এক যুগ পর বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্সে বিদেশি কোচ

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

১৪ মে ২০২২, ০৬:১২ পিএম


এক যুগ পর বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্সে বিদেশি কোচ

দেশের অন্যান্য খেলায় বিদেশি কোচ আসেন হরহামেশায়। মাদার অফ অল ডিসিপ্লিন হিসেবে খ্যাত অ্যাথলেটিক্সে বিদেশি কোচ সেভাবে আসেন না। বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন এক যুগের বেশি সময়ের পর তিন মাসের জন্য ভারতীয় কোচ ভেনকান্না গ্যাংকরকে এনেছে।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স দলে সর্বশেষ চাইনিজ কোচই কাজ করেছেন এতে সবাই একমত হলেও সাল নিয়ে রয়েছে ভিন্নতা। অধিকাংশের মতে, ২০০৮-০৯ সালে সংক্ষিপ্ত মেয়াদের জন্য বিদেশি কোচ এসেছিলেন। তবে দীর্ঘমেয়াদে কোচের হিসেবে তবে ১৯৯৮সালে চাইনিজ কোচ থিয়ান এবং ৯৯ কাঠমান্ডু সাফে হোয়াং মাহবুবদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।

চাইনিজ কোচের ধারা থেকে ভারতের কোচের উপর আস্থা রাখার কারণ সম্পর্কে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব মন্টু বলেন, ‘আমাদের হাই জাম্পে সম্ভাবনা রয়েছে। উনি হাইজাম্পে অত্যন্ত ভালো মাপের কোচ। তাই তাকে আনা হয়েছে। তিন মাস পর দুই পক্ষের সম্মতিতে চুক্তি বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সাফ গেমসের আগে স্প্রিন্টেও বিদেশি কোচ আনার চেষ্টা আছে।’
 
ভারতের শীর্ষ পর্যায়ের হাইজাম্পাররা গ্যাংকরের শিষ্য। তিনি হাইজাম্পে বাংলাদেশে উন্নতি করাতে পারবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন, ‘আমি মূলত একাডেমিশিয়ান। গত কয়েক যুগে ভারতে শীর্ষ হাইজাম্পাররা আমার শিষ্য। তারা আমার অধীনে থেকেই আন্তর্জাতিক পদক জিতেছে। আশা করি বাংলাদেশেও সেই ধারা বজায় রাখতে পারব। বাংলাদেশের হাইজাম্পারদের এখন যে টাইিমং রয়েছে। কয়েক মাস পর অবশ্যই এর উন্নতি করবে।’

গত কাঠমান্ডু সাফ গেমসে বাংলাদেশের মাহফুজুর রহমান রৌপ্য জিতেছিলেন। মাহফুজ পরবর্তী গেমসে স্বর্ণ জিতবেন এমনটাই স্বপ্ন ফেডারেশনের। মাহফুজের জাম্পে উন্নতি করানোর বিশ্বাস গ্যাংকরের, ‘সে এখন ২.১৫ সেমি লাফায়। এটা ধীরে ধীরে ২.২০, ২.২৫ এ উন্নতি করার চেষ্টা করব।’

মাত্র তিন মাস সময় হলেও তিনি বাংলাদেশের অ্যাথলেটিক্সে একটি প্রতিভা অন্বেষণ করতে চান। সেখানে তিনি একটু লম্বা ও মেধাবী অ্যাথলেট বাছাই করতে চান,‘ জাম্প ও হার্ডেলস ইভেন্টে যদি আপনি লম্বা খেলোয়াড় না নিতে পারেন সেক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়তে হয়। এজন্য এই ইভেন্টে লম্বা খেলোয়াড় নির্বাচনের পাশাপশি টেকনিক নিয়ে কাজ করতে হবে।’ 

বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে অলিম্পিকে পদক অর্জন সম্ভব বলে মনে করেন এই ভারতীয় কোচ, ‘বাংলাদেশ ১৬ কোটি বেশি মানুষের দেশ। অনেক কম জনসংখ্যার দেশ অলিম্পিকে পদক জিতছে। সঠিক পরিকল্পনা থাকলে বাংলাদেশেরও পদক জয় সম্ভব’। পদক জয়ের ক্ষেত্রে খেলোয়াড়কে বেশি উদ্দ্যমী হতে বলছেন এই কোচ,‘ কোচ খেলোয়াড়কে সহায়তা করতে পারে কিন্তু খেলোয়াড়ের ভাল করার তাগিদ থাকতে হবে।’

গ্যাংকর স্পোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া থেকে সম্প্রতি অবসরে গিয়েছেন। বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের সাথে সুসম্পর্কের কারণে তিনি বাংলাদেশে কোচিং করাতে এসেছেন। তার সম্মানীর বিষয়ে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন সহায়তা করবে এমন আশ্বাস পেয়েছে ফেডারেশন।

আজ শনিবার দুপুরে নতুন কোচ বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামস্থ বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের আসেন। এরপর জাতীয় দলের ক্যাম্প ভেন্যু বিকেএসপির উদ্দেশ্যে রওনা হন। 

গতকাল বিকেএসপিতে কমনওয়েলথ গেমসের জন্য ট্রায়াল হয়েছে। সেই ট্রায়ালে স্প্রিন্টে ইমরানুর রহমান (১০০ মিটার), রাকিবুল (১০০ ও ২০০ মিটার) ও সুমাইয়া দেওয়ান ১০০ মিটার) টিকেছেন। সাবেক দ্রুততম মানবী শিরিন আক্তার বাদ পড়েছেন। হাইজাম্পে মাহফুজুর রহমানের সঙ্গে আছেন রুমকি ইসলাম। সাবেক দ্রুততম মানব ইসমাইল হোসেন বাজে পারফরম্যান্স করায় ক্যাম্প থেকে বাদ পড়েছেন তার বদলে নতুন দুই জন অর্ন্তভূক্ত হয়েছেন।

এজেড/এটি

Link copied