লিসবন বিশ্ববিদ্যালয়ে বৈজ্ঞানিক পুরস্কার পেলেন সোহেল মুর্শেদ

Dhaka Post Desk

ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী

০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৫০ পিএম


লিসবন বিশ্ববিদ্যালয়ে বৈজ্ঞানিক পুরস্কার পেলেন সোহেল মুর্শেদ

পর্তুগালে বৈজ্ঞানিক পুরস্কার পেয়েছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী অধ্যাপক এস এম সোহেল মুর্শেদ। মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, নেভাল ইঞ্জিনিয়ারিং এবং এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (এয়ারক্রাফ্ট) ওপর ব্যতিক্রমধর্মী অসামান্য বৈজ্ঞানিক অবদানের জন্য লিসবন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০২২ সালের এ বৈজ্ঞানিক সম্মাননা লাভ করেন।

পর্তুগালের লিসবন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউটো সুপিরিয়র টেকনিকোর (আইএসটি) মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অধ্যাপক এস এম সোহেল মুর্শেদ। তিনি রচেস্টার ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আরআইটি), নিউ ইয়র্ক এবং ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (আইআইটি, ধানবাদ), ভারতের ভিজিটিং অধ্যাপক ছিলেন। তিনি সিঙ্গাপুরের নানয়াং টেকনোলজিক্যাল ইউনিভার্সিটি এবং ইউএসএ ইউনিভার্সিটি অফ সেন্ট্রাল ফ্লোরিডায় (ইউসিএফ) পোস্টডক্টরাল গবেষক হিসেবেও কাজ করেছেন।

অধ্যাপক মুর্শেদ বিশ্বের শীর্ষ ২% বিজ্ঞানীদের (ক্যারিয়ার এবং ২০২১ ইমপ্যাক্ট লিস্টের একক বছর উভয়ই) তালিকাভুক্ত হয়েছেন, যা স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি ১০ ​​অক্টোবর, ২০২২-এ প্রকাশিত হয়েছিল। একক বছরের (২০২১) তালিকায় ২ লাখ ৪ হাজার ৯ জন বিজ্ঞানীদের মধ্যে তার অবস্থান ১৬ হাজার ৮০তম। এছাড়া তিনি ২০২১ সালের তালিকায় পর্তুগালের ৭৬৩ তালিকাভুক্ত বিজ্ঞানীদের মধ্যে ৪৫তম স্থানে রয়েছেন।

১২টি বই এবং ৩৫টি বই-অধ্যায় ছাড়াও তিনি এ পর্যন্ত শীর্ষস্থানীয় আন্তর্জাতিক জার্নাল এবং সম্মেলনে ২০০টিরও বেশি বৈজ্ঞানিক প্রকাশনা লেখক এবং সহ-লেখক হিসেবে কাজ করেছেন। ওয়েব অব সায়েন্স (প্রয়োজনীয় বিজ্ঞান সূচক) দ্বারা তার বেশ কয়েকটি গবেষণাপত্র হাইলি উদ্ধৃত পেপার হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়েছে।

তিনি নিয়মিতভাবে ইউরোপীয় কমিশন এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশের তহবিল সংস্থার জন্য বিশেষজ্ঞ মূল্যায়নকারী হিসেবে কাজ করছেন। এই অধ্যাপক ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের মতো অনেক আন্তর্জাতিক পিএইচডি থিসিসের পাশাপাশি "নেচার"-এর মতো শীর্ষ-স্তরের কিছুসহ প্রায় ৪০টি আন্তর্জাতিক জার্নালের জন্য এক্সটারনাল পর্যালোচনাকারী হিসেবে কাজ করেন।

অসামান্য কৃতিত্বের বিষয়ে এই গুণী বিজ্ঞানী ঢাকা পোস্টকে বলেন, অর্জন আমার কাছে মুখ্য বিষয় নয়, আমি শুধু আমার কাজ করে যাচ্ছি। 

মানবতার কল্যাণে তিনি নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞানের উদ্ভাবনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। যাতে পরবর্তী প্রজন্ম একটি সুন্দর বাসযোগ্য পৃথিবী পেতে পারে।

সোহেল মুর্শেদ নড়াইল জেলার মাইজপাড়া হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেন। পরে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে যথাক্রমে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি এবং এমইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করেন।

এছাড়া সিঙ্গাপুরের নানইয়াং টেকনোলজিক্যাল ইউনিভার্সিটি (এনটিইউ) থেকে মেকানিক্যাল ও অ্যারোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পিএইচডি অর্জন করেন। পর্তুগালে তিনি ২০১০ সাল থেকে পরিবারসহ বসবাস করছেন।

এফকে/

Link copied