বিনিয়োগকারীদের হারানো পুঁজি ফিরল ৭ হাজার কোটি টাকা

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

০৭ মে ২০২১, ০৭:৫২


বিনিয়োগকারীদের হারানো পুঁজি ফিরল ৭ হাজার কোটি টাকা

এক দিন পতন আর চার কার্যদিবস সূচকের উত্থানের মধ্য দিয়ে ঈদের আগের সপ্তাহ পার করল দেশের পুঁজিবাজার। ব্যাংক,বীমা এবং মিউচুয়াল ফান্ড খাতের শেয়ারের দাম বৃদ্ধির কারণে আলোচিত সময়ে (২ থেকে ৬ মে) সূচক, লেনদেন ও বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম বেড়েছে।

এতে একদিকে বিনিয়োগকারীরা তাদের হারানো ৭ হাজার কোটি টাকা পুঁজি ফিরে পেয়েছেন। অন্যদিকে পুঁজিবাজার থেকে দূর হচ্ছে আস্থা ও তারল্য সংকট। পুঁজিবাজার ফিরে পাচ্ছে হারানো প্রাণ।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে অলস পড়ে থাকা বিনিয়োগকারীদের ২১ হাজার কোটি টাকার ফান্ড শিগগিরই পুঁজিবাজারে আসছে। পাশাপাশি এখন থেকে বন্ডে বিদেশিরাও বিনিয়োগ করতে পারবেন। এ দুটি সুখবরে নতুন করে ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরছে বাজার।

আরও পড়ুন : নতুন শেয়ারে কারসাজি রোধে লেনদেনের প্রথমদিন থেকে ১০ শতাংশ সার্কিট

বিদায়ী সপ্তাহে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন হয়েছে ৬ হাজার ৮০৭ কোটি ৬৭ লাখ ৬০ হাজার ৬২১ টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৫ হাজার ৩২২ কোটি ১৯ লাখ ৭৫ হাজার ২০৮ টাকা। অর্থাৎ লেনদেন বেড়েছে ১ হাজার ৪৮৫ কোটি টাকা। যা ২৭ দশমিক ৯১ শতাংশ বেশি।

আলোচিত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ২৫৪টির, কমেছে ৬৯টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৮ কোম্পানির শেয়ারের। এতে ডিএসইর প্রধান সূচক আগের সপ্তাহের চেয়ে ১২৬ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৬০৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসইএস শরীয়াহ সূচক আগের সপ্তাহের চেয়ে ২ দশমিক ৩৭ পয়েন্ট এবং ডিএস-৩০ সূচক ২৬ পয়েন্টে বেড়েছে।

আরও পড়ুন : বহুজাতিক কোম্পানির চমকে উত্থানে পুঁজিবাজার

বেশির ভাগ শেয়ারের দাম ও সূচক বাড়ায় ডিএসইতে বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইর বিনিয়োগকারীদের পুঁজি অর্থাৎ বাজার মূলধন ৬ হাজার ৯৪৩ কোটি ৯৪ লাখ ৩০ হাজার ৬৪৪ টাকা বেড়ে ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৬৫৬ কোটি ৭৩ লাখ ২৬ হাজার ৪৪৫ টাকা দাঁড়িয়েছে। এর আগের সপ্তাহে ছিল ৪ লাখ ৭০ হাজার ৭১২কোটি ৭৮ লাখ ৯৫ হাজার ৮০১টাকা।

ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বাড়ার শীর্ষে রয়েছে-মেট্রো স্পিনিং, মালেক স্পিনিং মিলস, ম্যাক্সন স্পিনিং মিলস, ডেল্টা স্পিনার্স, ন্যাশনাল ফিড মিলস লিমিটেড, রুপালী লাইফ ইনস্যুরেন্স, এনআরবি কর্মাশিয়াল ব্যাংক, জাহিন স্পিনিং,সায়হাম কটন মিলস এবং রিজেন্ট টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড।

লেনদেনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলো হচ্ছে : বেক্সিকো লিমিটেড, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ, বেক্সিকো ফার্মা, ন্যাশনাল ফিড মিলস, রবি আজিয়াটা, প্রভাতী ইনস্যুরেন্স লিমিটেড, ম্যাক্সন স্পিনিং মিলস,বাংলাদেশ ফাইনান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং ব্রিটিশ অ্যামেরিকান ট্যোবাকো বাংলাদেশ।

দেশের অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বিদায়ী সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ১৩২ কোটি ২৩ লাখ ৯৬ হাজার ৭৫৬ টাকা। লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ২২১টির, কমেছে ৬৯টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩২টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। এতে সিএসইর প্রধান সূচক ৩৬৪ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ২০৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

এমআই/এসকেডি

Link copied