ওয়ার্ম আপ সেশন : ১০ বছর পর ফাইনালের হাতছানি গার্দিওলার

Dhaka Post Desk

স্পোর্টস ডেস্ক

০৪ মে ২০২১, ১৬:০৪

ওয়ার্ম আপ সেশন : ১০ বছর পর ফাইনালের হাতছানি গার্দিওলার

 

ম্যানচেস্টার সিটি- পিএসজি

সেমিফাইনাল, ২য় লেগ

ইতিহাদ স্টেডিয়াম, ম্যানচেস্টার। বাংলাদেশ সময় রাত ১টা

ইতিহাস গড়ার হাতছানি ম্যানচেস্টার সিটির সামনে। আসলেই তাই। তবে ম্যান সিটির জায়গায় পেপ গার্দিওলার কথা বললেও খুব বেশি তফাৎ থাকে না। গত দশ বছর ধরে হন্যে হয়ে খুঁজছেন একটা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। অথচ যেতে পারেননি ফাইনালেও। কখনো পারেনি তার এখনকার দল ম্যানসিটি। 

হাজার হাজার কোটি টাকায় দল গড়ে, ট্রান্সফার উইন্ডোতে ঝড় তুলেও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল খেলা হয়নি তাদের। এখন সেখান থেকে কেবল ঘরের মাঠে পিএসজির বিপক্ষে একটা ড্র (এমনকি ১-০ গোলে হার হলেও হবে) দূরে সিটি। কিন্তু গার্দিওলা যদি ফিরে যান দুই বছর আগের স্মৃতিতে, তাহলে নিশ্চয়ই কিছুটা আতঙ্কিত হতে হবে তাকে। 

২০১৯ সালে ইত্তিহাদে ম্যানচেস্টার সিটিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে চলে গিয়েছিল টটেনহ্যাম, তখন স্পার্সদের কোচের নাম-মাওরোসিও পচেত্তিনো। সিটির মাঠে যখন নাচছেন হ্যারি কেনরা, তখন অবিশ্বাসের চেহারায় মন খারাপ হয়ে ড্রেসিং রুমে বসে ছিলেন গার্দিওলা। ওই স্মৃতি নিশ্চয়ই তিনি আর মনে করতে চাইবেন না। 

ম্যাচের আগের দিন তাই বলে দিলেন, ‘এটা অতীত, ভিন্ন খেলা, ভিন্ন মুহূর্ত।’ প্রথম লেগে ২-১ গোলে জিতে সেই অতীত পেছনে ফেলায় সিটি অনেকটাই এগিয়েও আছে। তবে পিএসজির সাম্প্রতিক অ্যাওয়ে ফর্ম সিটিকে দুশ্চিন্তায় ফেলবে। 

পিএসজির জন্য কাজটা এমনিতে কঠিন। ঘরের মাঠে প্রথম লেগ হেরে নিজেদের ইতিহাসে ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় কখনোই পরের পর্বে উঠতে পারেনি পিএসজি। এর উপর দলের অন্যতম সেরা পারফরমার কিলিয়ান এমবাপে পড়েছেন ইনজুরিতে। যদিও এই ম্যাচ খেলতে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি, করবেন আলাদা অনুশীলন। 

তারা বলেন

আপনি যখন প্রথম লেগের ফল নিয়ে খেলতে নামবেন, আপনার মাথায় ফাইনালের চিন্তা নিয়ে এবং অনেকসময় ভুলে যাবেন আপনার কী করতে হবে। যেটা খেলতে নেমেছেন, সেটা জিততে হবে। সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগ সবসময়ই কঠিন। ফাইনাল একদমই অন্যরকম। 

সিটি এমন একটা দল যারা একই দর্শনে গত ছয় বছর ধরে খেলছে। এতে একটা শক্ত দল তৈরি হয়েছে। আমরাও একইভাবে পজেশনাল ফুটবল খেলতে চেষ্টা করছি। কিন্তু পজেশন ও উঠা-নামায় ভারসম্য রাখার চেষ্টা করি আমাদের খেলোয়াড়দের চরিত্রের দিকে চিন্তা করে। 

দ্বিতীয় লেগে আমাদের কষ্ট করার জন্য তৈরি থাকতে হবে এবং যখনই সুযোগ আসে আক্রমণাত্মক হতে হবে। ৯০ মিনিটের খেলা, আমাদের ফাইনালে যেতে দুই গোল দরকার। এটাই আসল বিষয়, আমাদের চেষ্টা করতে হবে। 

একাদশ কেমন হবে

ম্যান সিটি

এডারসন, ক্যান্সেলো, ডিয়াজ, স্টোনস, ওয়াকার, রদ্রি, গুন্ডোয়ান, ডি ব্রুইন, মাহরেজ, ফোডেন, বার্নাডো সিলভা

পিএসজি

নাভাস, ফ্লোরেঞ্জি, মার্কিনিয়স, কিমপেম্বে, বাক্কের, পারেদেস, হেরেরা, ভেরাত্তি, ডি মারিয়া, নেইমার, এমবাপে

এমএইচ/এটি

Link copied