ট্রেনের কামরা করোনামুক্ত রাখতে নতুন প্রযুক্তি ভারতীয় রেলের

Dhaka Post Desk

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৩ পিএম


ট্রেনের কামরা করোনামুক্ত রাখতে নতুন প্রযুক্তি ভারতীয় রেলের

করোনাভাইরাস মহামারির প্রভাব ভালোই পড়েছে ভারতে। বর্তমানে সংক্রমণ-প্রাণহানি কিছুটা কমে এলেও শঙ্কা জেগেছে তৃতীয় ঢেউ নিয়ে। এই পরিস্থিতিতে কেবল জরুরি ভিত্তিতেই দূরপাল্লার ট্রেনে ভ্রমণের অনুমতি দিয়েছে ভারতীয় রেল। কয়েকটি স্পেশাল ট্রেন ছাড়া এখনও বন্ধ বহু মেইল-এক্সপ্রেস-লোকাল ট্রেন।

যদিও স্টাফ স্পেশাল লোকাল ট্রেনের ভিড় সবার নজরে এসেছে। আর এবার ট্রেনের কামরায় কোভিডের সংক্রমণ রুখতে নতুন প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে ভারতীয় রেল।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জি নিউজ জানিয়েছে, ট্রেনের কামরা কোভিডমুক্ত রাখতে আল্ট্রা-ভায়োলেট সি (ইউ-ভি সি) প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু করেছে দেশটির নর্দার্ন রেলওয়ে। দেশটির ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর) ইতোমধ্যেই নতুন এই প্রযুক্তিকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

দেশটির দাবি, নতুন এই প্রযুক্তির কারণে ভাইরাসের সংক্রমণ প্রায় ৯৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ আটকানো যাবো। বর্তমানে শুধু লখনৌ থেকে নয়াদিল্লির মধ্যে চলাচলকারী শতাব্দী এক্সপ্রেসে এই ইউ-ভি সি প্রযুক্তি চালু করা হয়েছে। যদিও খুব শিগগিরই অন্যান্য ডিভিশনেও এই ব্যবস্থা চালু হবে বলে জানানো হয়েছে।

প্রশ্ন আসতে পারে আল্ট্রা-ভায়োলেট সি বা ইউ-ভি সি প্রযুক্তির মাধ্যমে কিভাবে করোনার সংক্রমণকে প্রতিরোধ করা সম্ভব? উত্তর হচ্ছে- রিমোট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত রোবটের মাধ্যমে আল্ট্রা-ভায়োলেট সি প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়। ট্রেনের কামরায় যাত্রী প্রবেশ করা মাত্র আল্ট্রা ভায়োলেট সি ক্যাটাগরির রশ্মি বিকিরণের মাধ্যমে করোনাভাইরাস দূর করে রোবটটি।

ভারতীয রেলের কর্মকর্তাদের মতে, গবেষণাগারে দীর্ঘদিন পরীক্ষা চালানোর পর এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। গবেষণাগারে দেখা গেছে, আল্ট্রা-ভায়োলেট সি প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে শতকরা ৯৯ শতাংশ জীবাণুই মারা যায়। এছাড়া মানবদেহে এর প্রয়োগ ক্ষতিকারক নয় বলেও জানিয়েছেন তারা।

তবে এর আগেই একই প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু করেছে ভারতের রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়াও। এছাড়া দেশটির বিভিন্ন হাসপাতালেও চালু হয়েছে এই ব্যবস্থা। তবে করোনা রুখতে নতুন প্রযুক্তি সামনে আনা হলেও সকল যাত্রীকে কোভিড প্রোটোকল মেনেই ট্রেনে উঠতে হবে বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভারতে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা অনেকটাই কমে এসেছে। দেশটিতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা নেমে এসেছে সাড়ে তিন লাখে, সঙ্গে প্রতিদিনই বাড়ছে সুস্থতার হার।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২৭ হাজার ১৭৬ জন মানুষ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের মোট সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৩৩ লাখ ১৬ হাজার ৭৫৫ জনে।

অন্যদিকে বুধবার ভারতে মারা গেছেন ২৮৪ জন। মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪ লাখ ৪৩ হাজার ৪৯৭ জন। দেশটিতে সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৬২ শতাংশ এবং দৈনিক সংক্রমণের হার ১ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

টিএম

Link copied