লাঙ্গলবন্দের অষ্টমী স্নানে লাখো পুণ্যার্থীর ঢল

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

০৯ এপ্রিল ২০২২, ০৯:৪১ পিএম


লাঙ্গলবন্দের অষ্টমী স্নানে লাখো পুণ্যার্থীর ঢল

‘হে মহাভাগ ব্রহ্মপুত্র, হে লৌহিত্য আমার পাপ হরণ কর’ এ মন্ত্র উচ্চারণের মধ্য দিয়ে জগতের যাবতীয় সংকীর্ণতা ও পঙ্কিলতার আবরণে ঘেরা জীবন থেকে পাপমুক্তির বাসনায় সনাতন ধর্ম্বাবলম্বীদের পুন্যার্থীরা ব্রহ্মপুত্র নদে অষ্টমী স্নান করেছেন।

পাপ মোচনের আশায় নারায়ণগঞ্জে ব্রহ্মপুত্র নদে প্রতি বছরের মতো এবারও চৈত্র মাসের শুক্লা অষ্টমী তিথিতে স্নান করতে এসেছেন দেশ-বিদেশের সনাতন ধর্মালম্বীদের লাখ লাখ পুন্যার্থী। করোনার কারণে দুই বছর পর এবার ব্রহ্মপুত্রের তীর লাঙ্গলবন্দে এই স্নানোৎসব হচ্ছে। 

শুক্রবার রাত ৯টা ১১ মিনিট ৫৭ সেকেন্ডে স্নানের লগ্ন শুরু হয়। লগ্ন শেষ হবে শনিবার রাত ১১টা ৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ডে। এ সময়ের মধ্যে লাঙ্গলবন্দের ১৮টি ঘাটে তীর্থযাত্রীরা স্নানপর্ব সারবেন। 

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা স্নানোৎসবে অংশ নিয়েছেন। ফুল, বেলপাতা, ধান, দুর্বা, হরিতকি, ফলসহ পুণ্যার্থীরা স্নান করতে ব্রহ্মপুত্র নদে নামছেন। এছাড়াও স্নানঘাটগুলোতে হচ্ছে বাসন্তী পূজা। 

চার দশক ধরে স্নানে আসা অনেক বয়োবৃদ্ধ পুন্যার্থী জানান,  তখন নৌকা করে এসে দুই তিনদিন থেকে তারপর আমরা যেতাম। দুই বছর ধরে করোনায় আসতে পারিনি। স্নান করলাম। পরিবারের সকলের জন্য মঙ্গল কামনা করেছি।

এদিকে স্নানোৎসবকে কেন্দ্র করে তিন কিলোমিটার এলাকায় নদের তীরে বসেছে মেলা। মেলায় ঐতিহ্যবাহী শীতল পাটি, মাটির তৈরি বিভিন্ন তৈজসপত্র, খেলনা বিক্রি হচ্ছে। লাঙ্গলবন্দের বিভিন্ন মন্দিরগুলোতে চলছে ভক্তিমূলক গান। সেবাশ্রমগুলো থেকে বিতরণ করা হচ্ছে খিচুড়ি, দুধ, পানিসহ বিভিন্ন খাবার। অষ্টমীর স্নান উপলক্ষে লাঙ্গলবন্দ এলাকাজুড়ে বিরাজ করছে উৎসবমুখর পরিবেশ।

অপরদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উভয় মুখে শনিবার দিনভর ছিল ব্যাপক যানজট। প্রায় ২৫ কিলোমিটার রাস্তায় সৃষ্টি হয়েছে যানজট। ফলে কয়েক কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে পুণ্যার্থীদের স্নান ঘাটে আসতে হয়। এছাড়াও পুণ্যার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে। 

লাঙ্গলবন্দ স্নান উদযাপন পরিষদের সভাপতি ষড়জ কুমার সাহা বলেন, এই বছর ৮ থেকে ১০ লাখ পুণ্যার্থীর সমাগম হয়েছে। দুই বছর করোনা মহামারিতে বন্ধ থাকা ও সপ্তাহের ছুটির দিন হওয়ায় ভক্ত সমাগম বেশি হয়েছে। 

তিনি বলেন, এই পুণ্যার্থীদের জন্য ৪০টি সেবাক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। ৩০০ স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন। নিরাপত্তায় পুলিশ, র‌্যাব, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা আছেন। সিভিল সার্জনের পক্ষ থেকে মেডিকেল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়াও বিআইডব্লিউটিএ, ফায়ার সার্ভিসসহ অন্যান্য প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠানগুলোও আছে। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। আশা করছি শান্তিপূর্ণভাবে স্নানোৎসব সমাপ্ত হবে। 

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলেন, এখানে দেশি-বিদেশি সনাতন ধর্মাবলম্বী পুণ্যার্থী এসেছেন। তাদের নিরাপত্তায় লাঙ্গলবন্দ এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। এখানে ১৫০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ৩০টি সিসিটিভি ক্যামেরা আছে। ওয়াচ টাওয়ারসহ সাদা পোশাকে গোয়েন্দা পুলিশ টহল দিচ্ছে। এছাড়াও নৌ-পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, কোস্টগার্ডও কাজ করছে। কোনো ধরনের যেন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না হয় সেজন্য আমরা সচেষ্ট আছি।

মহাসড়কে যানজট সম্পর্কে তিনি বলেন, একদিনের উৎসবে ৫ থেকে ৭ লাখ লোক সমাগম হয়েছে। দূর-দূরান্ত থেকে যারা গাড়ি নিয়ে আসছেন। তাদের গাড়িগুলো মহাসড়কে রেখে স্নানে যাওয়ায় যানজট সৃষ্টি হয়েছে। তবে আমরা সেই গাড়িগুলো পার্কিংয়ে পাঠিয়ে দিয়ে যানজট নিরসনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

রাজু আহমেদ/আরএআর

Link copied