Dhaka Post

ঢাকা শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১

তালিকাভুক্তির আগেই ই-জেনারেশনের প্রান্তিক প্রকাশ

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৮:৩৯

তালিকাভুক্তির আগেই ই-জেনারেশনের প্রান্তিক প্রকাশ

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির আগের দিন চলতি অর্থবছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ই-জেনারেশন লিমিটেড। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ প্রান্তিকে মুনাফা কমেছে। বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ, তাদের প্রলুব্ধ করতেই এ কাজ করছে কোম্পানি।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের এই কোম্পানি মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দেশের দুই পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির মাধ্যমে লেনদেন শুরু হবে। ঠিক তার আগের দিন সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) কোম্পানির অক্টোবর ২০২০-ডিসেম্বর ২০২০ সময়ের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। বিনিয়োগকারীদের অভিযোগ, লেনদেন শুরুর আগেই প্রান্তিক প্রকাশ করে শেয়ারের দাম উঠানামায় প্রভাব ফেলতে চায় কোম্পানি।

ইউসিবিএল সিকিউরিটিজের বিনিয়োগকারী হাসিবুর রহমান ঢাকা পোস্টকে বলেন, কোনো কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত না হলে ডিএসই বা সিএসইতে তাদের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের দরকার নেই। কিন্তু তারপরও এই কোম্পানি তাদের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে তালিকাভুক্তির ঠিক আগের দিন। বুঝাই যাচ্ছে বিনিয়োগকারীদের প্রলুব্ধ করতে এই কাজ করা হয়েছে।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ ঢাকা পোস্টকে বলেন, তালিকাভুক্ত হওয়ার আগে তথ্য প্রকাশ করা মানেই হচ্ছে কোম্পানির মতলব ভালো না। এটা কোম্পানিগুলোর মন্দ চর্চা বলে মনে করেন তিনি।

এ বিষয়ে কোম্পানি সচিব মাজহারুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, একদিন আগে কিংবা পরে দ্বিতীয় প্রান্তিকের আইনের কোনো ব্যত্যয় হয়নি। আইনের মধ্য থেকেই প্রান্তিক প্রকাশ করেছি। বিনিয়োগকারীদের প্রলুব্ধ করার কিছু নেই।

তিনি বলেন, ই-জেনারেশন আইপিওর মাধ্যমে মঙ্গলবার থেকে পুঁজিবাজারে এন ক্যাটাগরিতে লেনদেন শুরু করবে। এদিন ডিএসইতে কোম্পানিটির ট্রেডিং কোড হবে EGEN। আর কোম্পানি কোড হবে ২২৬৫২।

ডিএসইর তথ্য মতে, দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে দুই কোটি ৬৭ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল তিন কোটি ১৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ মুনাফা কমেছে।

দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় হয়েছিল ৫৩ পয়সা।

আর দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই ২০২০-ডিসেম্বর ২০২০) কোম্পানির কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে চার কোটি ৮৭ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময় ছিল ছয় কোটি ৪৯ লাখ টাকা। তাতে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৮১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় হয়েছিল ১ টাকা ০৮ পয়সা।

গত ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হওয়া সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) হয়েছে ২২ টাকা ৯২ পয়সা। আর আইপিও পরবর্তী শেয়ার হিসাবে কোম্পানির এনএভি হয়েছে ২০ টাকা ৩৪ পয়সা।

এমআই/ওএফ

Link copied