রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর সব চেষ্টা অব্যাহত

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

০৭ জানুয়ারি ২০২২, ০৭:২৬ পিএম


রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর সব চেষ্টা অব্যাহত

ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত ১১ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে শান্তিপূর্ণভাবে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর সব ধরনের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। 

তিনি বলেন, কক্সবাজারে বিভিন্ন ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের কষ্ট লাঘবের জন্য ভাসানচরে ১ লাখ মানুষের বসবাসোপযোগী উন্নতমানের অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে।

বর্তমান সরকারের তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে শুক্রবার সন্ধ্যায়  জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। 
 
শেখ হাসিনা বলেন, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’- জাতির পিতা প্রণীত বৈদেশিক নীতির এই মূলমন্ত্রকে পাথেয় করে আমরা বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন,  জাতিসংঘের বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনসহ আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব বহুলাংশে বেড়েছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীতে এ মুহূর্তে শান্তিরক্ষী পাঠানো দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান শীর্ষে রয়েছে। 
 
সরকারপ্রধান বলেন, বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়ক বেয়ে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এটি অনেকেরই সহ্য হবে না বা হচ্ছে না। দেশ-বিদেশে বসে বাংলাদেশবিরোধী শক্তি, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি তাই নানা ষড়যন্ত্র করছে অগ্রযাত্রাকে রুখে দেওয়ার জন্য। মিথ্যা-বানোয়াট-কাল্পনিক তথ্য দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। বিদেশে আমাদের উন্নয়ন সহযোগীদের ভুল বোঝানোর চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, কেউ যাতে মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে, সেদিকে আমাদের সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। আমাদের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে কোনভাবেই ব্যাহত হতে দেওয়া যাবে না। জনগণই সব ক্ষমতার উৎস। আমরা জনগণের ক্ষমতায় বিশ্বাস করি। তাই জনগণের সঙ্গেই আমাদের অবস্থান।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছি। দুর্নীতিবাজ যে দলেরই হোক আর যত শক্তিশালীই হোক, ছাড় দেওয়া হচ্ছে না এবং হবে না। এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন স্বাধীনভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করছে। তবে এ ব্যাধি দূর করতে সামাজিক সচেতনতা তৈরি করা প্রয়োজন। 

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা কঠোর হস্তে জঙ্গিবাদের উত্থানকে প্রতিহত করেছি। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষ পারস্পরিক সহনশীলতা বজায় রেখে বসবাস করে আসছেন এবং ভবিষ্যতেও করবেন। 

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণের শুরুতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে সরকার গঠনের তৃতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। একইসঙ্গে নতুন বছর ২০২২-এর শুভেচ্ছাও জানান।

গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী স্মরণ করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। তিনি আরও স্মরণ করেন জাতীয় চার নেতা- সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এএইচএম কামারুজ্জামানকে। শ্রদ্ধা জানান স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত মা-বোনের প্রতি।

এইউএ/আরএইচ

Link copied