প্রথম নারী নভোচারী নিয়োগ দিল আমিরাত

Dhaka Post Desk

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১১ এপ্রিল ২০২১, ১৭:৫৩

প্রথম নারী নভোচারী নিয়োগ দিল আমিরাত

নৌরা আল মাতরুশি

প্রায় চার বছর আগে মহাকাশ সংক্রান্ত গবেষণা শুরু করার পর প্রথমবারের মতো একজন নারীকে নভোচারী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত। নিয়োগপ্রাপ্ত নারী নভোচারীর নাম নৌরা আল মাতরুশি।

রোববার দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাখতুম এক টুইটবার্তায় এই তথ্য জানিয়েছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের সরকারী সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি নভোচারী পদের জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল দেশটির মহাকাশ গবেষণা সংস্থা মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টার (এমবিএসসি)।

প্রজ্ঞাপনে সাড়া দিয়ে আবেদন করেছিলেন ৪ হাজার ৩০০ আবেদনকারী। তাদের মধ্যে মোট চার জনকে চুড়ান্তভাবে নির্বাচন করেছে মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টার কর্তৃপক্ষ। এই চারজনেরই একজন হলেন নৌরা আল মাতরুশি।

১৯৯৩ সালে জন্ম নেওয়া নৌরা সংযুক্ত আরব আমিরাত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যন্ত্রপ্রকৌশল (মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং) বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন। বর্তমানে দেশটির রাজধানী আবুধাবিতে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল উত্তোলন ও পরিশোধন প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল পেট্রোলিয়াম কন্সট্রাকশন কোম্পানিতে কর্মরত আছেন তিনি।

নতুন এই পদে নিয়োগ পেয়ে স্বভাবতই উচ্ছসিত নৌরা। এত টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘জাতি আমাকে অভাবনীয়, অবিস্মরণীয় একটি সুযোগ উপহার দিয়েছে। আমার লক্ষ্য, এর বিনিময়ে জাতিকে কিছু ঐতিহাসিক মূহূর্ত উপহার দেওয়া, যেগুলো যুগ যুগ ধরে মানুষের স্মৃতিতে জীবন্ত থাকবে।’

এমবিএসসি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নিয়োগপ্রাপ্ত চারজনকে উচ্চতর গবেষণার জন্য চলতি বছরই মার্কিন মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসায় পাঠানো হবে।

২০১৭ সাল থেকে মহাকাশ বিষয়ক গবেষণা শুরু করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। ওই বছরই মহাকাশ গবেষণা সংস্থা এমবিএসসি প্রতিষ্ঠা করে দেশটির সরকার। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে আমিরাতই প্রথম এবং এখন পর্যন্ত একমাত্র দেশ, যেটি মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে আরব বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে মঙ্গলের কক্ষপথে নভোযান পাঠাতে সক্ষম হয় সংযুক্ত আরব আমিরাত। গত ২০১৯ সালে হাজ্জা আল মানসুরি আমিরাতের প্রথম নাগরিক হিসেবে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে নিয়োগ পান। আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে চাঁদে নভোচারী পাঠানো লক্ষ্য রয়েছে দেশটির।

সূত্র: রয়টার্স/ সিএনএন

এসএমডব্লিউ

Link copied