় দুধ পুকুর। আউলিয়ারা চলে গেলে স্থানীয় বিখ্যাত দরবেশ ফকির জালাল আরেফিন দরগাহ ও মাজারের তত্ত্বাবধান করেন। তবে দরবারের প্রতিষ্ঠাতা ফকির জালাল আরেফিনও নন। মূলত মাছিম শাহ নামে একজন পীরের বসবাসের স্থান ছিল ওই দরবার এলাকা। সেই মাছিম শাহ-বারো আউলিয়াদের দক্ষিণাঞ্চলে আসার আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। বারো আউলিয়ার দরগায় এই মাছিম শাহের কবর রয়েছে।

নামাজ ও পূজা একই দরবারে
পাকুড়গাছে আবৃত মাজারে প্রবেশের হাতের ডান দিকেই চোখে পড়বে একটি লম্বা আকৃতির কালো পাথর। পাথরের গায়ে তাজা সিঁদুর, সরিষার তেল। এই পাথরটি নিয়ে সঠিক কোনো ইতিহাস পাওয়া যায় না। কেউ এটিকে বলেন শিব পাথর অনেকে বলেন শিবলিঙ্গ। নতুন বিয়ের পর নির্ধারিত তিথিতে পাথরটির মাথায় সিঁদুর ও সরিষার তেল দিয়ে যান নবদম্পতি। দেবতা শিবের সন্তুষ্টির জন্যই এই অর্চনা।

দরবারের পূর্বপাশে রয়েছে নারীদের নামাজের স্থান। ঐতিহাসিকদের মতে, প্রাচীন আমলে যে স্থানে মসজিদ ছিল, সেটি এখন বিলীন হয়ে গেছে। ওই আমলের একটি ঘাটলা ও দিঘির অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। স্থানীয়দের ধারণা, বর্তমানে যেখানে ঈদগাহ, সেখানেই ছিল মসজিদ ও ঘাটলা। যদিও এখন নতুন নকশায় আরেকটি দোতলা মসজিম নির্মাণ করা হয়েছে দরবারের মূল অংশে প্রবেশের মুখেই। 

একই দরবারে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শিব পাথরে পূজা ও মুসলিমদের নামাজ আদায় নিয়ে বিশেষ কোনো আপত্তি নেই কারও।

মাজারের খাদেম ও মোতোয়ালিরা বলছেন, বারো আউলিয়ার দরবার প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সব ধর্মের মানুষের প্রার্থনার জন্য উন্মুক্ত ছিল। তেমনি শত শত বছর ধরে চলে আসছে এ নিয়ম। হিন্দুরা তাদের রেওয়াজ মেনে পূজা-অর্চনা করে চলে যায়। মুসলমানরা নামাজ আদায়, কবর জিয়ারত করেন। দোল পূর্ণিমা, লক্ষ্মী পূর্ণিমা ও অগ্রহায়ণ মাসের ১০ তারিখ ওরস মাহফিলের আয়োজন করা হয় এখানে।

একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কারও কাছে কিছু চাওয়া হলো শিরক। তাই ইসলাম ধর্মে মাজার ও দরবারে দান-মানতের বিষয়ে নিষেধ থাকলেও এ দুজন দাবি করেন, ধর্ম-বর্ণনির্বিশেষে সব বয়সী মানুষ আসে এখানে উন্নত জীবন লাভের আশায়। এ ছাড়া সারা বছরই মানতের দ্রব্য, টাকা নিয়ে আসে ভক্তরা।

দরবারের দখল নিতে লড়াই
দরবার প্রতিষ্ঠার সঠিক ঐতিহাসিক প্রমাণাদি পাওয়া না গেলেও বর্তমানে দুটি পক্ষ নিজেদের বারো আউলিয়ার মোতোয়ালি ও খাদেম দাবি করে বিরোধে লিপ্ত। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দরবারের দানবাক্স ও লাখেরাজ সম্পত্তির ভোগদখলকে কেন্দ্র করেই এর সূত্রপাত।

খাদেমদের দাবি, ১৯ একরের বেশি সম্পত্তি রয়েছে দরবারটির। যার অর্থমূল্যে কয়েক কোটি টাকা। এর মধ্যে সাড়ে তিন একর জমিতে দরবার ও কবর, দুটি স্কুল, জামে মসজিদ, নারীদের নামাজের স্থান, হিন্দুদের পূজার স্থান, দুধপুকুর, জলাশয় দখলে রয়েছে।

দরবারের মূল অংশে কবর রয়েছে ছাদের আলী ফকির নামে এক খাদেমের। তারই বংশধর ও এলাকাবাসীর করা দরবার পরিচালনা কমিটির মাধ্যমে দীর্ঘদিন পরিচালনা করলেও দরবারের মোতোয়ালি দাবি করে বাউফল উপজেলার কালীশুরির বাসিন্দা সৈয়দ মো. খালেক শাহ তালুকদার চিশতি ২০০৩ সালের বরিশাল তৃতীয় যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করেন। 

এরই সূত্র ধরে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ওয়াকফ এস্টেট প্রশাসক অতিরিক্ত সচিব এম এম তারিকুল ইসলাম দরবার পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে মামলা পরিচালনা ও এস্টেটের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনার সাময়িক নির্দেশ দেন। ২০০৯ সালে গঠিত সেই কমিটির সভাপতি ছিলেন জেলা প্রশাসক ও সৈয়দ মো. খালেক শাহ তালুকদার চিশতি ছিলেন সাধারণ সম্পাদক।

সেই নির্দেশনা অনুযায়ী খাদেমের বংশধরদের হটিয়ে মোতোয়ালি সৈয়দ মো. খালেক শাহ তালুকদার চিশতির প্রতিনিধি মাওলানা হেলাল উদ্দিন দরবারটির কিছু অংশ দেখভালের দখল নিয়েছেন। তবে দরবারের জমিতে নির্মিত মসজিদ পরিচালনায় নতুন কমিটি নিয়ে তুমুল দ্বন্দ্ব চলছে। এদিকে খাদেমের বংশধররাও দরবারে থাকেন। তারাও দেখভাল করেন। দরবারে দানের টাকায় দরবার পরিচর্যার পরও তিন লাখের ওপর ব্যাংকে জমা রয়েছে বলে জানা গেছে।

দরবারের খাদেম আব্দুস সালাম ফকির বলেন, দরবারের মধ্যে যে মাজারটি করা হয়েছে, সেখানে আসলে কারও মরদেহ নেই। এই দরবারে বারো আউলিয়ার কেউ নেই। তারা ইসলাম প্রচার করতে এসেছিলেন। বাদশাহর সঙ্গে দ্বিমতে তারা মাটির সুড়ং কেটে মালামাল ফেরত দিয়ে গায়েব হয়ে যান। সেই সুড়ংয়ের মুখে স্মৃতিস্বরূপ মাজার নির্মাণ করা হয়েছে।

গাছের শিকড়ে পলিথিন বা কাপড় গিঁট কেন, জানতে চাইলে দরবারের সেবক আব্দুল লতিফ খান বলেন, দরবারে হিন্দুরা হিন্দুদের নীতি পালন করে চলে যান। আর মুসলিমরা আমাদের নিয়ম অনুসারে ধর্মকর্ম পালন করি। একই দরবারে দুই ধর্মের মানুষের প্রার্থনায় কোনো সমস্যা হয় না। এ ছাড়া সব ধর্মের মানুষ মনের আশা পূরণে গাছের শিকড়ে পলিথিন বা কাপড় গিঁট দেয়। পূরণ হলে তা খুলে ফেলে।

দরবারের মোতোয়ালি প্রতিনিধি হেলাল উদ্দিন বলেন, দরবার প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিভিন্ন ধর্মের লোক এখানে আসেন। হিন্দু বা মুসলিম যারাই আসুক, তারা তাদের ধর্মের নিয়ম অনুসারে পালন করে চলে যান। এই দরবারে ১৯ একর লাখেরাজ সম্পত্তি। একটি ভুয়া কমিটি করে মসজিদ পরিচালনা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তারা যে কমিটিতে পরিচালনা করছে, আসলে তো ওগুলো ভুয়া। আসল কমিটি হচ্ছে আমাদেরটি।

এনএ

Link copied