মরিয়ম মান্নানের মায়ের নিখোঁজের বিষয়ে যা বলল পিবিআই

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩৬ পিএম


মরিয়ম মান্নানের মায়ের নিখোঁজের বিষয়ে যা বলল পিবিআই

২৯ দিন নিখোঁজ থাকার পর মরিয়ম মান্নানের মা রহিমা বেগমকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারের পর থেকে এখন পর্যন্ত নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে মুখ খোলেননি তিনি। বর্তমানে তিনি পিবিআই কার্যালয়ে রয়েছেন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে আদালতে পাঠানো হবে। এমনটাই জানিয়েছেন পিবিআই খুলনার পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান।

রোববার (২৫ সেপ্টম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের বলেন, এখন বাংলাদেশের ‌‘টপ অব দ্য কান্ট্রি’ রহিমা বেগমের অপহরণ মামলা। যে মামলাটি আমরা তদন্ত করছি। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ গতকাল রাতে  ফরিদপুরের বোয়ালমারী থানার সৈয়দপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পর তাকে খুলনায় আনা হয়। আমরা রহিমা বেগমকে আজ বেলা ১১টার দিকে রিসিভ করি। আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। কিন্তু তিনি উদ্ধারের পর থেকে এখন পর্যন্ত কোনো কথা বলছেন না। তাকে একটু নার্ভাস মনে হচ্ছে। তবে রহিমা বেগম সুস্থ আছেন। আমরা আশা করছি, যেকোনো একটা পর্যায়ে তার থেকে সম্পূর্ণ ঘটনা এবং রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হবো।

এত দিন কোথায় ছিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে পিবিআই এসপি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি নিখোঁজ হওয়ার পরে তিনি প্রথমে কয়েকদিন বান্দরবান ছিলেন। তারপর চট্টগ্রামে ছিলেন। এরপর মোকসেদপুর হয়ে ফরিদপুরে আব্দুল কুদ্দুসের বাড়িতে যান। ওই বাড়িতে কীভাবে গেলেন এমন প্রশ্ন আসতে পারে। রহিমা বেগম মহেশ্বরপাশার যে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়েছিলেন, ওখানে ২৮ বছর আগে আব্দুল কুদ্দুস ভাড়া থাকতেন। তিনি সোনালী জুট মিলে চাকরি করতেন, সেই সুবাধে তার সঙ্গে রহিমা বেগমের পরিচয় ছিল। ১৭ সেপ্টম্বর থেকে উদ্ধার হওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি সেখানে অবস্থান করেন।

পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান বলেন, আমরা এখনও তদন্ত করছি। প্রাথমিকভাবে ওনার (রহিমা) কাছ থেকে সাদা রঙের একটি শপিং ব্যাগ উদ্ধার করা হয়েছে। যার মধ্যে ওড়না, হিজাব, আয়না, শাড়ি, ওষুধ, সালোয়ার কামিজসহ পরিধেয় জিনিস ছিল। 

তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবে একজনকে অপহরণ করে নিয়ে গেলে এগুলো থাকার কথা নয়। তারপরও আমরা মামলার তদন্ত করছি। তদন্ত শেষে আপনাদের বিস্তারিত তথ্য দিতে পারব। তবে আপাতত দৃষ্টিতে অপহরণ নাও হতে পারে।

তিনি বলেন, এর আগে ওনার প্রতিবেশীদের সঙ্গে জমি সংক্রান্ত একটি মামলায় বিরোধ আছে। সেই বিরোধকে ঘিরে এ ঘটনা ঘটছে কি না সেটা আমরা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না। তদন্ত করছি, তদন্ত শেষে প্রতিবেদন যখন আদালতে দাখিল করব, তখন বিস্তারিত আপনাদের জানাতে পারব।

পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান বলেন, রহিমা বেগম অপহরণের অভিযোগে পূর্ব থেকে ৬ জন গ্রেপ্তার রয়েছেন। আমরা তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আবেদন করেছি। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করব, তারা এই মামলার সঙ্গে সম্পৃক্ত আছে নাকি সকলে নিরাপরাধ এটা তদন্ত শেষে বলা যাবে।  

এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, মা হারিয়ে গেলে স্বাভাবিকভাবে যে কেউ একটু রিঅ্যাক্ট করেন। এটাকে আমরা স্বাভাবিকভাবে দেখতে চাই। নিশ্চিত তিনি (মরিয়ম মান্নান) এখন কোনো পোস্ট দিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করবেন এবং ওনার ভুল স্বীকার করবেন।

তিনি বলেন, রহিমা বেগমের সঙ্গে ফরিদপুর থেকে আনা তিনজন দৌলতপুর থানা পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। আমরা তাদের এখনো রিসিভ করিনি। রিসিভ করার পর জিজ্ঞাসাবাদ করব।  

তিনি আরও বলেন, উদ্ধার করা রহিমা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আজ আদালতে পাঠানো হবে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত আদালত থেকে হবে।

মোহাম্মদ মিলন/এসপি 

Link copied