ভোটের মাঠে ঘোড়া নিয়ে প্রচারণা, দিচ্ছেন অনুদান  

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, লক্ষ্মীপুর

২৩ নভেম্বর ২০২১, ১১:০৮ এএম


ভোটের মাঠে ঘোড়া নিয়ে প্রচারণা, দিচ্ছেন অনুদান  

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. হোসেন রানা জীবন্ত প্রতীক ঘোড়া ব্যবহার করে প্রচারণা চালাচ্ছেন বলে জানা গেছে। আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণাকালীন মসজিদসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুদান দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। 

এ নিয়ে রোববার (২১ নভেম্বর) বিকেলে নৌকার প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সোহেল পাটওয়ারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 

অভিযুক্ত হোসেন রানা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ায় গত ১৬ নভেম্বর তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে উপজেলা কমিটি। 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, হোসেন রানা শুরু থেকেই ঘোড়া প্রতীকে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তিনি জীবন্ত ঘোড়া দিয়ে প্রচারণা চালিয়ে ভোটারদের আকর্ষণ করার চেষ্টা করছেন। সম্প্রতি ইউনিয়নের ডোননদী জামে মসজিদে ১০ হাজার টাকা অনুদান দিয়ে মুসল্লিদের কাছ থেকে ভোট চেয়েছেন। প্রচারণার নিয়ম ভঙ্গ করে তিনি দুটি হর্ণ ব্যবহার করছেন। 

শনিবার (২০ নভেম্বর) বেলা ১১টার দিকে আশারকোটা গ্রামে প্রচারণা চালিয়ে তিনি প্রত্যেকবাড়িতে একটি করে গভীর নলকূপ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট চেয়েছেন। এসব বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যই তার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সোহেল পাটওয়ারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।  

আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোহাম্মদ সোহেল পাটওয়ারী বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে তিনি ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন। নির্বাচনী আচরণবিধির তোয়াক্কা করছেন না। ভোট পেতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুদান দিয়ে বেড়াচ্ছেন। 

জানতে চাইলে মোবাইলফোনে মো. হোসেন রানা ঢাকা পোস্টকে বলেন, কয়েকজন নেতাকর্মী ঘোড়ার গাড়ি এনেছিল। আমি পরে তা ফিরিয়ে দিয়েছি। অনুদান আমি সবসময় করে থাকি। এখন করলে দোষের কিছু নেই। নৌকার প্রার্থী আমার নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে। অস্ত্র নিয়ে তিনি ঘুরে বেড়াচ্ছেন।  

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, নৌকার প্রার্থীর লিখিত অভিযোগটি পেয়েছি। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হাসান মাহমুদ শাকিল/এসপি

Link copied