স্বাধীনতা দিবসে চট্টগ্রামে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৬ মার্চ ২০২৩, ০৩:২৮ পিএম


স্বাধীনতা দিবসে চট্টগ্রামে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

মহান স্বাধীনতার ৫২তম বার্ষিকীতে বীর শহীদদের ফুলেল শ্রদ্ধা জানিয়েছেন চট্টগ্রামের সর্বস্তরের মানুষ। রোববার (২৬ মার্চ) দিনের প্রথম প্রহরে নগরের মিউনিসিপ্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম। 

এরপর শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বিভাগীয় কমিশনার আমিনুর রহমান, চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান ও পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ। এছাড়া শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা।

এদিকে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে রোববার সকাল ৮টায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে এক বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে আনসার-ভিডিপি, নগরের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বয়েজ স্কাউট, গার্লস গাইড ও বিএনসিসির সদস্যরা কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণ করেন।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কুচকাওয়াজে সালাম গ্রহণ করেন বিভাগীয় কমিশনার ড. মো. আমিনুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন, সিএমপি কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় ও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এস. এম. শফিউল্লাহ। 

dhakapost

এছাড়াও কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিটের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম জেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম সরোয়ার কামাল উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের শেখ রাসেল চত্বরে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। এরপর সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত এবং বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। দিনটিতে চট্টগ্রাম কারাগার, সব হাসপাতাল, পথশিশু পুনর্বাসন কেন্দ্র, প্রতিবন্ধী কল্যাণ কেন্দ্র ও বৃদ্ধাশ্রমসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে।

এছাড়াও সিনেমা হলগুলোতে বিনা টিকিটে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক চলচ্চিত্র এবং জেলার বিভিন্ন উন্মুক্ত স্থানে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হচ্ছে।

এমআর/জেডএস

Link copied