নির্ভুল ভোটার তালিকা অবাধ ও স্বচ্ছ নির্বাচনের পূর্বশর্ত

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা 

২০ মে ২০২২, ০৪:৪৯ পিএম


নির্ভুল ভোটার তালিকা অবাধ ও স্বচ্ছ নির্বাচনের পূর্বশর্ত

নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আহসান হাবিব খান (অব.) বলেছেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশন স্বচ্ছতায় বিশ্বাসী, নিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী এবং সঠিকভাবে নির্বাচন পরিচালনায় বিশ্বাসী। একটি নির্ভুল ভোটার তালিকা অবাধ ও স্বচ্ছ নির্বাচনের পূর্বশর্ত।

শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে খুলনা জেলা শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচি-২০২২ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনসহ যেকোন নাগরিক সেবায় জাতীয় পরিচয়পত্র আবশ্যক। তাই সঠিকভাবে তথ্য নিতে হবে। তিনি তথ্য সংগ্রহকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সঠিকভাবে তথ্য নিতে প্রমাণ হিসেবে পাসপোর্ট, জন্মনিবন্ধন অথবা এসএসসি সনদের সাহায্যে ব্যক্তির নামের বানান ও আনুষঙ্গিক তথ্য যাচাই করা যেতে পারে। ইভিএম একটি গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে ইভিএমের ব্যবহার যেকোনো পর্যায়ে দলমত নির্বিশেষে সব দলের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করে।

খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মো. ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান ভূঁইয়া, রেঞ্জ ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন, কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা লস্কার তাজুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার, পুলিশ সুপার মো. মাহবুব হাসান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আলমগীর কবির ও কেসিসির ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. আমিনুল ইসলাম মুন্না। অনুষ্ঠানে স্বাগত জানান আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মো. ইউনুচ আলী। ভোটার তালিকা হালনাগাদ বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করেন থানা নির্বাচন কর্মকর্তা সৌমেন বিশ্বাস ছন্দ।

নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, দেশে ৭ম বারের মতো ২০২২ সালের ২০ মে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচি শুরু হয়ে আগামী ৯ জুন পর্যন্ত চলবে। ১০ জুন থেকে ছবি তোলা শুরু হবে। এবারের ভোটার তালিকায় ১ জানুয়ারি ২০০৫ তারিখের পূর্বে জন্মগ্রহণকারী ব্যক্তিদের নাম অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

সূত্রটি জানায়, প্রথম পর্যায়ে খুলনা বিভাগের ৬২টির মধ্যে ১৮টি থানা/উপজেলার ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধন করা হবে।

খুলনা বিভাগের ১৮টি উপজেলা-থানার মধ্যে রয়েছে খুলনা সদর, সোনাডাঙ্গা ও দৌলতপুর থানা। এ ছাড়া মেহেরপুরের গাংনী, কুষ্টিয়া সদর, কুমারখালী, চুয়াডাঙ্গা সদর, ঝিনাইদহের কালিগঞ্জ, হরিণাকুন্ডু, যশোর সদর, অভয়নগর ও বাঘারপাড়া, মাগুরা সদর, নড়াইল সদর, বাগেরহাট সদর, শরণখোলা, সাতক্ষীরা সদর ও তালা উপজেলা।

খুলনা আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী জানান, ২০ মে থেকে তথ্য সংগ্রহ শুরু করে শেষ হবে ৯ জুন। এরপর ১০ জুন থেকে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে খুলনা বিভাগের অবশিষ্ট ৪৪টি উপজেলা/থানার তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে।

২০ নভেম্বরের মধ্যে খুলনা বিভাগের ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে এবং ভোটার স্থানান্তর ও মৃত ভোটার কর্তন কার্যক্রম ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে। নিবন্ধিত নাগরিকদের মধ্যে ২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি যাদের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হবে শুধুমাত্র তাদের তালিকা ২ জানুয়ারি খসড়া ভোটার হিসেবে প্রকাশ করা হবে।

এ ছাড়া দাবি-আপত্তি নিস্পত্তি করে ২ মার্চ চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে। অন্যদিকে যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে থাকবে তারা জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্য হবেন কিন্তু ভোটার তালিকাভূক্ত হবেন না, বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হওয়া সাপেক্ষে তারা ২০২৪ সালের ২ মার্চ এবং ২০২৫ সালের ২ মার্চ চূড়ান্ত ভোটার তালিকাভূক্ত হবেন।

তিনি বলেন, ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম একটি বিশাল কর্মযজ্ঞ। এ কার্যক্রম সুষ্ঠু-সুন্দর ও নির্ভুলভাবে সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার বিশেষ করে বিভাগীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, শিক্ষা বিভাগ, আনসার ও ভিডিপি বিভাগসহ জনপ্রতিনিধিদের একান্ত সহযোগিতা প্রয়োজন।

মোহাম্মদ মিলন/আরআই

Link copied