ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চাঙা ডাবের ব্যবসা, মাসে বিক্রি কোটি টাকা

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

০৭ আগস্ট ২০২২, ০১:১৭ পিএম


ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চাঙা ডাবের ব্যবসা, মাসে বিক্রি কোটি টাকা

তীব্র গরমে তৃষ্ণা মেটাতে ডাবের চাহিদা এখন তুঙ্গে। এ কারণে সারা দেশের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়াতেও জমজমাট প্রাকৃতিক বিশুদ্ধ এই পানীয়র ব্যবসা। প্রতি মাসে অন্তত ১ কোটি টাকার ডাব বেচা-কেনা হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখন সারা বছরই ডাবের চাহিদা থাকে। আর চাহিদার সঙ্গে সঙ্গে ডাব ব্যবসার পরিধিও বাড়ছে। এতে কর্মসংস্থান হচ্ছে অনেকের। চিকিৎসকরাও গ্রীষ্মের এই তাপদাহে শরীরের পানিশূন্যতা ও লবনের ঘাটতি পূরণে সবাইকে ডাবের পানি পান করার পরামর্শ দিচ্ছেন।

ডাব ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রতিদিন গড়ে সাড়ে ৩ হাজার পিস ডাব বেচা-কেনা হয়। শুধু জেলা শহরেই বিক্রি হয় অন্তত ২ হাজার পিস। আকার ভেদে প্রতি পিস ডাব খুচরা বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকায়। তবে ডাবের চাহিদা রয়েছে আরও বেশি। কিন্তু চাহিদার তুলনায় বাজারে ডাবের যোগান কম থাকায় দাম কিছুটা বেশি।

জেলায় ডাব ব্যবসায়ী আছেন প্রায় ১০০ জন। এর মধ্যে শহরকেন্দ্রিক ব্যবসায়ীর সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০ জন। সবগুলো দোকানই ফুটপাতে বসে। কেউ কেউ আবার ভ্যানগাড়িতে করেও বিক্রি করেন। নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, সিলেট ও ভোলাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ডাব আসে এখানে। সবচেয়ে বেশি ডাব আসে নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুর থেকে। প্রতি মাসে অন্তত ১ লাখ ৫ হাজার পিস ডাব বিক্রি হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। যার বাজারমূল্য প্রায় ১ কোটি টাকা।

dhakapost

ডাব সবচেয়ে বেশি বেচা-কেনা হয় হাসপাতালের সামনের দোকানগুলোতে। ডাব ব্যবসার মাধ্যমে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা যেমন অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন, তেমনি কর্মসংস্থানেরও সুযোগ তৈরি হচ্ছে। তবে ডাবের দাম নিয়ে ক্রেতাদের মাঝে অসন্তোষ রয়েছে। তারা বলছেন, ১০০ টাকা দিয়ে ডাব কেনার সক্ষমতা সবার নেই। বিশেষ করে দরিদ্র মানুষের জন্য ১০০ টাকা দিয়ে ডাব কিনে খাওয়া দুরূহ।

জেলা শহরের স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা আশরাফ উদ্দিন জানান, তাপদাহ শুরুর আগে তিনি ৬৫ থেকে ৭০ টাকায় ডাব কিনে খেয়েছেন। কিন্তু এখন সেই ডাব কিনতে হচ্ছে ৯০-১০০ টাকায়। ডাবের এই মূল্যবৃদ্ধি ব্যবসায়ীদের কারসাজি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের সদর হাসপাতাল সড়কের ডাব ব্যবসায়ী বাছির মিয়া জানান, পান-সিগারেটের পাশাপাশি তিনি ডাব বিক্রি করেন। প্রতিদিন তার দোকানে গড়ে ১০০ পিস ডাব বিক্রি হয়। কর্মচারীর বেতন দিয়ে ডাব ব্যবসা থেকে তার মাসিক আয় ১৫-২০ হাজার টাকা বলেও জানান তিনি।

আরেক ডাব বিক্রেতা মো. আক্কাস জানান, বাজারে ডাবের সংকট থাকায় দাম কিছুটা বেশি। যখন যোগান ভালো থাকে তখন দামও কম থাকে। বেচা-কেনা ভালো হলে প্রতিদিন ১২০০-১৫০০ টাকা আয় হয় তার। ডাব ব্যবসার আয় দিয়েই তার পরিবার চলে। তবে অনেক সময় লোকসানও গুনতে হয়। কারণ পাইকার যে ডাব সরবরাহ করে তার মধ্যে কিছু খারাপ ডাবও থাকে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের ব্যবসায়ীর কাছে ডাব সরবরাহকারী হান্নান মিয়া জানান, প্রতি সপ্তাহে তিনি আড়াই থেকে ৩ হাজার পিস ডাব সরবরাহ করেন ব্যবসায়ীদের কাছে। শহরে তার মতো আরও দুইজন খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে ডাব সরবরাহ করেন। চাহিদা ভালো থাকায় নতুন অনেকেই ডাব ব্যবসায় আসছেন।

চাহিদার তুলনায় ডাব না পাওয়া এবং পরিবহন খরচ বাড়ায় ডাবের দামও কিছুটা বেশি। প্রতি পিস ডাব ৭০-৭৫ টাকা দরে কিনতে হয়। ভালো ডাবগুলোর সঙ্গে অনেক খারাপ ডাবও থাকে। সেগুলোর জন্য একই দাম দিতে হয়। তাই ডাবের দাম বেশি পড়ে। এখানে ব্যবসায়ীদের কোনো কারসাজি নেই।

ডাবের গুণাগুণ সম্পর্কে চিকিৎসকরা বলছেন, ডাবের পানিতে প্রচুর পরিমাণ খনিজ লবন থাকে। গরমের সময় শরীরের ঘাম ঝরার ফলে যে লবনের ঘাটতি এবং পানিশূন্যতা তৈরি হয় সেটি পূরণ করে ডাবের পানি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন, গরম আবহাওয়ায় মানুষের শরীরে পানি এবং লবনের শূন্যতা দেখা হয়। এই সময়টাতে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন ধরনের পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয় মানুষ। ডাবের পানি শরীরের পানিশূন্যতা এবং লবনের ঘাটতি পূরণ করে শরীরকে চাঙা করে। তাই গরমের সময়টাতে সুস্থতার ক্ষেত্রে ডাবের কার্যকারিতা অনেক।

আরআই

Link copied