‘প্রতিষ্ঠান আমার, এই পরিস্থিতির দায় আমাকেই নিতে হবে’

Dhaka Post Desk

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:২৩ পিএম


‘প্রতিষ্ঠান আমার, এই পরিস্থিতির দায় আমাকেই নিতে হবে’

র‍্যাব সদরদফতরে রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিন/ ছবি : ঢাকা পোস্ট

প্রতারণার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় রিমান্ডে রয়েছেন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির এমডি মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী (চেয়ারম্যান) শামীমা নাসরিন। তিন দিন রিমান্ডের শেষ দিন আজ সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাসেল ও তার স্ত্রীকে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদ করে গুলশান থানা পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদে প্রতিষ্ঠানটির লেনদেনের বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য দিয়েছেন তারা। তবে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণার বিষয়টি আবারও অস্বীকার করেন দুজনই।

পুলিশের একটি দায়িত্বশীল সূত্র ঢাকা পোস্টকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। রিমান্ডের বিষয়ে পুলিশের গুলশান বিভাগের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, রিমান্ডে রাসেল ও তার স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, গ্রাহক ও সেলারদের কাছে পাওনা নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। তাদের কাছ থেকে আমরা অনেক তথ্য পেয়েছি। পাশাপাশি তথ্যগুলো যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আমরা কিছু প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করছি।

রিমান্ডের তৃতীয় দিন ইভ্যালির বর্তমান পরিস্থিতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নেতিবাচক প্রতিবেদন, গ্রাহক ও সেলারদের অসন্তোষ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে রাসেল বলেন, তার ব্যবসায়িক কৌশলে কিছু ভুল ছিল। পাশাপাশি করোনাকালীন লকডাউনের কারণে তিনি কিছুটা পিছিয়ে গেছেন। তবে বর্তমান পরিস্থিতি ও গ্রাহকদের ক্ষোভের পেছনে ইভ্যালির চেয়ারম্যানের (তার স্ত্রী শামীমা) কোনো দায় নেই বলে দাবি করেন রাসেল।

তিনি বলেন, রিমান্ডে রাসেল দেনা-পাওনা ও ব্যবসার ধরনের বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কিছু বলেননি। অনেক বিষয়ে তার উত্তর অস্পষ্ট ও বিভ্রান্তিকর ছিল।

dhakapost

দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, রিমান্ডের তৃতীয় দিন ইভ্যালির বর্তমান পরিস্থিতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নেতিবাচক প্রতিবেদন, গ্রাহক ও সেলারদের অসন্তোষ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে রাসেল বলেন, তার ব্যবসায়িক কৌশলে কিছু ভুল ছিল। পাশাপাশি করোনাকালীন লকডাউনের কারণে তিনি কিছুটা পিছিয়ে গেছেন। তবে বর্তমান পরিস্থিতি ও গ্রাহকদের ক্ষোভের পেছনে ইভ্যালির চেয়ারম্যানের (তার স্ত্রী শামীমা) কোনো দায় নেই বলে দাবি করেন রাসেল।

রাসেল পুলিশকে জানান, তার পরামর্শ অনুযায়ী চেয়ারম্যান কাজ করতেন। চেয়ারম্যানের কোনো দায় নেই।

গুলশান থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘রাসেল প্রতিষ্ঠানের মালিক। মালিক হিসেবে তার দায় না নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমরা চেষ্টা করছি তিনি গ্রাহকদের কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছেন, কত টাকা খরচ করেছেন এবং কত টাকা দেনা আছে, ব্যাংকে কত টাকা আছে ইত্যাদি বের করার। এই প্রক্রিয়ার মধ্যে তার কোনো প্রতারণা আছে কি না সেটিও জানার চেষ্টা চলছে। রিমান্ড শেষে রাসেলকে মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে নিম্ন আদালতে পাঠাবে পুলিশ।’

পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাসেল ও তার স্ত্রীকে ধানমন্ডি থানায় দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হতে পারে। ৩৬ লাখ টাকার পণ্য নিয়ে মূল্য পরিশোধ না করার অভিযোগে গত শনিবার ধানমণ্ডি থানায় রাসেলসহ ইভ্যালির ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন একজন পণ্য সরবরাহকারী। 

dhakapost

এদিকে ইভ্যালির বিষয়ে ছায়া তদন্ত শুরু করেছে সিআইডি ও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইমের বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএস) হুমায়ুন কবির ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমাদের কাছে ইভ্যালির বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। তবে আমরা তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের লেনদেনগুলো নিয়ে তদন্ত করছি। তদন্ত এখন প্রাথমিক পর্যায়ে।

গত বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মোহাম্মদপুরের বাসায় অভিযান চালিয়ে রাসেল ও তার স্ত্রীকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। রাতে র‍্যাব সদরদপ্তরে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাদের। পরদিন হস্তান্তর করা হয় গুলশান থানায়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও গুলশান থানার এসআই ওহিদুল ইসলাম তাদের আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড চান। আদালত তাদের ৩ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডের প্রথম দুই দিনের জিজ্ঞাসাবাদে রাসেল ও তার স্ত্রী ব্যবসায় কোনো ধরনের প্রতারণা করেননি বলে দাবি করেন।

রিমান্ডে রাসেল বলেন, আমরা কোনো টাকা আত্মসাৎ বা কারো সঙ্গে প্রতারণা করিনি। বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন সার্কুলার ও করোনাকালীন সময়ে লকডাউনের কারণে অনেক অর্ডার ডেলিভারি করা হয়নি। যারা ডেলিভারি পায়নি তারা ভবিষ্যতে টাকা পেয়ে যাবে। এখানে প্রতারণার কোনো বিষয় ছিল না। 

এআর/এমএসি/এসকেডি/জেএস

Link copied