কেন্দুয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণাধীন ঘরে আগুন

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, নেত্রকোণা

১৩ আগস্ট ২০২২, ০৯:১৭ পিএম


কেন্দুয়ায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণাধীন ঘরে আগুন

নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল গ্রামের শতবর্ষী খেলার মাঠের কিছু অংশে নির্মাণাধীন আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শুক্রবার (১২ আগস্ট) দিনগত রাত সাড়ে ৪টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটে। 

এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করেছে কেন্দুয়া থানা পুলিশ। তবে ঘটনার তদন্তের স্বার্থে আটকদের নাম বলেনি পুলিশ।

এদিকে শনিবার (১৩ আগস্ট) বিকেলে বলাইশিমুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের চলমান বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে প্রেসব্রিফিং করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা বেগম। এ সময় উপজেলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম, ওসি মো. আলী হোসেন পিপিএমসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
dhakapost.com

আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণাধীন ঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনায় কেন্দুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহমুদা বেগমের প্রেস ব্রিফিং

প্রেস ব্রিফিংয়ে ইউএনও মাহমুদা বেগম তার বক্তব্যে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় কেন্দুয়া উপজেলায় ৩য় পর্যায়ের ৪র্থ ধাপের ১৯৭ ঘরের মধ্যে বলাইশিমুল ইউনিয়নে বলাইশিমুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের শুরু থেকেই বলাইশিমুল গ্রামের এক শ্রেণির দুষ্কৃতকারী, দুর্বৃত্ত লোকজন বিরোধিতা করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় ভোর রাত সাড়ে ৪টার দিকে পাটকাঠি ও পাট দিয়ে দাহ্য পদার্থের মাধ্যমে দুর্বৃত্তরা আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৭ এবং ৮ নং ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এ সময় বিষয়টি দেখতে পেয়ে সেখানে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে আগুনে আশ্রয়ণের ঘরের টিন ও কাঠের ক্ষতি হয়েছে। আশ্রয়ণ প্রকল্পের বিরোধিতার নামে দুস্কৃতিকারীরা মূলত সরকার বিরোধী চক্র হিসেবে কাজ করছে এবং সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে।

dhakapost.com
মাঠ রক্ষার দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

তিনি আরও বলেন, বলাইশিমুল খেলার মাঠের ১ একর ৮৭ শতাংশ জায়গা রয়েছে। এর মধ্যে মাঠের কিছু জায়গা স্থানীয়দের দখলে ছিল। আমরা ৭৬ শতাংশ ভূমি উদ্ধার করেছি। প্রথমে এ মাঠে ১০০ ঘর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও মাঠ রক্ষার কথা ভেবে তা বাতিল করে মাঠের দুই পাশে ৪৬ শতাংশ জায়গায় ২৩টি ঘর নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে বর্তমানে ঘর সংখ্যা কমিয়ে এখানে ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে ১২টি। বাকি ১১টি ঘর অন্য জায়গায় করা হবে। তবে সরকারের এই মহান উদ্যোগকে যারা নস্যাৎ করার হীন ষড়ষন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। আমরা বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে তাদেরকে সনাক্ত করছি। এতে প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা, সরকারি কর্মকর্তাসহ অনেকেই জড়িত। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। 

অপরদিকে, একইদিন সন্ধ্যার আগে বলাইশিমুল আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন ও খেলার মাঠ সংরক্ষণের দাবিতে ওই মাঠে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ। মানববন্ধনে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মো. নুরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আসাদুল হক ভূঞাসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বলাইশিমুল খেলার মাঠের কিছু অংশ জুড়ে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজের শুরু থেকে মাঠ রক্ষার দাবিতে আশ্রয়ণের ঘর অন্যত্র সরিয়ে নিতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে স্থানীয়রা। এ নিয়ে প্রশাসন ও এলাকাবাসীর মধ্যে কয়েকবার বৈঠকও হয়েছে। এমনকি দুপক্ষের মধ্যে মামলা মোকদ্দমাও হয়েছে। তবে স্থানীয় প্রশাসন খেলার মাঠের প্রয়োজনীয় জায়গা রেখেই মাঠের কিছু অংশে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ চলমান রেখেছে বলে এলাকাবাসীকে বারবার আশ্বাস দিলেও এলাকার লোকজন সম্প্রতি মাঠরক্ষা গণকমিটি গঠন করে একের পর এক কর্মসূচি পালন করে আসছেন। 

মো. জিয়াউর রহমান/এমএএস

Link copied