যুক্তরাষ্ট্রে টিকার দু’ডোজ নিলে মাস্ক পরার দরকার নেই: সিডিসি

Dhaka Post Desk

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৪ মে ২০২১, ১৬:৫৯


যুক্তরাষ্ট্রে টিকার দু’ডোজ নিলে মাস্ক পরার দরকার নেই: সিডিসি

যুক্তরাষ্ট্রে যারা করোনা টিকার দু’টি ডোজই নিয়েছেন, তাদের আর মাস্ক পরা বা অন্যদের থেকে ছয় ফুট দূরত্ববিধি মেনে চলার প্রয়োজন নেই। দেশটির স্বাস্থ্য বিষয়ক সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি) বৃহস্পতিবার(১৩ মে) এই তথ্য জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার নিজেদের জনস্বাস্থ্য বিষয়ক নির্দেশিকা হালনাগাদ করে সিডিসি। সেখানে তথ্যটি অন্তর্ভূক্ত করা হয়। একইদিন এক সংবাদ সম্মেলনেও এ বিষয়ে কথা বলেন সিডিসির পরিচালক ডা. রচেল ওয়ালেনস্কি।

সংবাদ সম্মেলনে ওয়ালেনস্কি বলেন, ‘যারা টিকার দুই ডোজই নিয়েছেন তারা চাইলে এখন থেকে ঘরে বাইরে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবেন। অর্থাৎ, যারা টিকার ডোজ সম্পূর্ণ করেছেন, মহামারি শুরুর আগে তারা যেভাবে জীবনযাপন করতেন, সেই জীবনে ফিরে যেতে পারবেন তারা। যুক্তরাষ্ট্রের ভেতেরে মাস্ক পরা বা ছয় ফুট সামাজিক দূরত্ব বিধি তাদের আর না মানলেও চলবে।’

তবে টিকার ডোজ যারা নেননি, তারা এখনও ঝুঁকিতে আছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন ওয়ালেনস্কি। তিনি বলেন, ‘যারা এখনও টিকা নেননি তাদেরকে অনুরোধ— দ্রুত টিকার ডোজ নিয়ে নিন। কারণ যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি টিকা না নিচ্ছেন ততক্ষন পর্যন্ত আপনি যেমন নিরাপদ নন, আপনার আশপাশের মানুষরাও নিরাপদ নয়।’

এই ঘটনায় স্বাভাবিভাবেই উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউস থেকে এক বার্তায় তিনি বলেন, ‘আমরা একটি বড় মাইলফলক স্পর্ষ করলাম। এটা অসাধারণ একটা দিন।

‘আপনি যদি টিকার দুই ডোজ নিয়ে থাকেন, তবে আপনি মাস্ক খুলে ফেলতে পারবেন। হাসিমুখে আপনি মানুষকে অভিনন্দন জানাতে পারবেন—যার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকেরা পরিচিত।’

করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্ত ও মৃত্যুর তালিকায় বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে এখনও শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র।  ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি বিশ্বজুড়ে মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৩ কোটি ৩৬ লাখ ২৬ হাজার ৯৭ জন, মারা গেছেন মোট ৫ লাখ ৯৮ হাজার ৫৪০ জন।

তবে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিনই কমছে দেশটিতে দৈনিক আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। আর এর প্রধান কারণ হিসেবে দেশে চলমান গণটিকাদান কর্মসূচির সাফল্যকে উল্লেখ করেছে সিডিসি।

বৃহস্পতিবারের সংবাদ সম্মেলনে ডা. ওয়ালেনস্কি বলেন, ‘আজ আমরা একই অসাধারণ আনন্দময় মুহূর্তে দাঁড়িয়ে আছি; এটা সম্ভব হয়েছে কারণ সরকারি প্রশসান সফলভাবে দেশের বিশাল সংখ্যক মানুষকে করোনা টিকার আওতায় আনতে পেরেছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সূত্রে জানা গেছে, আগামী ৪ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবসের দিন দেশের প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদের ৭০ শতাংশকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে দেশের ১৮ বছর ও তার অধিক বয়সী নাগরিকদের ৫৮ দশমিক ৮ শতাংশকে টিকার আওতায় আনা গেছে বলেও জানিয়েছে মার্কিন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্র।

সূত্র: ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল

এসএমডব্লিউ

Link copied