কালকিনির ইউএনও-ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

২২ মে ২০২২, ০৮:০৬ পিএম


কালকিনির ইউএনও-ওসিকে প্রত্যাহারের নির্দেশ

দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হওয়ায় মাদারীপুর জেলার কালকিনির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) প্রত্যাহারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। রোববার (২২ মে) ইসির যুগ্ম সচিব এসএম আসাদুজ্জামান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ১৭ মে মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় কতিপয় দুষ্কৃতকারী এক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীকে বাধা দেয় এবং রিটার্নিং অফিসারকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। ওই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন পূর্ব এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনি তফসিল স্থগিত করে। সেই সঙ্গে কমিশন বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে জেলা প্রশাসক, মাদারীপুর, পুলিশ সুপার, মাদারীপুর ও সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারকে নির্দেশনা দেয়।

নির্বাচন কমিশন তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১ এর ৩২৭ ধারা (৪) ও স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০ এর বিধি (৩) এর বিধান অনুযায়ী দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হওয়ায় কালকিনির উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রত্যাহার করে সেখানে উপযুক্ত কর্মকর্তা পদায়নের জন্য নির্দেশ দেয়। একইসঙ্গে ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ রক্ষায় ব্যর্থ ও সরকারি দায়িত্বে অবহেলার দায়ে এবং সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে প্রশাসনিক কারণে কালকিনি থানার অফিসার ইনচার্জকে প্রত্যাহার করে সেখানে উপযুক্ত কর্মকর্তা পদায়ন করার জন্যও কমিশন নির্দেশ দিয়েছে।

মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন যে পর্যায় থেকে স্থগিত করা হয়েছিল, সে পর্যায় থেকে আগামী ১৫ জুন অনুষ্ঠিত হবে। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২৩ মে, বাছাই ‌২৪ মে, আপিল দায়ের ২৫-২৭ মে, আপিল নিষ্পত্তি ২৮মে, প্রার্থিতা ২৯ মে ২০২২, প্রতীক বরাদ্দ ৩০ মে। 

এদিকে ১৫ জুন অনুষ্ঠেয় মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে আচরণবিধি ভঙ্গ করে নির্ধারিত সময়ে আগেই নির্বাচনি প্রচারণা চালানোর দায়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. মাহফুজুর রহমানকে (রিটন) সতর্ক করা হয়েছে। মাহফুজুর রহমানের নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া যায় এবং প্রার্থী নিজেও আচরণবিধি ভঙ্গের বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ না করার অঙ্গীকার এবং এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হওয়ার শর্তে নির্বাচন কমিশন তাকে সতর্ক করেছে।

এসআর/আরএইচ

Link copied