নিউইর্য়ক সিটির কমিউনিটি বোর্ডের সদস্য বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জুয়েল

Dhaka Post Desk

এসএম. হক, নিউইর্য়ক থেকে

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪৯ এএম


নিউইর্য়ক সিটির কমিউনিটি বোর্ডের সদস্য বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জুয়েল

মাহবুব জুয়েল

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কস বরো কমিউনিটি বোর্ডের সদস্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মাহবুব জুয়েল। ব্রঙ্কস বরো প্রেসিডেন্ট রুবিন ডিয়াজ ২১ সেপ্টেম্বর তার এ নিয়োগের কথা জানিয়েছেন।

কমিউনিটি বোর্ড-৭ এর সদস্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়া জুয়েল নগরের ব্রঙ্কস বোরোর বেডফোর্ড পার্ক, ফোর্ডহাম, জেরোম পার্ক, কিংসব্রিজ হাইটস, নরউড ও ইউভার্সিটি হাইটস এলাকায় বসবাসরত জনগণের কল্যাণে কমিউনিটি বোর্ডে অবদান রাখার সুযোগ পাবেন।

দুই বছরের জন্য কমিউনিটি বোর্ডে নিয়োগ পাওয়া জুয়েল নিউইয়র্ক সিটির বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন। বোর্ডের সদস্য হিসেবে নগরের ভূমি ব্যবহার বরাদ্দ ও নগর পরিষেবা প্রদান, সিনিয়র সিটিজেনদের সহায়তা, পরিবেশ সুরক্ষা, কনজ্যুমার অ্যাফেয়ার্স, শিক্ষা, স্থানীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার সুযোগ পাবেন।

জুয়েল মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া পৌর শহরের উত্তর বাজারের বাসিন্দা মরহুম আতিকুর রহমান ঠিকাদার ও রওশন আরা মনির একমাত্র ছেলে। এক ভাই ও এক বোনের মধ্যে জুয়েল বড়। একমাত্র ছোট বোন রাফিয়া রহমান জুঁই বর্তমানে সিলেট শহরে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ছোটবেলায় বাবা মারা যাওয়ার পর মামা এহসান চৌধুরীর (সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত) তত্ত্বাবধানে জুয়েল এগিয়ে যান। তিনি ১৯৯৮ সালে কুলাউড়া নবীন চন্দ্র সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ২০০০ সালে কুলাউড়ার ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি ও ২০০৬ সালে সিলেটের লিডিং ইউভার্সিটি থেকে এমবিএ পাশ করেন। কুলাউড়ার এই কৃতিত্ব সন্তান বর্তমানে নিউইয়র্ক পুলিশের (এনওয়াইপিডি) কর্মকর্তা ও নগরীর লেহম্যান কলেজে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত। দুই ছেলে, স্ত্রী ও মা রওশন আরা মনিসহ ব্রঙ্কসে বসবাস করেন।

এদিকে মাহবুব জুয়েল কমিউনিটি বোর্ডে নিয়োগ পাওয়ায় ব্রঙ্কসের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ কমিউনিটির সর্বস্তরের জনগণ অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। অভিনন্দন বার্তায় তারা বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে অভিবাসী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে মাহবুব জুয়েল পেশাগত সাফল্যের বাইরে ও একজন সমাজসেবী হিসেবে নিজেকে সব সময় সক্রিয় রেখেছেন। করোনা মহামারির সময় তিনি নগরের মানুষের নানা ধরনের সেবাদানের অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

এ বিষয়ে জুয়েল মাহবুব বলেন, আমি ২০১১ সালে বাংলাদেশ থেকে ইমিগ্র্যান্ট হয়ে নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসে বসবাস শুরু করি। পাশাপাশি বিভিন্ন কমিউনিটির ইভেন্ট ও সংগঠনের সঙ্গে জড়িত আছি। ব্রঙ্কসের কমিউনিটি বোর্ড ৭ এর সামগ্রিক ইতিবাচক পরিবর্তনের জন্য যেকোনো ধরনের যুগোপযোগী উদ্যোগ নিতে আমি বদ্ধ পরিকর।

অদূর ভবিষ্যতে জুয়েলের মতো চৌকস ও মেধাবী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কমিউনিটি সদস্যরা আমেরিকার মূলধারার রাজনীতিতে বাংলাদেশিদের জন্য আইকন হতে পারেন বলে কমিউনিটিতে আশার সঞ্চার হয়েছে।

ওএফ

Link copied