দুলাভাইয়ের ঘরে কিশোরীর লাশ, বোন ছিলেন পরীক্ষাকেন্দ্রে

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, ফরিদপুর

০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৩০ পিএম


দুলাভাইয়ের ঘরে কিশোরীর লাশ, বোন ছিলেন পরীক্ষাকেন্দ্রে

ফরিদপুরের মধুখালীতে দুলাভাইয়ের বাড়িতে বেড়াতে আসার দুই দিন পর শ্যালিকা লামিয়ার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে একই উপজেলার বাগাট ইউনিয়নের বাগাট গ্রামের ঠাকুরপাড়া এলাকার আরিফ হোসেনের মেয়ে।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার মথুরাপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পের পাশে দুলাভাই আলিম বিশ্বাসের ঘর থেকে শ্যালিকা লামিয়া ঐশীর (১৫) লাশ উদ্ধার করে মধুখালী থানা পুলিশ।

জানা গেছে, লামিয়া ৩০ নভেম্বর মথুরাপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পে পাশে তার দুলাভাই আলিম বিশ্বাসের বাড়িতে বেড়াতে আসে। আলিম বিশ্বাস মধুখালী বাজারের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কর্মচারীর কাজ করেন।

আলিম বিশ্বাসের স্ত্রী বৃষ্টি সুলতানা চলমান এইচএসসি পরীক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) ছোট বোন লামিয়া ঐশীকে বাড়িতে একা রেখে উপজেলা সদর কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে যান বোন বৃষ্টি। তখন তার সঙ্গে দুলাভাই আলিম বিশ্বাসও যান। এ সময় বাড়িতে একা ছিল লামিয়া।

সন্ধ্যায় বড় বোন বাড়িতে ফিরে ঘরের ভেতর থেকে দরজা-জানালা বন্ধ দেখে তারা অনেক ডাকাডাকি করতে থাকে। পরে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে গিয়ে তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় মৃতদেহ নামিয়ে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে লামিয়া ঐশীর বড় বোন বৃষ্টি সুলতানা বলেন, আমার বোনের সঙ্গে আমার জানামতে কারও কোনো রাগারাগি, ঝগড়াঝাটি কিছুই হয়নি। আমি পরীক্ষা দিতে যাওয়ার আগে তাকে ভালোভাবে রেখে যাই। বাড়িতে এসে ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ অবস্থায় ঘরের ভেতরে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পাই।

মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, ধারণা করা হচ্ছে এটি আত্মহত্যা। তবে এখনও মূল ঘটনা জানা যায়নি। আমরা মৃতদেহ আজ সকালে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছি। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

জহির হোসেন/এমএসআর

Link copied