৭ ঘণ্টায় ১০১ নারীর বন্ধ্যাত্বকরণ করে শাস্তির মুখে চিকিৎসক

Dhaka Post Desk

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৯ এএম


৭ ঘণ্টায় ১০১ নারীর বন্ধ্যাত্বকরণ করে শাস্তির মুখে চিকিৎসক

মাত্র সাত ঘণ্টা। আর এই সময়ের মধ্যেই ভারতে ১০১ জন নারীর বন্ধ্যাত্বকরণের অপারেশন করার অভিযোগ উঠল এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। অভিযোগ পেয়ে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে ছত্তিশগড় সরকার। ভারতের সরকারি আইন অনুযায়ী একদিনে ৩০টির বেশি অস্ত্রোপচার সুযোগ নেই। অভিযুক্ত চিকিৎসক এত বেশি অপারেশন করে থাকলে শাস্তির মুখে পড়তে পারেন।

জানা গেছে, গত ২৭ আগস্ট এক বন্ধ্যাত্বকরণ শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল রাজ্যের নর্মদাপুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। ওই দিন দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে ১০১টি অপারেশন করেছেন ওই চিকিৎসক। ইতোমধ্যেই তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। অভিযুক্ত চিকিৎসকের কাছে জবাব চেয়ে নোটিশও পাঠিয়েছে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর।

ওই দিন যে ১০১ নারীর বন্ধ্যাত্বকরণ হয়েছিল, তারা সবাই সুস্থ আছেন। ছত্তিশগড়ের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের মুখ্য সচিব ডা. অলোক শুক্লা জানিয়েছেন, একদিনে সর্বোচ্চ ৩০টি অপারেশন করতে পারেন কোনো শল্য চিকিৎসক। তদন্ত করে দেখা হবে, কেন এই গাইডলাইন ভাঙা হলো।

তবে অভিযুক্ত চিকিৎসক জানিয়েছেন, অনেক নারী তার কাছে দ্রুত অপারেশন করে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিলেন। যেহেতু তারা প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চল থেকে এসেছিলেন, তাই তাদের দাবি ছিল দ্রুত অপারেশন না হলে তাদের পক্ষে মুশকিল। সব দিক বিবেচনা করে দ্রুত অপারেশন করতে হয়েছিল।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৪ সালের নভেম্বরে ভারতের সরকারি এক বন্ধ্যাত্বকরণ শিবিরে অপারেশন করানোর পরে ৮৩ জন নারী অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদের মধ্যে ১৩ জনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করেও প্রবল বিতর্ক ছড়িয়েছিল।

ওএফ

Link copied