প্রকাশিত হয়েছে সালেক খোকনের ‘সমতলের বারো জাতি’

Dhaka Post Desk

ফিচার ডেস্ক

১৬ জানুয়ারি ২০২২, ০৩:১০ পিএম


প্রকাশিত হয়েছে সালেক খোকনের ‘সমতলের বারো জাতি’

সমতলে বসবাসরত আদিবাসী জাতিগুলোর রয়েছে হাজার বছরের ঐতিহ্য। শত বাধা-বিপত্তি সত্ত্বেও তারা টিকে থাকার সংগ্রাম করছেন অবিরত। কালের প্রবাহেও তারা বজায় রেখেছেন তাদের সাংস্কৃতিক স্বকীয়তা। কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত হয়েছে সালেক খোকনের নতুন গবেষণা গ্রন্থ-সমতলের বারো জাতি। সমতলের বারোটি জাতির ভাষা, সংস্কৃতি, আচার, মিথ, বিদ্রোহ-সংগ্রাম, উৎসব, সততা ও লোকবিশ্বাস সম্পর্কে পাঠককে ঋদ্ধ করবে এই গ্রন্থ।

সমতলের বারো জাতি গ্রন্থটি নিয়ে কথাপ্রকাশের কর্ণধার জসিম উদ্দিন বলেন, লেখক ও গবেষক সালেক খোকন তৃণমূলের নৃগোষ্ঠী জাতিগুলো নিয়ে কাজ করছেন এক যুগেরও বেশি সময়ে ধরে। প্রায় তিন বছর পর প্রকাশিত হয়েছে তার এই নতুন গবেষণা গ্রন্থটি। এ গ্রন্থে লেখক নিংড়ে বের করে এনেছেন সমতলের বারোটি আদিবাসী জাতির নানা বিষয়। তাদের আলোকচিত্রসহ তিনি তুলে ধরেছেন কড়া, গারো, সাঁওতাল, মুসহর, তুরি, ভুনজার, মালো, কর্মকার বা লোহার, ডালু, হাজং, ওঁরাও ও মুণ্ডা আদিবাসীদের জন্ম, মৃত্যু, বিয়ের আচার, বসন-ভূষণ, জীবনযাপন পদ্ধতি, উৎসব, মিথসহ জীবনের নানা দিক। গ্রন্থটিতে জাতিগুলোর বিভিন্ন তথ্য তিনি তুলে ধরেছেন সরল গদ্যে, অত্যন্ত সুপাঠ্য রূপে, যা গবেষণা-সাহিত্যে একটি উল্লেখযোগ্য সংযোজন বলে আমরা মনে করি।

সালেক খোকনের প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৪টি। তাঁর রচিত যুদ্ধদিনের গদ্য ও প্রামাণ্য গ্রন্থটি ২০১৫ সালে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক মৌলিক গবেষণা গ্রন্থ হিসেবে কালি ও কলম তরুণ কবি ও লেখক পুরস্কার অর্জন করে। 

তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলোর মধ্যে রয়েছে বিদ্রোহ-সংগ্রামে আদিবাসী(কথাপ্রকাশ), আদিবাসী বিয়েকথা (কথাপ্রকাশ),  ১৯৭১: বিজয়ের গৌরবগাঁথা (কথাপ্রকাশ), ৭১-এর আকরগ্রন্থ (কথাপ্রকাশ); অপরাজেয় একাত্তর (পেন্সিল পাবলিকেশন্স);, ১৯৭১: রক্ত, মাটি ও বীরের গদ্য (কথাপ্রকাশ); ১৯৭১: যাঁদের ত্যাগে এলো স্বাধীনতা (কথাপ্রকাশ); ১৯৭১: রক্তমাখা যুদ্ধকথা (সময় প্রকাশন); ১৯৭১: যাঁদের রক্তে সিক্ত এই মাটি (বেঙ্গল পাবলিকেশন্স); যুদ্ধাহতের ভাষ্য (কথাপ্রকাশ);, রক্তে রাঙা একাত্তর (পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স)।

সমতলের বারো জাতি- গ্রন্থটির প্রচ্ছদ করেছেন সব্যসাচী হাজরা। ১৩৬ পৃষ্ঠার গ্রন্থটির মলাট মূল্য ২৫০টাকা। পাওয়া যাবে সারা দেশের বই বিপণিগুলোতে।  

 

Link copied