২২ কোটি টাকা নিয়ে উধাও ‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২১ পিএম


২২ কোটি টাকা নিয়ে উধাও ‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’

সিরাজগঞ্জে ‘সিরাজগঞ্জশপ ডটকম’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’ নামের দুটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান খুলে রাতারাতি আলাদিনের চেরাগ হাতে পেয়ে যান স্থানীয় কয়েকজন যুবক। ইভ্যালি ই-অরেঞ্জের মতো চটকদার বিজ্ঞাপন ও বিশাল ছাড়ের অফারের ফাঁদে ফেলে হাজার হাজার গ্রাহকের প্রায় ২২ কোটি টাকা নিয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন তারা।

গ্রাহকদের টাকা নিয়ে হাওয়া হয়ে যাওয়া ওই যুবকরা হলেন- সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জুয়েল রানা, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আকরাম হোসেন ও পরিচালক মাসুদ পারভেজ এবং আলাদিনের প্রদীপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মেহেদী হাসান মুন ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাহমুদ হাসান। বর্তমানে তালাবদ্ধ রয়েছে তাদের কার্যালয়। তবে, অদৃশ্য কারণে এ বিষয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলছেন না ভুক্তভোগীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, সিরাজগঞ্জ শহরের বাহিরগোলা ও এম এ মতিন সড়কে অবস্থিত সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের প্রধান ও আঞ্চলিক কার্যালয় দুটি তালাবদ্ধ। স্থানীয়রা জানান, গত দুই সপ্তাহ ধরে সেখানে কেউ আসেন না। প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসহ আসবাবপত্র সরিয়ে নেওয়া  হয়েছে। রহস্যজনকভাবে লাপাত্তা হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য ডেলিভারি দেওয়া গাড়িগুলো।

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের মতো ‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’ প্রায় সোয়া চার লাখ অর্ডারের বিপরীতে অগ্রিম ২০৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ‘কালো তালিকাভুক্ত’ প্রতিষ্ঠান দুটির কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, পণ্য প্রদান ও টাকা রিফান্ডের পরও প্রতিষ্ঠান দুটির কাছে এখনও গ্রাহকদের পাওনা প্রায় ২২ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের এ অর্থ বকেয়া রেখে প্রতিষ্ঠান দুটির কর্ণধাররা আত্মগোপনে চলে গেছেন
dhakapost
সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের সিইও জুয়েল রানা, পরিচালক মাসুদ পারভেজ এবং আলাদিনের প্রদীপের সিইও মেহেদী হাসান মুন

অন্যদিকে, শহরের এস এস রোডের খেতুন সর্দার মোড়ের একটি ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থিত আলাদিনের প্রদীপের কার্যালয়। সেটিও তালাবদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। হঠাৎ করে প্রতিষ্ঠান দুটির কার্যালয় বন্ধ করে দেওয়ায় টাকা হারানোর আশংকা দেখা দিয়েছে গ্রাহকদের মধ্যে। অনেকে আবার অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছেন অন্তত ‘আসল’ টাকা ফিরে পাবেন।

জানা যায়, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের মতো ‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’ প্রায় সোয়া চার লাখ অর্ডারের বিপরীতে অগ্রিম ২০৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ‘কালো তালিকাভুক্ত’ প্রতিষ্ঠান দুটির কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, পণ্য প্রদান ও টাকা রিফান্ডের পরও প্রতিষ্ঠান দুটির কাছে এখনও গ্রাহকদের পাওনা প্রায় ২২ কোটি টাকা। বিপুল অঙ্কের এ অর্থ বকেয়া রেখে প্রতিষ্ঠান দুটির কর্ণধাররা আত্মগোপনে চলে গেছেন।

ভুক্তভোগী বিনিয়োগকারীরা জানান, আত্মগোপনে যাওয়ার আগে প্রতিষ্ঠান দুটির কর্ণধাররা নানা আশ্বাস দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, দেউলিয়া হওয়ার সম্ভাবনা নেই তাদের প্রতিষ্ঠানের। ঢাকা পোস্টের সঙ্গে কথা হয় সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের ভুক্তভোগী গ্রাহক ও শহরের মুজিব সড়ক এলাকার রেজাউল করিম স্মরণের। তিনি বলেন, সিরাজগঞ্জশপ ডটকমে গত জুন মাসে ৩৩ হাজার টাকার ৩০টি স্যামসাং মোবাইল ফোনের অর্ডার দিয়েছিলাম। ৪৫ দিনের মধ্যে ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখনও পাইনি। তাদের অফিসও বন্ধ।

dhakapost
সিরাজগঞ্জশপের চটকদার এমন বিজ্ঞাপন দেখে প্রলুব্ধ হন সাধারণ গ্রাহক / ফাইল ছবি 

সিরাজগঞ্জশপ ডটকমে গত জুন মাসে ৩৩ হাজার টাকার ৩০টি স্যামসাং মোবাইল ফোনের অর্ডার দিয়েছিলাম। ৪৫ দিনের মধ্যে ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখনও পাইনি। তাদের অফিসও বন্ধ। গা ঢাকা দেওয়ার আগে সিরাজগঞ্জশপের জুয়েল রানা আমাকে বলেছিল, টাকা ফেরত দেবেন। কিন্তু এখন তার কোনো খোঁজ পাচ্ছি নাসিরাজগঞ্জশপ ডটকমে বিনিয়োগ করা ভুক্তভোগী গ্রাহক রেজাউল করিম

‘গা ঢাকা দেওয়ার আগে সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের জুয়েল রানা আমাকে বলেছিল, টাকা ফেরত দেবেন। কিন্তু এখন তার কোনো খোঁজ পাচ্ছি না।’

সিরাজগঞ্জ পৌরসভার মাসিমপুর মহল্লার আলিফ রহমান নামের এক গ্রাহক ঢাকা পোস্টকে বলেন, তিন মাস আগে মোবাইল ফোনের জন্য সিরাজগঞ্জশপে ২০ হাজার টাকা দিই। এখন পর্যন্ত টাকা বা মোবাইল কোনোটাই পাইনি। আসল টাকা পাব কি না, জানি না। 

এ বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ দিয়েছেন বা দেবেন কি না— জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব বিষয়ে মামলা-মোকদ্দমায় জড়াতে চাই না।

শহরের রহমতগঞ্জ এলাকার মো. তিতাস বলেন, সিরাজগঞ্জশপ ডটকমে ৪০ হাজার টাকা দিয়ে দুটি মোবাইল ফোনের অর্ডার দিয়েছিলাম। ৪৫ দিনের মধ্যে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দিতে পারেনি। পরে আসল টাকা ফেরত দিতে চাপ দিলে তিন মাস পর তারা টাকা দেয়।

সিরাজগঞ্জশপ ও আলাদিনের প্রদীপের কর্ণধার যারা

ঢাকা পোস্টের অনুসন্ধানে জানা গেছে, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হলেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বহুলি ইউনিয়নের বেড়াবাড়ি গ্রামের জুয়েল রানা। তিনি জেলা প্রশাসনের ‘লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট’-এ প্রশিক্ষণ নিয়ে গড়ে তোলেন সিরাজগঞ্জশপ। শহরের এম এ মতিন সড়ক ও কাঠেরপুল এলাকায় জাঁকজমকপূর্ণ দুটি কার্যালয় নিয়ে জনবল নিয়োগ দেন। পরে চটকদার বিজ্ঞাপন ও বিশাল ছাড়ের অফার দিয়ে বিনিয়োগ ও অর্ডারের অগ্রিম অর্থ আদায় শুরু করেন।

dhakapost
১০ দিনের মধ্যে পণ্য হস্তান্তরের কথা থাকলে তা দিতে ব্যর্থ হয় আলাদিনের প্রদীপ / ফাইল ছবি  

একইভাবে জেলার তাড়াশ উপজেলার নিভৃত পল্লীর সন্তান মেহেদী হাসান মুন ও মাহমুদ হাসান সিরাজগঞ্জ শহরে গড়ে তোলেন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘আলাদিনের প্রদীপ’। শুরু করেন রমরমা ব্যবসা। অল্পদিনেই যেন আলাদিনের চেরাগ (প্রদীপ) পেয়ে যান তারা। কোটিপতি হয়ে শুরু করেন বিলাসী জীবন।

ঢাকা পোস্টের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হয় আলাদিনের প্রদীপ ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মেহেদী হাসান মুনের। তার দাবি, এখন পর্যন্ত ৮০ থেকে ৮৫ কোটি টাকার পণ্যের অর্ডার নেওয়া হয়েছিল। যেসব পণ্য ডেলিভারি দেওয়া সম্ভব হয়নি, সেগুলো দ্রুত দেওয়ার চেষ্টা চলছে। গ্রাহকদের কাছ থেকে আমরা সময় চেয়ে নিচ্ছি। যারা সময় দিচ্ছেন না তাদের আসল টাকা ফেরত দিচ্ছি।

গ্রাহকদের বকেয়া কত— এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দেনার অঙ্ক প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা। নগদের অ্যাকাউন্ট স্থগিত হওয়ায় সময় মতো গ্রাহকদের টাকা দিতে পারিনি। তবে, যত দ্রুত সম্ভব গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়ার চেষ্টায় আছি।

অন্যদিকে, সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জুয়েল রানা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আকরাম হোসেনকে তাদের কার্যালয়ে গিয়ে পাওয়া যায়নি। খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক মাসুদ পারভেজকেও। তাদের মুঠোফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। তবে, জুয়েল রানার গ্রামের বাড়ি সদর উপজেলার বহুলী ইউনিয়নের বেড়াবাড়িতে গিয়ে কথা হয় তার বড় ভাই আনোয়ারের সঙ্গে। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, শুনেছি জুয়েল এরই মধ্যে গ্রাহকদের ১২৫ কোটি টাকা ফেরত দিয়েছে। 'নগদ' অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ না করলে বাকি ৮-১০ কোটি টাকা এত দিনে ফেরত দিত সে।

dhakapost
প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার ইভ্যালির রাসেল ও  তার স্ত্রী শামীমা নাসরিন / ছবি-সংগৃহীত

আগামীতে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়ার কোনো সম্ভাবনা আছে কি না, থাকলে কীভাবে সম্ভব— জানতে চাইলে তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি।

কিছুই জানে না স্থানীয় প্রশাসন

গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়া ‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’ নামের দুই ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে কিছুই জানে না সিরাজগঞ্জের স্থানীয় প্রশাসন। প্রতারণার মাধ্যমে ওই দুই প্রতিষ্ঠানের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মনির হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। ফলে স্বাভাবিক নিয়মে আমরা জানিও না কে, কীভাবে, কতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে কোনো ব্যক্তি, নাকি কোনো প্রতিষ্ঠান জড়িত, সেটিও আমরা জানি না।  আমাদের এখানে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর আছে। কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হলে খুব সহজেই তিনি সেখানে অভিযোগ দিতে পারেন।

‘যেহেতু জেলা প্রশাসনে এখনও এমন কোনো অভিযোগ আসেনি, অভিযোগ আসলে অবশ্যই আমরা তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেব’— বলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)  মো. নজরুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমাদের কাছেও সিরাজগঞ্জশপ ও আলাদিনের প্রদীপ বা এমন কোনো ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

dhakapost
ই-অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিন ও তার স্বামী মাসুকুর রহমান। বর্তমানে তারা কারাগারে আছেন / ছবি- সংগৃহীত

সিরাজগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমাদের কাছেও এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেননি। যেহেতু বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ই-কমার্সের বিষয়গুলো দেখছে, সেহেতু সরকার এর একটা সমাধান দেবে বলে আমরা আশা করছি। এরপরও যদি কেউ আমাদের কাছে অভিযোগ দেন, আমরা সেটি গুরুত্বসহকারে দেখব।

‘সিরাজগঞ্জশপ’ ও ‘আলাদিনের প্রদীপ’-এর বিরুদ্ধে কোথাও কোনো অভিযোগ না পড়লেও জেলার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর বলছে, তাদের কাছে ওই দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ এসেছে। অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মো. মাহমুদ হাসান রনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘সিরাজগঞ্জশপ ডটকমের বিরুদ্ধে অফিসিয়ালি ২২টি এবং আন-অফিসিয়ালি প্রায় অর্ধশত অভিযোগ এসেছিল। দু-একটি ছাড়া বাকি সবগুলোর নিষ্পত্তি হয়েছে। একটি অভিযোগে তাদের (সিরাজগঞ্জশপ) ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, অভিযোগের বিষয়ে সিরাজগঞ্জশপের সিইও রানার সঙ্গে প্রথমে মুঠোফোনে যোগাযোগ করি। না পেয়ে তার বাড়িতে যাই। কিন্তু সেখানেও তাকে পাওয়া যায়নি।

‘আলাদিনের প্রদীপের বিরুদ্ধেও কিছু অভিযোগ এসেছিল। সেগুলোরও নিষ্পত্তি হয়েছে’— বলেন এ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কর্মকর্তা।

dhakapost
বিনিয়োগ করা টাকা ফেরতের দাবিতে রাস্তায় নামলে ই-অরেঞ্জ গ্রাহকদের ওপর লাঠিচার্জ করে পুলিশ / ফাইল ছবি

স্থগিত হওয়া সব ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট চালু

এদিকে, গত ২২ সেপ্টেম্বর মোবাইল ফোনে অর্থ লেনদেনের মাধ্যম 'নগদ'- এর পক্ষে বলা হয়, কয়েক দফা যাচাই-বাছাই এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর সন্তোষজনকভাবে ত্রুটিপূর্ণ রিফান্ডের পেছনে জড়িত থাকা আটটি অ্যাকাউন্ট বাদে স্থিতি স্থগিত হওয়া সব ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট আবার সচল করা হয়েছে। ‘নগদ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, ‘নগদ’-এর কাছে তার গ্রাহকদের স্বার্থ সবার ওপরে। ইতোমধ্যে স্থিতি হোল্ড হওয়া গ্রাহকদের প্রত্যেকের অর্থের সম্পূর্ণ নিরাপত্তা নিশ্চিতপূর্বক সিরাজগঞ্জশপ-এর কাছে গ্রাহকদের পাওনা রিফান্ডসহ সব ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট ধাপে ধাপে রি-অ্যাক্টিভেট করা হয়েছে। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ‘নগদ’-এর সম্মানিত গ্রাহকদের দুর্ভোগ দূর করতে আমরা এ ব্যবস্থা নিয়েছি।

সম্প্রতি অনলাইনভিত্তিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জসহ ১০টি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে তারা জেল-হাজতে আছেন। একইভাবে গ্রাহকের ১১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় ই–অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিনসহ কয়েকজনকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

এমএআর/

 

সম্পর্কিত

Link copied