বাংলাদেশ থেকে নার্স নিতে আগ্রহী মধ্যপ্রাচ্য-ইউরোপ

Nazrul Islam

২৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:১৯ পিএম


বাংলাদেশ থেকে নার্স নিতে আগ্রহী মধ্যপ্রাচ্য-ইউরোপ

বিশ্ব শ্রমবাজারে বাড়ছে দক্ষ কর্মীদের চাহিদা। বাংলাদেশ এ বাজার ধরতে চেষ্টা করছে। এরইমধ্যে বাংলাদেশ থেকে নার্স নিতে আগ্রহ জানিয়েছে জার্মানি, যুক্তরাজ্য ও ইতালি। এছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও কুয়েত এবং এশিয়ার দেশ জাপানেরও বাংলাদেশি নার্সে আগ্রহ রয়েছে।

প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, বেশ কয়েকটি দেশই বাংলাদেশ থেকে নার্স নিতে আগ্রহ দেখিয়েছে। এটি বাংলাদেশের জন্য সুসংবাদ। দক্ষ কর্মী পাঠানোর ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশও চায় এ সেক্টরে কিছু কর্মসংস্থান সৃষ্টি হোক। এসব বিষয়ে আলাপ-আলোচনাও চলছে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের সঙ্গে এ নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে নার্সদের বিদেশে কর্মসংস্থান তৈরির বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জানতে চাইলে বিএমইটির মহাপরিচালক মো. শহীদুল আলম ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে সম্ভাব্য প্রস্তাব এসেছে। জার্মানি থেকেও প্রস্তাব এসেছে। দেশটি আমাদের এখান থেকে নার্স নিতে চায়। সেদেশে নার্সের চাহিদা রয়েছে। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে আমার আলোচনা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘জার্মানির একটি কোম্পানির সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা জানিয়েছে, ভারত ও নেপাল থেকে নার্স নিচ্ছে। আমাদের এখান থেকেও নিতে চায়। তবে তাদের কাছ থেকে এখনো চিঠি আসেনি। জাপান এবং যুক্তরাজ্য ও ইতালিতে নার্সের চাহিদা রয়েছে। তারাও চায় আমাদের এখান থেকে নার্স নিতে। মালদ্বীপ তো আছেই। তবে এখনো চূড়ান্ত কিছু হয়নি। আলোচনা চলছে।’

বিএমইটির মহাপরিচালক বলেন, ‘আমাদের নার্সরা যেন কর্মসংস্থানের জন্য দেশের বাইরে যেতে পারেন, সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। আমরা নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের সঙ্গে আলাপ করেছি। নার্সদের মধ্যে যারা বিদেশে যেতে আগ্রহী, তাদের বিএমইটিতে নিবন্ধন করব। নার্সিং পড়ুয়াদের মধ্যে যারা শেষ বর্ষে অধ্যয়নরত, তাদের মধ্যে যাদের বিদেশে যাওয়ার আগ্রহ থাকবে, তাদের বিএমইটিতে নিবন্ধনে আমরা কাজ করছি।’

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি বছর দেশে সরকারি-বেসরকারিভাবে ১৩ হাজার শিক্ষার্থী নার্সিং পাস করে বের হচ্ছেন। বর্তমানে দেশে ৪৫ হাজারের বেশি সরকারি নার্স রয়েছে। বেসরকারি নার্স রয়েছে আরও কয়েক হাজার।

নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদফতরের মহাপরিচালক নাসির উদ্দিন ঢাকা পোস্টকে বলেন, ‘আমাদের অনেক নার্স রয়েছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে কর্মসংস্থানের জন্য বিদেশে নার্স পাঠানোর মতো সুযোগ আমাদের রয়েছে। আমরা পর্যাপ্ত নার্স পাঠাতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘বিএমইটি আমাদের সঙ্গে একটি মিটিং করেছে। তারা নিজেরাই এসেছিল। বাংলাদেশি নার্সদের বিদেশে কর্মসংস্থানে পাঠানোর জন্য বিএমইটির সঙ্গে আমাদের এমওইউ হবে। এটি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে। চূড়ান্ত কিছু হয়নি।’

গত ১৭ ডিসেম্বর প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন জানান, কুয়েত বাংলাদেশ থেকে নার্স নেওয়ার আগ্রহ দেখিয়েছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে পর্যাপ্ত নার্স থাকলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে তাদের বিদেশে কর্মসংস্থান করা যেতে পারে।

অনেক দিন থেকে বাংলাদেশ থেকে ডাক্তার ও নার্স নিতে আগ্রহ দেখিয়ে আসছিল মালদ্বীপ। করোনাভাইরাস মহামারির শুরুর দিকে পরিস্থিতি মোকাবিলায় একটি চিকিৎসক দল পাঠিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই দলে বেশ কজন নার্সও ছিলেন। সেখানে করোনা চিকিৎসায় সহায়তা শেষে দেশে ফিরেছে সেই দলটি।

এদিকে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহর আমন্ত্রণে বর্তমানে দেশটি সফরে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সলিহর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা শেষে দুই নেতার উপস্থিতিতে আজ বৃহস্পতিবার সকালে প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ে ঢাকা ও মালের মধ্যে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, দ্বৈত কর পরিহার, বন্দি বিনিময় এবং যুব ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে তিনটি চুক্তি সই হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসাবিজ্ঞান (নবায়ন) সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারকে বাংলাদেশ থেকে মালদ্বীপে স্বাস্থ্যকর্মী পাঠানোর বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

এনআই/আরএইচ

Link copied