ঠাকুরগাঁওয়ে তিন সাংবাদিককে হত্যার হুমকি, থানায় জিডি

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, ঠাকুরগাঁও

০২ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩২ পিএম


ঠাকুরগাঁওয়ে তিন সাংবাদিককে হত্যার হুমকি, থানায় জিডি

ঠাকুরগাঁওয়ে তিন সাংবাদিককে হত্যার হুমকি দিয়েছেন জামিরুল ইসলাম নামে এক যুবলীগ নেতা ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর। গতকাল শুক্রবার রাতে মোবাইল ফোনে এ হুমকি দিয়েছেন তিনি। এ ঘটনায় রাতেই ঠাকুরগাঁও সদর থানার একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন ওই তিন সাংবাদিক।

হুমকির শিকার ওই তিন সাংবাদিক হলেন, ঠাকুরগাঁও অনলাইন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ইত্তেফাকের ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি তানভির হাসান তানু, রাইজিং বিডির প্রতিনিধি মঈনুদ্দীন তালুকদার হিমেল ও স্থানীয় দৈনিক লোকায়নের নিজস্ব প্রতিবেদক সোহেল রানা।

অভিযুক্ত জামিরুল ইসলাম ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর ও জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

যানা যায়, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়ন পরিষদে একটি সংবাদের তথ্য সংগ্রহ করতে যায় এই তিন সাংবাদিক। সেখানে অবৈধ ২৯ বস্তা বিড়ি আটক করার বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান,স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ও স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি জড়িত রয়েছে এমন অভিযোগ পেয়ে আটক মালের মালিক জ্যোতিশের সঙ্গে কথা বলার জন্য খোঁজ করে তারা। তাকে না পেয়ে তার সহযোগী নুকুলের খোঁজ করে এই তিন সাংবাদিক। তাকেও না পেয়ে সেখান থেকে শহরে ফিরছিলেন তারা।

এরমধ্যে সাংবাদিক সোহেলকে নুকুল কল করে এবং একজনের সঙ্গে কথা বলতে বলে। এসময় ওই ব্যক্তি মুঠোফোনে নিজের পরিচয় দিয়ে বলেন আমি ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর জামিরুল ইসলাম বলছি, আমার এলাকায় কী কাজে গিয়েছেন? বেশি বারাবারি করবেন না। এমন কথা বলার পর তিনি সাংবাদিকদের গায়ের চামড়া ছিলে ফেলার কথা বলেন এবং হত্যার হুমকি দেন।

এ বিষয়ে সাংবাদিক তানভির হাসান তানু বলেন, আমরা জানতে পারি ২৮ সেপ্টেম্বর ওই ইউনিয়নের বাসুদেবপুর গ্রামের জ্যোতিসের বাসায় ২৯ বস্তা অবৈধ বিড়ি জব্দ করা হয়। পরের দিন ১৫ বস্তা বিড়ি স্থানীয় নুকুলের তদবিরে জ্যোতিসের সঙ্গে দফারফা করে ফেরত দেয়া হয়। বিস্তারিত জানার জন্য আমরা বাসুদেবপুরে যাই। যাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য গিয়েছিলাম তাদের না পেয়ে চলে আসি। এরপরই মধ্যে নুকুল নামে এক ব্যক্তি কল দিয়ে আরেকজনের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। ওই ব্যক্তি নিজেকে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর পরিচয় দিয়ে আমাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তার এলাকা থেকে চলে যেতে বলেন। দ্রুত না গেলে হত্যার হুমকি দেন। 

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত জামিরুল ইসলাম।

ঠাকুরগাঁও অনলাইন জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শাকিল আহমেদ বলেন, একজন কাউন্সিলরের কাজ কি অন্যায়ের পক্ষ নেয়া? আমি এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে দ্রুত দোষীদের আইনের আয়তায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী বলেন, এ রকম হুমকি স্বাধীন সাংবাদিকতায় বাধা সৃষ্টি করা। এ কাজটি অন্যায় দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেয়ার লক্ষেই করা হয়েছে। এর তীব্র নিন্দ ও প্রতিবাদ জানাই।

ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ তানভীরুল ইসলাম বলেন, তিন সাংবাদিককে হত্যার হুমকির বিয়ষটি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নাহিদ রেজা/এমএএস

Link copied