‘স্পোর্টস মাথা ব্যাথার ট্যাবলেট না’

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

২২ জানুয়ারি ২০২২, ০৮:১২ পিএম


‘স্পোর্টস মাথা ব্যাথার ট্যাবলেট না’

নতুন বছরের শুরুতেই ইরানিয়ান কোচ মোহাম্মদ জায়ের রেজাইকে এনেছিল বাংলাদেশ শ্যুটিং স্পোর্টস ফেডারেশন। হাই প্রোফাইল এই রাইফেল কোচের স্পন্সর হিসেবে আজ (শনিবার) শ্যুটিং ফেডারেশনের সঙ্গে চুক্তি করেছে পদ্মা ব্যাংক। এই কোচের মাসিক বেতন ছয় হাজার পাঁচশ ইউরো যা বাংলাদেশী টাকায় ছয় লাখ ৩৫ হাজার টাকা। এই কোচের মাসিক বেতনসহ বিদেশ ভ্রমণের যাবতীয় খরচ বহন করবে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড।

কোচ ইতোমধ্যে শ্যুটারদের নিয়ে কাজ শুরু করলেও আজ পদ্মা ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে মিডিয়ার সামনে কোচকেও পরিচয় করানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে এক বছরের দায়িত্ব পেয়েছেন নতুন এই রাইফেল কোচ। তবে ফেডারেশন তাকে ২০২৪ প্যারিস অলিম্পিক পর্যন্ত কোচের দায়িত্ব দিতে চায়।

দায়িত্ব নিয়ে নতুন কোচ জায়ের রেজা মূল লক্ষ্য এশিয়ান গেমসের সাফল্য, ‘এই বছর আন্তর্জাতিক অনেক আয়োজন আছে। এর মধ্যে এশিয়ান গেমসে আমাদের প্রধান লক্ষ্য।’ এশিয়ান গেমসে তার কোচিংয়ে ইরানের পদক জয়ের রেকর্ড রয়েছে। 

বাংলাদেশে কোচিং করাতে আসা নিয়ে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে মেধাবী শ্যুটার আছে। বাংলাদেশে শ্যুটিংয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। এজন্য আমি দায়িত্ব নিয়েছি।’ খেলাধুলা একটি চলমান প্রক্রিয়া। উন্নয়ন করতে হলে ধারাবাহিকভাবে চালিয়ে যেতে হবে এটি বোঝাতে তিনি মাথাব্যথার উদাহরণ ব্যবহার করেছেন, ‘স্পোর্টস মাথা ব্যাথার ট্যাবলেটের মতো না। এটা চলমান রাখতে হবে।’
 
এই কোচকে বেছে নেয়ার কারণ সম্পর্কে শ্যুটিং ফেডারেশনের মহাসচিব ইন্তেখাবুল হামিদ অপু বলেন, ‘তিনি এয়ার রাইফেলে অত্যন্ত ভালো মানের কোচ। তার কোচিংয়ে ইরান অনেক পদক পেয়েছে আন্তর্জাতিকভাবে। পদকের পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশের শ্যুটিংয়ে ভূমিকা রাখতে পারবেন এই বিশ্বাসেই তাকে আনা।’ 

নতুন কোচের প্রথম অ্যাসাইনমেন্ট আগামী মাসে ইন্দোনেশিয়া আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা। সেখানে পদকের আশা ফেডারেশনের। 
নতুন কোচ ও একই সাথে পদ্মা ব্যাংকের সাথেও আজ (শনিবার) চুক্তি করেছে শ্যুটিং ফেডারেশন। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্যূটিং স্পোর্ট ফেডারেশনের সভাপতি লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারোয়ার হাসান। এসময় উপস্থিত ছিলেন শ্যুটিং ফেডারেশনের মহাসচিব ইন্তেখাবুল হামিদ ও পদ্মা ব্যাংকের চিফ অপারেটিং অফিসার জাবেদ আমিন। 

এজেড/এমএইচ

Link copied