বিএসএমএমইউয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

দেশেই রোগীদের সব চিকিৎসা নিশ্চিত করার অঙ্গীকার

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

৩০ এপ্রিল ২০২২, ০৪:৪৫ পিএম


দেশেই রোগীদের সব চিকিৎসা নিশ্চিত করার অঙ্গীকার

চিকিৎসাসেবা, শিক্ষা ও গবেষণাকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার অঙ্গীকার দেশের প্রথম ‘মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। একইসঙ্গে দেশের রোগীদের চিকিৎসার জন্য যেন দেশের বাইরে যেতে না হয় এবং রোগীদের সব ধরনের উন্নত চিকিৎসাসেবা যাতে দেশেই নিশ্চিত করা যায়, সে প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (৩০ এপ্রিল) সকাল থেকেই নানা আয়োজনে দিবসটি উদযাপন করা হয়। কর্মসূচির শুরু হয় ক্যাম্পাসে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে। এরপর জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন করা হয়। পতাকা উত্তোলনের পর একটি শোভাযাত্রা বিশ্ববিদ্যালয়ের বি- ব্লকের সামনে থেকে শুরু হয়ে বটতলা, টিএসসি, বেসিক সায়েন্স ভবন, ডি ব্লক, সি ব্লক প্রদক্ষিণ করে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে গিয়ে শেষ হয়।

এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের পর জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে ১৯৯৮ সালে জাতির পিতার নামে আজকের এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। আজকের দিনে সবার শপথ নিতে হবে, যে যার কাজ সততার সঙ্গে করব। সততা ও দক্ষতার সঙ্গে নিরলস পরিশ্রম করে এ বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করতে হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষার মান আরও বাড়াতে হবে। গবেষণার মানও বৃদ্ধি করতে হবে। সেবার মান যেমন করে করোনার সময় বৃদ্ধি করতে পেরেছি ঠিক তেমন করে আরও বৃদ্ধি করতে হবে। চিকিৎসা ব্যবস্থা এমন করতে হবে, যাতে দেশের বাইরে কাউকে চিকিৎসা নিতে না যেতে হয়। বিশ্বের সর্বাধুনিক অপারেশনের ব্যবস্থাপনা করার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

শারফুদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত রূপকল্প ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতও উন্নত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। আমাদের এখানে শিক্ষা, গবেষণা ও চিকিৎসার মান বৃদ্ধি করতে পারলে শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী করা হবে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য পরম করুণাময়ের কাছে সবার প্রার্থনা করতে হবে, যাতে তিনি দীর্ঘায়ু হন এবং তিনি বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পারেন।

কর্মসূচিতে অংশ নেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ হোসেন, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল, মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মাসুদা বেগম, শিশু অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. শাহীন আকতার, নার্সিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. দেবব্রত বনিক, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) ডা. স্বপন কুমার তপাদার, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. ফারুক হোসেন প্রমুখসহ ডিনবৃন্দ, শিক্ষকবৃন্দ, চিকিৎসক, কর্মকর্তা, নার্স ও কর্মচারীরা।

টিআই/আরএইচ

Link copied