১০ লাখ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে সরকার : আমীর খসরু

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম

১৮ মার্চ ২০২৩, ০৯:০৯ পিএম


১০ লাখ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে সরকার : আমীর খসরু

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী সিন্ডিকেটের কারণে পণ্যের দাম বাড়ছে। এই সিন্ডিকেট ছাড়া কেউ ডলার পাচ্ছে না। এমনিতে তো ডলার সব খেয়ে ফেলছে। ১০ লাখ কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। এখন ডলারের রিজার্ভ শূন্যের দিকে যাচ্ছে। যা আছে তা পাচ্ছে আওয়ামী সিন্ডিকেট।

শনিবার (১৮ মার্চ) বিকেলে ‘আওয়ামী সরকারের সর্বগ্রাসী দুর্নীতির’ প্রতিবাদে এবং ১০ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আমীর খসরু বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের ভোট চোর, ব্যাংক চোর, শেয়ার বাজার চোরসহ যত উপাধি আছে বলে শেষ করা যাবে না। এতো চুরি বিশ্বের কোনো দেশে হয় না। দ্রব্যমূল্য মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। আওয়ামী চোর ব্যতীত সাধারণ মানুষের দুই বেলা খাওয়া মুশকিল হয়ে গেছে। স্কুলের বেতন দিতে কষ্ট হচ্ছে, চিকিৎসার খরচ মেটাতে কষ্ট হচ্ছে। আওয়ামী চোর ব্যতীত বাংলাদেশের বাকি মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে।

তিনি বলেন, কেন দ্রব্যমূল্য বাড়ছে? বিদ্যুৎ খাতে আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় দুর্নীতি। যাদেরকে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনের অনুমতি দিয়েছে, তারা সবাই আওয়ামী লীগের। এক্ষেত্রে কোনো টেন্ডার হয়নি। প্রধানমন্ত্রী অফিসে যেতে বলেছেন। একটা একটা করে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এরা বিদ্যুতের লাইসেন্স নিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রস্তুতি নিয়েছে। কিন্তু উৎপাদন না করেও কুইক চার্জের নামে ৯০ হাজার কোটি টাকা তারা সরকারের কোষাগার থেকে লুটপাট করে নিয়ে গেছে। তাদের বিরুদ্ধে ভবিষ্যতে কোনো মামলা করতে না পারে, সেটার জন্য আইন করেছে। অর্থাৎ দুর্নীতি করার জন্য আইন করেছে তারা।

আমীর খসরু বলেন, অনির্বাচিত, দখলদার ফ্যাসিস্ট সরকারের দুর্নীতির প্রতিবাদে আজকের এই সমাবেশ। অর্থাৎ আপনারা বিএনপির শুধু নেতাকর্মী নন, যুদ্ধক্ষেত্রে সৈনিকরা যে প্রস্তুতি নেন, সেটি আপনারা শিখেছেন। আপনারা আগামী দিনের আন্দোলনের জন্য সৈনিক হয়ে গেছেন। যুদ্ধক্ষেত্রে হুকুমের সঙ্গে সঙ্গে সৈনিকরা ঝাঁপিয়ে পড়ে। এটাই প্রমাণ করে শেখ হাসিনার পতন অবশ্যম্ভাবী।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি ও গ্যাস-বিদ্যুৎসহ জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির ফলে জনজীবনে সীমাহীন দুর্ভোগ নেমে এসেছে। নিত্যপণ্যের দাম কমাতে পদক্ষেপ নিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। এ ফ্যাসিস্ট সরকার দুর্নীতি ও লুটপাটে ব্যস্ত। তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলে জনগণের দুঃখ দুর্দশা লাঘবে কোনোপ্রকার প্রচেষ্টা নেই। তাদের একমাত্র লক্ষ্য দমন নিপীড়নের মাধ্যমে অবৈধ ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করা।

তিনি আরও বলেন, দেশের জনগণ এ অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে জেগে উঠেছে। জনগণ তাদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। সরকারের অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি অব্যাহত কর্মসূচি পালন করছে। বিএনপি জনগণকে সঙ্গে নিয়ে গণআন্দোলনের মাধ্যমে এ ফ্যাসিস্ট সরকারের পতন ঘটিয়ে ভোটাধিকার, আইনের শাসন সর্বপরি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করবে।

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের কর্মসূচিতে প্রমাণিত হয়েছে, এ সরকারের আর পালাবার পথ নেই। এই সরকারকে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে অবিলম্বে নির্দলীয় নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে হবে। আওয়ামী লীগের অধীনে আর কোনো নির্বাচন নয়। এরা জনগণের ভোট চুরি করেছে, চাল চুরি করেছে, তেল চুরি করেছে, জনগণের টাকা চুরি করেছে। বাংলাদেশ থেকে এখন ১২ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়ে গেছে।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় বিএনপি শ্রম সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশিদ, দক্ষিণ জেলার আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান, মহানগরের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আলহাজ্ব এম এ আজিজ, যুগ্ম আহ্বায়ক মোহাম্মদ মিয়া ভোলা প্রমুখ।

এমআর/এসকেডি

Link copied