যুবসমাজের ৯৩ শতাংশ প্রজনন স্বাস্থ্যের ঝুঁকিতে

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

১১ আগস্ট ২০২২, ০৭:৪১ পিএম


যুবসমাজের ৯৩ শতাংশ প্রজনন স্বাস্থ্যের ঝুঁকিতে

দেশের যুবসমাজের ৯৩ শতাংশ যথাযথ প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার ও সেবা সম্পর্কে জানে না। তারা অনেক ক্ষেত্রেই বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে। 

ঝুঁকি এড়াতে সার্বিক সচেতনতা, সম্পৃক্তকরণ ও স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ প্রয়োজন বলে মত দিয়েছেন খাত সংশ্লিষ্টরা। একইসঙ্গে সুস্থ, সবল ও কর্মক্ষম জাতি গঠনের কোনো বিকল্প নেই বলে অভিমত করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) রাজধানীর বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে বেসরকারি এনজিও লাইট হাউসের আয়োজনে ও ইউএসএআইডি সুখী জীবন প্রকল্প, পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনালের সহযোগিতায় মিডিয়া অ্যাডভোকেসি সভায় এসব অভিমত দেন তারা।

এ সময় জানানো হয়, বর্তমানে দেশে ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সী সাড়ে চার কোটির বেশি তরুণ ও যুব জনগোষ্ঠী রয়েছে। এ জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে কর্মসংস্থানের মাধ্যমে এসডিজি ও জাতীয় লক্ষ্যমাত্রা ২০৩০ অর্জন সম্ভব।

লাইট হাউসের নির্বাহী প্রধান মো. হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন। আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরামের সদস্য সচিব ফারুক আহমেদ তালুকদারসহ লাইট হাউজের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ ছাড়া সভায় বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, দেশের বিশাল এই যুবসমাজকে রাজনীতি, অর্থনীতি ও সমাজনীতিসহ সব বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। বিশেষ করে প্রযুক্তির জ্ঞান বেশি বেশি করে অর্জন করতে হবে তাদের। অন্যথায় উন্নয়নের চাকা থেমে পিছিয়ে পড়বে বাংলাদেশ।  

সভায় জানানো হয়, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ২০৩০ অর্জন করতে হলে সব বয়সী মানুষের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের পাশাপাশি সবার অধিকার, বিশেষত প্রজনন অধিকার, নিশ্চিত করতে হবে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সামাজিক রীতিনীতি ও বিশ্বাস অনেক ক্ষেত্রেই তরুণ প্রজন্মের প্রজনন অধিকার ও স্বাস্থ্যসেবা বাধাগ্রস্ত করে। এ থেকে উত্তরণের জন্য প্রয়োজন আন্তঃপ্রজন্মের সংহতি ও সহযোগিতা। 

সভায় জানানো হয়, পাথফাইন্ডার ইন্টারন্যাশনাল বাস্তবায়িত ইউএসএআইডি সুখী জীবন প্রকল্প ২০১৮ সালে একটি জরিপ পরিচালনা করে যা ২০১৯ সালে ফ্যাসিলিটি এসেসমেন্ট রিপোর্ট (২০১৯) নামে প্রকাশিত হয়। এ জরিপ অনুসারে দেশের প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা খাতের মাত্র ১০ শতাংশ সেবাপ্রদানকারী তরুণ ও যুবদের প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের জন্য প্রশিক্ষিত, অথচ দেশের তরুণ ও যুব জনসংখ্যা সাড়ে চার কোটির বেশি। 

এসআই/আরএইচ

Link copied