৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করেও টিকা পেল না আড়াই হাজার শিক্ষার্থী

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, রাজবাড়ী

০৮ জানুয়ারি ২০২২, ১০:০০ পিএম


৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করেও টিকা পেল না আড়াই হাজার শিক্ষার্থী

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে টিকা নিতে গিয়ে নানা ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্কুল শিক্ষার্থীদের। টিকাকেন্দ্রে প্রচণ্ড ভিড়ের কারণে একদিকে যেমন স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে, অন্যদিকে টিকা সংকটের কারণে অনেক শিক্ষার্থীকে টিকা না নিয়েই ফেরত যেতে হচ্ছে।

শনিবার (৮ জানুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে অবস্থান করে দেখা যায়, করোনার টিকা নিতে সকালেই রাজবাড়ী সদর উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থী এসেছে। কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই গাদাগাদি করে লাইনে দাঁড়িয়ে টিকা নেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে তারা। কে কার আগে বুথে গিয়ে টিকা নেবে তা নিয়েই চলছে হুড়োহুড়ি।

হঠাৎ দুপুর ১টার দিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দেয়, আজ দেওয়ার মতো আর টিকা নেই। অথচ তখনো টিকা নিতে পারেনি প্রায় অর্ধেক শিক্ষার্থী। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এমন ঘোষণায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

টিকা না পাওয়া কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, সকাল ৯টা থেকে তারা টিকা নেওয়ার জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছিল। চার ঘণ্টা পর তারা জানতে পারে টিকা শেষ। এ কারণে তারা ফিরে যাচ্ছে। এ সময় হাসপাতালের বদলে নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিকা দেওয়ার দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

Dhaka Post

শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার অব্যবস্থাপনা আর বিশৃঙ্খলায় বিরক্তির কথা জানিয়েছেন শিক্ষকরাও। সদর উপজেলার বসন্তপুর কো-অপারেটিভ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. এমের আলী শেখ ঢাকা পোস্টকে বলেন, শিক্ষার্থীদের টিকা দিতে সকালে এখানে (সদর হাসপাতাল) নিয়ে এসেছি। কিন্তু এখানে সুশৃঙ্খল কোনো ব্যবস্থা নেই। নানা ধরনের অনিয়ম আছে। দুপুর হয়ে গেলেও আমাদের শিক্ষার্থীরা টিকা পায়নি। দুপুর ১টার দিকে জানানো হয় টিকা শেষ। আজ আর কাউকে টিকা দেওয়া হবে না। এতে আমরা অনেকেই ভোগান্তির শিকার হচ্ছি। এছাড়া এখানে স্বাস্থ্যবিধি মানারও কোনো সুযোগ নেই। ফলে স্বাস্থ্য ঝুঁকিও রয়েছে। আমাদের চাওয়া একটাই- শিক্ষার্থীদের সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে টিাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হোক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অন্য একটি বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক বলেন, রাজবাড়ী সদর উপজেলার ৮-১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা টিকা নেওয়ার জন্য সদর হাসপাতালে এসেছে। কিন্তু দুঃখের বিষয়, আমাদের ছেলে-মেয়েরা এখানে আসার পর সুশৃঙ্খল কোনো পরিবেশ পায়নি। এখানে খুবই বিশৃঙ্খলা দেখা গেছে এবং অধিকাংশ ছেলে-মেয়েই টিকা পায়নি। সকাল থেকে অপেক্ষা করানোর পর দুপুরে এসে বলছে, টিকা নাকি শেষ। অথচ আমাদের জানানো হয়েছিল, শিক্ষার্থী যারা আসবে সবাইকে টিকা দেওয়া হবে।

শিহাব উদ্দিন নামে এক অভিভাবক বলেন, এখানে যে ধরনের অব্যবস্থাপনা দেখছি তাতে আশঙ্কা হচ্ছে- আমাদের সন্তানরা করোনামুক্ত হতে এসে করোনাযুক্ত না হয়ে যায়। কোনো ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন মহোদয়ের কাছে আমাদের অনুরোধ, এ রকম অব্যস্থাপনার মধ্যে ভ্যাকসিন দেওয়া বন্ধ করে স্কুলে স্কুলে অথবা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ভ্যাকসিন দেওয়া হোক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স ও টিকাকেন্দ্রের ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন ঢাকা পোস্টকে বলেন, আজকে চারটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য ১ হাজার ৫০০ টিকা বরাদ্দ ছিল। কিন্তু দেখা গেছে এই চারটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাদেও আরও কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা টিকা নেওয়ার জন্য এসে ভিড় জমায়। এ কারণে দ্রুত টিকা শেষ হয়ে যাওয়ায় কিছুটা ভোগান্তি হয়েছে। তারপরও আজ আমরা ২ হাজার ২০০ শিক্ষার্থীকে ফাইজারের টিকা দিয়েছি।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দীপক কুমার বিশ্বাস ঢাকা পোস্টকে বলেন, টিকা সরবরাহ, মেসেজ দেওয়া ও কতজন শিক্ষার্থী টিকা নিতে আসবে- এই বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণ করে সিভিল সার্জন অফিস। আমাদের হাসপাতালের কর্মীদের কাজ কেবল টিকা দেওয়া। আমরা সেক্ষেত্রে অনেকবারেই বলেছি, পর্যায়ক্রমে যেন স্কুলগুলো থেকে শিক্ষার্থীদের পাঠানো হয়। কিন্তু দেখা যায় যে সবাই একসঙ্গে এসে ভিড় করেন। এ কারণেই কিছু জটিলতা তৈরি হয়। হাসপাতালের অন্য রোগীদের সেবা দিতেও অনেক কষ্ট হয়।

মীর সামসুজ্জামান/আরএআর

Link copied