সাউথইস্ট ব্যাংকের ধানমন্ডি শাখায় জালিয়াতি, এনবিআরকে দুদকের চিঠি

FM Abdur Rahman Masum

০৮ মে ২০২২, ০৯:১৩ পিএম


সাউথইস্ট ব্যাংকের ধানমন্ডি শাখায় জালিয়াতি, এনবিআরকে দুদকের চিঠি

জার্মানি প্রবাসী এক ব্যবসায়ীর বন্ড লাইসেন্সসহ বিভিন্ন নথিপত্র ব্যবহার করে শুল্কমুক্ত সুবিধার আওতায় রপ্তানির নামে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ ও শুল্ক-কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে।

সাউথইস্ট ব্যাংকের ধানমন্ডি শাখার কর্মকর্তাদের যোগসাজশে নেক্সট ট্রেডিং হাউজ নামে একটি বায়িং হাউজ এমন জালিয়াতির ঘটনা ঘটিয়েছে। বছরের পর বছর আমদানি-রপ্তানির খেলায় আত্মসাতের পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

ভুক্তভোগী প্রবাসী ব্যবসায়ী ও ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরি লিমিটেডের মালিক একরাম উল্লাহর দায়েরকৃত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।  

২৭ এপ্রিল দুদকের যাচাই-বাছাই বিভাগ থেকে পাঠানো চিঠির সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। চিঠিতে ২০ কর্মদিবসের মধ্যে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী ইকরাম উল্লাহ ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমি ২০০৩ সাল থেকে সোয়েটারের ব্যবসা করছি। ২০১৬ সালে এসে দেখলাম বিদেশে বসে ব্যবসার কার্যক্রম চালাতে অনেক কষ্টকর। তারপর নির্দিষ্ট অঙ্কের কমিশনের বিনিময়ে নেক্সট ট্রেডিং হাউজকে ব্যবসা পরিচালনার দায়িত্ব দিই। পরে বিপুল অঙ্কের লোকসানের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালে ফ্যাক্টরি বন্ধ করতে বাধ্য হই।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার পর আমি ওই প্রতিষ্ঠানের সার্ভার ও বিভিন্ন সূত্রে জানতে পেলাম তারা আমার প্রতিষ্ঠানের এলসি ও বিভিন্ন নথিপত্র ব্যবহার করে সাউথইস্ট ধানমন্ডি শাখার কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় রপ্তানি দেখিয়ে অর্থ আত্মসাৎ করেছে, যার নেতৃত্বে ছিলেন ব্যাংক ম্যানেজার ও নেক্সট ট্রেডিংয়ের মালিক ইকরামুল ইসলামসহ অন্যান্যরা। অনিয়মের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে থানায় মামলা করেছি। এর পাশাপাশি দুদক ও এনবিআরেও অভিযোগ দায়ের করেছি। আমি দুর্নীতির বিচার চাচ্ছি।

অভিযোগের বিষয়ে জানা যায়, প্রবাসী ব্যবসায়ীর ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরি লিমিটেড ব্যবসা করার উদ্দেশ্যে নেক্সট ট্রেডিং হাউজ ও সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ধানমন্ডি শাখার সঙ্গে ২০১৬ সালের ১১ আগস্ট ও ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল দুটি সমঝোতা স্মারক সই করে।

সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরি লিমিটেডের বন্ড লাইসেন্স, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও অন্য সব লাইসেন্স ব্যবহার করে শুল্কমুক্ত সুবিধায় সুতা আমদানি করে ফ্যাক্টরির শ্রমিক ও ভাড়াকৃত স্থান ব্যবহার করে সোয়েটার প্রস্তুত করে পণ্য রপ্তানি করবে নেক্সট ট্রেডিং হাউজের মালিক মো. ইকরামুল ইসলাম ও তার প্রতিষ্ঠান।

ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরি লিমিটেডের সব লাইসেন্স নবায়ন, অডিট, ইনকাম ট্যাক্স প্রদান ও তার সময়ে সৃষ্টিকৃত সব দায়-দেনা পরিশোধ করবে নেক্সট ট্রেডিং।  পাশাপাশি রপ্তানি ইনভয়েসের মোট মূল্যের ৪ শতাংশ কমিশন দেবে, যা দিয়ে ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরির ব্যাংক লোন পরিশোধ হবে।  কিন্তু ব্যাংকের তিন কোটি টাকা ঋণ পরিশোধ না করে নেক্সট ট্রেডিং হাউজ রপ্তানির আড়ালে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। উল্টো প্রবাসী ব্যবসায়ীকে আরও ঋণগ্রস্থ করা হয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, নেক্সট ট্রেডিংয়ের মালিক ইকরামুল ইসলাম সাউথইস্ট ব্যাংকের ধানমন্ডি শাখার ব্যবস্থাপক কাইয়ুম চৌধুরী, অতিরিক্ত ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ সাইফুল আলম ভূঁইয়া ও ক্রেডিট ইনচার্জ জামানের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ সহযোগিতার মাধ্যমে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে চুক্তির সব শর্ত ভঙ্গ করেছেন। তারা জাল-জালিয়াতি আশ্রয় নিয়ে ২০১৬ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরি লিমিটেডের বন্ড লাইসেন্সের বিপরীতে প্রায় সাড়ে চার লাখ পাউন্ড সুতা আমদানি করে পণ্য বা কাপড় প্রস্তুত করে নেক্সট ট্রেডিং হাউজের মাধ্যমে রপ্তানি করেছেন, যেখানে ট্রেড সোয়েটার ফ্যাক্টরির রপ্তানি লাইসেন্স ব্যবহার করা হয়েছে। এর মাধ্যমে নেক্সট ট্রেডিং হাউজের মালিক ইকরামুল ইসলাম ট্রেড সোয়েটারকে ৪ শতাংশ  কমিশন থেকে বঞ্চিত করার পাশাপাশি সুতা ও এক্সোসারিজ ক্রয়ে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স ফাঁকি, সাড়ে ১২ শতাংশ বৈদেশিক শুল্ক ফাঁকিসহ মোট ৩১ দশমিক ৫০ শতাংশ ভ্যাট-ট্যাক্স ফাঁকি দিয়েছেন।

অভিযোগে আরও বলা হয়, নেক্সট ট্রেডিং লিমিটেড বহু প্রতিষ্ঠানের এলসি ব্যবহার করে প্রতারণা করেছে। উল্লিখিত সময়ে নেক্সট ট্রেডিং হাউজ লাখ লাখ ডলার সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড দ্বারা শিপমেন্ট করেছে, যার বিপরীতে সুতার কোনো হিসাব সংগ্রহ করেনি। অন্যের লাইসেন্স ব্যবহার করে জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারকে কোটি কোটি টাকার ভ্যাট ও ট্যাক্স থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে।

আরএম/আরএইচ

Link copied