৩ ঘণ্টা ধরে বিমানের ফ্লাইটে আটকা যাত্রীরা, খাওয়া নেই-এসি বন্ধ

Md Adnan Rahman

১৯ জুলাই ২০২২, ১২:৪৩ এএম


৩ ঘণ্টা ধরে বিমানের ফ্লাইটে আটকা যাত্রীরা, খাওয়া নেই-এসি বন্ধ

ভারতের কলকাতায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে তিন ঘণ্টা ধরে আটকে আছেন যাত্রীরা। ফ্লাইটের ভেতরে থাকা যাত্রীদের বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। দেওয়া হচ্ছে না তেমন কোনো খাবার। ফলে দুর্বিষহ সময় কাটাচ্ছেন তারা।

সোমবার স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টার পর থেকে কলকাতার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকে আছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-৩৯৬ ফ্লাইটটি।

কলকাতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে, ফ্লাইটটি স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৩৫ মিনিটে কলকাতা থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হওয়ার কথা ছিল। তবে ফ্লাইট ছাড়ার আগ মুহূর্তে কারিগরি ত্রুটির কথা জানানো হয় এবং বিলম্বে ছাড়বে বলা হয়।

আরও পড়ুন :  ‘দুই বিমানের সংঘর্ষ কেন’, এবার তদন্তে বিমান মন্ত্রণালয়

ঘণ্টাখানেক পর ফ্লাইটটি আবারও ঢাকার উদ্দেশে রওনা হওয়ার প্রস্তুতি নেয়। তবে রানওয়েতে গিয়ে ফ্লাইটটি আবারও কারিগরি ত্রুটির কথা বলে উড্ডয়ন বাতিল করে বোর্ডিংয়ের কাছে ফিরে আসে।

সর্বশেষ স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ১১টা পেরিয়ে গেলেও ফ্লাইটটি ছেড়ে যায়নি। ফ্লাইটটি বিমানের বোয়িং-৭৩৭ মডেলের উড়োজাহাজ দিয়ে পরিচালনা করার কথা ছিল। এতে দেড় শতাধিক যাত্রী রয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন।

আরও পড়ুন :  যে কারণে সরিয়ে দেওয়া হলো বিমানের এমডিকে

ফ্লাইটের যাত্রী শওকত হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, ৪৫ মিনিট অপেক্ষা করার পর বলল কারিগরি ত্রুটি। এক ঘণ্টা পরও চেষ্টা করেও ফ্লাইট চালাতে পারেনি। এখানে অনেক রোগী আছেন, তারা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। অনেক বাচ্চা আছে, তারাও অস্বস্তিতে আছে। গ্রাউন্ড ইলেকট্রিসিটি নেই বলে এসি চলছে না, লাইট ছিল না। কিছুক্ষণ আগে লাইট এসেছে। বর্তমানে আমরা প্লেনের ভেতর বন্দি আছি। আমাদের নামতে দেওয়া হচ্ছে না। আমাদের ঢাকায় নেওয়ার কোনো ব্যবস্থা করা হচ্ছে না।

কলকাতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের স্টেশন ম্যানেজার ঢাকা পোস্টকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ফ্লাইটটি কারিগরি ত্রুটির কারণে ছাড়তে পারেনি। একজন অসুস্থ হন বলে আমরা জানতে পারি। সংবাদ পেয়ে প্লেনের সামনে চিকিৎসক ও অ্যাম্বুলেন্স পাঠানো হয়। কিছুক্ষণ পর চিকিৎসক ঢুকে ওই রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। তিনি বর্তমানে সুস্থ আছেন।
 
এআর/আরএইচ

Link copied