মরুর বুকে যাযাবর চোখ

ঐতিহ্যের দুবাই যেন রাতের শহর

Tariq-Ul-Islam Aapon

২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৭ পিএম


ঐতিহ্যের দুবাই যেন রাতের শহর

রাতের দুবাই / ছবি: ঢাকা পোস্ট

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর লিখেছিলেন, ‘জীবনের ধন কিছুই যাবে না ফেলা!’ আসলেই পথের বাঁকে বাঁকে প্রতিটি অভিজ্ঞতাই মনিমুক্তোর মতো। একটা সময় সবকিছুই কাজে লেগে যায়। কিছুই ফেলনা নয়। এখন যেমন আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ কাভার করতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে এসে প্রতিদিনই নতুন সব অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির হাজার বছরের ইতিহাস। পুরোটা জুড়েই কেবল বিস্ময় আর বিস্ময়!

একটু ভুল বলা হলো, ইতিহাস বলছে ১,৩০,০০০ বছরের পুরোনো আবাস এই আরব আমিরাত। মেসোপটেমিয়া, ইরান আর সিন্ধু উপত্যকার হরপ্পা সংস্কৃতির মতোই উন্নত ছিল এই আবাসস্থল। যে পথে আরবের বেদুইনরা হাঁটতেন, যাযাবর জীবনের গল্প সমৃদ্ধ করতেন সেখানে এখন উঁচু উঁচু অট্টালিকা। 

এখন দুবাই নামটা নিতেই চোখের সামনে ভেসে উঠে- চোখ ধাঁধানো সব রঙিন আলোর রোশনাই, বিলাসবহুল জীবন, রাজকীয় রাজপ্রসাদ। একটা ব্যাপার মিস হয়ে গেছে, নেশাতুর নির্ঘুম রাত। এতদিন শুধু শুনেই গিয়েছি, এবার দুবাইয়ে পা দিয়েই বুঝলাম, তাদের সন্ধ্যা হয় রাত ১২টার পর। 

ঘড়ির কাঁটায় বারোটা পেরোতেই চনমনে হয়ে উঠে দুবাই। আড়মোড়া ভেঙে দুরন্ত হয়ে উঠে পারস্য উপসাগরের উপকূলের চারপাশ। ১৪ বর্গমাইলের অনেকটাজুড়ে বাড়তে থাকে ব্যস্ততা, আনন্দ আয়োজন। রাতের দুবাই শুধুই গ্ল্যামারের হাতছানি, রাজপথ জুড়ে দামি সব রেসিং কারের গগনবিদারি শব্দ।

নাইট ক্লাব-ড্যান্স বার, গ্রোসারি, রেস্টুরেন্ট থেকে শুরু করে কিছু শপিংমল, সুপার মার্কেট, ওষুধের দোকান খোলা থাকে রাতের প্রায় পুরোটা সময়। এখানে পা দিয়ে বিমানবন্দর থেকে দেরা দুবাইয়ে ফিরতে ফিরতে ট্যাক্সি ড্রাইভার জালাল বলছিলেন, ‘এখানে টাকা হলে সব মেলে! হাতে ডলার-দিরহাম থাকলে দুবাই আপনার কাছে স্বর্গ। কী আছে, সেটা না বলে বলুন এখানে কী নেই!’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলকে অনুসরণ করতে এসে এই কথাটার যৌক্তিকতাও খুঁজে পেলাম। পকেট থেকে ডলার-দিরহাম ছড়িয়ে সুখ কিনে নেন পর্যটক আর ধনকুবেররা। গত দুই দিন ধরে দুবাইয়ের রাত দেখবো বলে রাস্তায় গিয়ে রীতিমতো ভয় পেতে হলো। এমন কী বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দেখে শারজাহ থেকে ফেরার পথেও রাতে দেখা মিলল রেসিং কার আর মোটর বাইক নিয়ে ধনকুবেরদের সন্তানদের আনন্দ মিছিল। 

কোভিডের সময় বলে নয়, সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতিটি শহরের মিছিল কিংবা বড় জমায়েত নিষিদ্ধ। যদিও এসবের থোয়াই কেয়ার করতে দেখা যায় এখানে। এই তো গত রোববার ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ শেষ হতেই তো দেখা গেল মিছিল। ভারতের বিপক্ষে ১০ উইকেটের ইতিহাস গড়া জয়ের পর আনন্দে মিছিলে রাস্তায় নেমে আসেন প্রবাসী পাকিস্তানিরা। পতাকা হাতে চলে উচ্ছ্বাস। রাতের নীরবতা বলে এখানে যেন কিছু নেই!

দুবাইয়ের রাত নিয়ে কেন এতো কথা? এখানে রাত শুরু হয় কয়টায়? প্রশ্নটা রেখেছিলাম পাকিস্তানি ড্রাইভার মোহাম্মদ সাকলায়েনকে, ‘দেখুন, আমি দুবাইয়ে ট্যাক্সি চালাই গত ১৪ বছর ধরে। রাতের বেলা এখানে রঙ পাল্টে যায়। আমি রাত ২টা পর্যন্ত রাস্তায় থাকি। এখানে ডলার-দিরহাম উড়ে রাতের বেলায়। যা চাইবেন সব পাবেন দুবাই শহরে।’

একটুও ভুল বলেননি সাকলায়েন। নাইট ক্লাব-বারগুলোতে অর্থের বিকিকিনিতে কত কী যে হয়! রাস্তায় দাপট ফেরারি, পোর্শে, ল্যাম্বারগিনি, বিএমডব্লিউর। কেউ আবার জুমেরাহ বিচের পাশ দিয়ে চলে যায় আরব সাগরে। প্রমোদ তরীতে চলে রাতের আয়োজন। পাশেই বুর্জ আল আরব জুমেরাহ, বলা হয় বিশ্বের একমাত্র সাত তারকা হোটেল। যেখানে এক রাত থাকতে হলে গুণতে হয় কমপক্ষে  বাংলাদেশি মুদ্রায় ২০ লাখ টাকা। আবার আরেক বিস্ময় আন্টালটিস দ্য পাম দুবাই। রাজকীয় এক হোটেল। যেখানে এক রাত থাকার খরচ ১ থেকে শুরু হয়ে ৩  লাখ! এমন পয়সা উসুলের ব্যবস্থাও আছে বিলাসবহুল সেসব হোটেলে!

এটা তো গেল ধনকুবেরদের রাতের আয়োজন। গোটা দুবাই এভাবেই রাত কখন নামবে সেই পথে তাকিয়ে থাকে। দেরা দুবাই প্রবাসী ব্যবসায়ী মঞ্জুরুল আলম ঢাকা পোস্টকে বলছিলেন, ‘দেখুন, এখানে রাত কখন হবে সেই অপেক্ষায় থাকি আমরা। কারণ রাতের বেলাতেই আমাদের প্রতিটি দোকানের বিক্রিও বেড়ে যায়। সবাই দিনের কাজ সেরে কেনাকাটা করতে চলে আসে। আর আপনারা তো জানেই এখানে দিনে প্রচণ্ড গরম। এ কারণে সূর্য ডুবলেই মার্কেটগুলোতে ভিড় বেড়ে যায়। সেটা গ্রোসারি দোকান, সুপার মার্কেট কিংবা সেলুন হোক সব জায়গাতেই একই চেহারা।’

দেরা দুবাইয়ের আল আহমদিয়া সেলুনের বাংলাদেশি কর্মী রিজওয়ানও তেমনটাই শোনালেন, ‘সকাল আটটায় আমরা সেলুন খুলি। কিন্তু তেমন কাস্টমার দিনের বেলায় দেখা পাই না। কিন্তু সন্ধ্যা নামতেই আমাদের সেলুনে ব্যস্ততা বেড়ে যায়। এমন সময় যায় যে রাত ১টা বাজলেও দোকান বন্ধ করার সুযোগ থাকে না!’

প্রতিটা রাতের বয়স বাড়ে, দুবাই জেগে থাকে। জীবন ছোট কিন্তু সেই ছোট্ট জীবনটা এভাবেই দীর্ঘ হয় প্রতিটা রাতে। 

এটি/এমএইচ/টিআইএস

Link copied