ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিবনগর সরকার

Dr. Syed Samsuddin Ahmed

অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ

১৭ এপ্রিল ২০২১, ১৪:১৭

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিবনগর সরকার

মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর একটি সাংবিধানিক সরকার প্রতিষ্ঠার বিষয়টি সামনে আসে। এই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে তৎকালীন কুষ্টিয়া জেলার মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলা গ্রামের এক নিভৃত আমবাগানে ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল ঘটে এক ঐতিহাসিক ঘটনা। এর মাঝে যুদ্ধ দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে দেশের আনাচে কানাচে।

মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা ও বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে সমর্থনের জন্য গঠিত হয় এক সরকার। যা ইতিহাসে ‘মুজিবনগর সরকার’ হিসেবেই পরিচিত। অনেকের কাছে প্রবাসী সরকার নামেও পরিচিত।

১৪ এপ্রিল ১৯৭১, বুধবার। যুদ্ধাবস্থার মধ্যেই বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠিত হয়। এ সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় ১৭ এপ্রিল ১৯৭১, শনিবার। ওইদিন সকালে মেহেরপুরের সীমান্ত এলাকা বৈদ্যনাথতলা গ্রামে নিভৃত আম্রকাননে উপস্থিত হন সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী, এএইচএম কামারুজ্জামানসহ আরও অনেকে। যোগ দেন দেশি-বিদেশি সাংবাদিকেরাও।

এরই মাঝে অতিথিদের জন্য গ্রামের বিভিন্ন বাড়ি থেকে কিছু চেয়ার আনা হলো। যার অধিকাংশেরই হাতল ভাঙা। আমবাগানের চারদিকে রাইফেল হাতে কড়া পাহারায় থাকেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। খবর পেয়ে আশপাশের লোকজনও জড়ো হয়েছেন ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশে’র প্রথম সরকার গঠনের ইতিহাসের সাক্ষী হতে।

খোলা আকাশের নিচে চৌকি পেতে তৈরি করা হলো শপথের মঞ্চ। সকাল ১১টার দিকে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলো। একে একে মঞ্চে উঠলেন জাতীয় চার নেতাসহ অন্যরা। শুরুতেই বাংলাদেশকে ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ’ রূপে ঘোষণা করা হয়েছিল। সেই ঘোষণাপত্রটিই হলো স্বাধীন বাংলাদেশের প্রধান আইনি দলিল, যা আমাদের সংবিধান এবং সরকার গঠনের মূল ভিত্তি। এরপর অধ্যাপক এম ইউসুফ আলী মন্ত্রিসভার সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

১৪ এপ্রিল ১৯৭১, বুধবার। যুদ্ধাবস্থার মধ্যেই বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠিত হয়। এ সরকারের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় ১৭ এপ্রিল ১৯৭১, শনিবার। ওইদিন সকালে মেহেরপুরের সীমান্ত এলাকা বৈদ্যনাথতলা গ্রামে নিভৃত আম্রকাননে উপস্থিত হন সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী, এএইচএম কামারুজ্জামানসহ আরও অনেকে। যোগ দেন দেশি-বিদেশি সাংবাদিকেরাও।

মন্ত্রিসভার দপ্তর বণ্টন করা হয় ১৮ এপ্রিল ১৯৭১। এরইমধ্যে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক হিসেবে নিযুক্ত হন কর্নেল (অব.) এম এ জি ওসমানী। শপথ নেওয়ার পর ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতিকে ইপিআরের (ইস্ট পাকিস্তান রেজিমেন্ট) একটি দল গার্ড অব অনার দেয়। পাশাপাশি এ রাষ্ট্রের সরকার গঠনের কথা জনসম্মুখে আনুষ্ঠানিকভাবে সেখানে ঘোষণা করা হয়।

শপথ অনুষ্ঠানের সংক্ষিপ্ত সমাবেশে স্বাধীনতার মূল ঘোষণা আদেশটি ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল  থেকে প্রচার করা হয় এবং এর কার্যকারিতা ঘোষণা করা হয় ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে। (সূত্র: লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে, মেজর রফিকুল ইসলাম, বীর উত্তম)।

শপথ গ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের সামনে প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ এই সরকারকে ‘মুজিবনগর সরকার’ হিসেবে ঘোষণা করেন। পরবর্তীকালে এই সরকারের বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা, সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত ও পরিকল্পনায় মুক্তিযুদ্ধে জয়ী হয়ে বিশ্ব মানচিত্রে জন্ম লাভ করে বাংলাদেশ নামের ভূখণ্ডটি।

মুজিবনগরে বাংলাদেশের যে সরকার গঠন করা হয় তা ছিল জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়েই গঠিত। ফলে এটি ছিল সম্পূর্ণ বৈধ ও সাংবিধানিক সরকার। যুদ্ধের উপরও এর প্রভাব ছিল সুদূরপ্রসারী। তাই বলা উচিত—এই সরকারের শপথ শুধু একটি সরকার গঠনের শপথ ছিল না। এই শপথ ছিল অন্যায়ের বিরুদ্ধে, অবিচারের বিরুদ্ধে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার শপথও।

মুজিবনগর সরকারের প্রয়োজনীয়তা ও অপরিহার্যতার কথা উল্লেখ করে মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার মেজর রফিকুল ইসলাম তার ‘লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে’- বইয়ে লিখেছেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় এমন একটি আইনানুগ সরকার না থাকলে ভারত কিংবা অন্য কোনো দেশ আমাদের রাজনৈতিক এবং নৈতিক সমর্থন দেওয়ার ব্যাপারে অনিচ্ছুক না হলেও খুবই সতর্ক থাকতো। সেক্ষেত্রে আমাদের প্রতি বৈরীভাবাপন্ন দেশগুলো ভারতের অস্ত্র সরবরাহের পদক্ষেপকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হিসেবেও আখ্যায়িত করার সুযোগ নিতে পারতো অনেকে।

‘ওই অবস্থায় যুদ্ধে লিপ্ত আমরা হয়ে পড়তাম পরিত্যক্ত এবং অসহায়! কেননা জনগণ আমাদের যতই প্রশংসা করুক না কেন, আন্তর্জাতিকভাবে আমরা সবাই বিদ্রোহী হিসেবে প্রতিপন্ন হয়ে পড়তাম। ওই পরিস্থিতিতে আমাদের কার্যক্রমের কোনো বৈধতা থাকতো না।’

এছাড়া কূটনৈতিক অঙ্গনে সমর্থনের অভাবে যুদ্ধক্ষেত্রে যেকোনো বিষয় ধরে রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। এ সমস্ত কিছু বিবেচনায় এনেই ওই সময় বাংলাদেশের আইনানুগ সরকার গঠনের গুরুত্ব ছিল অপরিসীম।

মুজিবনগরে বাংলাদেশের যে সরকার গঠন করা হয় তা ছিল জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়েই গঠিত। ফলে এটি ছিল সম্পূর্ণ বৈধ ও সাংবিধানিক সরকার। যুদ্ধের উপরও এর প্রভাব ছিল সুদূরপ্রসারী। তাই বলা উচিত—এই সরকারের শপথ শুধু একটি সরকার গঠনের শপথ ছিল না। এই শপথ ছিল অন্যায়ের বিরুদ্ধে, অবিচারের বিরুদ্ধে জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার শপথও।

একই সঙ্গে স্বাধীন বাংলা বেতারের মাধ্যমে জনগণকে উদ্বুদ্ধ রাখা, বিশ্ব জনমত গঠনসহ বিভিন্ন অবিস্মরণীয় কীর্তি সম্পন্ন করেন ওই সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্যরা; যা সমকালীন বিচারে অতুলনীয় ও অবিস্মরণীয়।

চলতি বছর বাংলাদেশ সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেছে। পঞ্চাশ বছর পূর্ণ করেছে মুজিবনগর সরকারও। বাংলাদেশের সমান বয়সী এ সরকারের সামর্থ্য সীমিত থাকলেও আকাশসম অর্জন এনে দিয়েছিল জাতিকে।

বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে স্থবির হয়ে পড়েছে দেশ। সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। কলকারখানা চললেও মানুষের মাঝে বিরাজ করছে এক অজানা আতঙ্ক। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন মুজিবনগর সরকারের পরিকল্পনায় যেভাবে স্বাধীনতা অর্জন করেছি, এবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ও যুগোযোপযোগী পরিকল্পনা এবং সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আমরা করোনামুক্ত বাংলাদেশ গড়বো।

আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এই মহামারির অবসান ঘটবে। আবারও চিরাচরিত নিয়মে জেগে উঠবে অর্থনীতি। চাঞ্চল্য ফিরে আসবে শহর-নগরে। নতুনভাবে জেগে উঠবে বিশ্ব সভ্যতা। নতুন সেই পৃথিবীতেও হেসে-খেলে জীবনের জয়গান গেয়ে যাবে মানুষ।

অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ ।। উপাচার্য, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

Link copied