মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে পটুয়াখালী-বরগুনা রুটে বাস চলাচল বন্ধ

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, বরগুনা

২৫ মে ২০২২, ০৭:২৮ পিএম


মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে পটুয়াখালী-বরগুনা রুটে বাস চলাচল বন্ধ

দুই জেলার মালিক সমিতির দ্বন্দ্বে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে বরগুনা-পটুয়াখালী রুটে। বুধবার (২৫ মে) সকাল থেকে কুয়াকাটা-পটুয়াখালী-আমতলী-তালতলী রুটে সব বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে এই রুটে চলাচলকারী হাজার হাজার যাত্রী।

জানা যায়, বরগুনা ও পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির মধ্যে বাস চলাচল নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এ নিয়ে ২০২১ সালে ঢাকায় বাসমালিক সমন্বয় পরিষদের এক সভায় দুই জেলার বাস মালিক সমিতির মধ্যে একটি সমঝোতা করে। সমঝোতা অনুযায়ী বরিশাল-কুয়াকাটা-পটুয়াখালী-আমতলী-তালতলী রুটে আনুপাতিক হারে দুই জেলার বাস মালিক সমিতি বাস পরিচালনা করবে।

তবে বরগুনা বাস মালিক সমিতির অভিযোগ, এ পর্যন্ত ঠিকভাবে বাস চলাচল করলেও গত ১৮ মে থেকে উল্লিখিত রুটে বাস চলাচলে বাধা দেয় পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতি। তারা বরগুনা বাস মালিক সমিতির সব বাস পটুয়াখালী বাসস্ট্যান্ডে আটকে রাখার অভিযোগ করে।

এই দ্বন্দ্বের জের ধরে বুধবার সকাল থেকে বরগুনা বাস মালিক সমিতির লোকজন ও শ্রমিকরা বরিশাল-পটুয়াখালী-কুয়াকাটা-তালতলী রুটে চলাচলকারী পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির সব বাস আমতলী হাসপাতাল সড়কের সামনে আটকে চলাচল বন্ধ করে দেন। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে এই রুটে চলাচলকারী হাজার হাজার যাত্রীরা। নিরুপায় হয়ে বাসযাত্রীরা অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহনে তাদের গন্তব্যে যাচ্ছে।

পটুয়াখালীগামী যাত্রী সজীব আহম্মেদ বলেন, চোখের ডাক্তার দেখাতে এক আত্মীয়কে নিয়ে পটুয়াখালী যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু বাস চলাচল বন্ধ থাকায় রিজার্ভ করে অটোরিকশা ভাড়া নিয়ে তারপর পটুয়াখালী যেতে হচ্ছে৷ এতে অতিরিক্ত টাকা ও সময় খরচ হচ্ছে। 

আরেক যাত্রী আরিফ হোসেন বলেন, আমি পটুয়াখালীর একটি শোরুমে চাকরি করি। ছুটি নিয়ে বরগুনা এসেছিলাম। এখন বাস চলাচল বন্ধ থাকায় তিন গুণ বেশি ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেলে যেতে হচ্ছে। 

বরগুনা বাস মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা কিসলু বলেন, পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতি আমাদের সঙ্গে খামখেয়ালি করে বাস চলাচলে সমস্যা তৈরি করছেন। এক সপ্তাহ ধরে তারা আমাদের সব বাস আটকে রেখে হয়রানি করছে। আমাদের বাস পটুয়াখালী গেলে তা আটকে দিচ্ছে। 

পটুয়াখালী বাস মালিক সমিতির সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন মৃধা মুঠোফোনে বলেন, বরগুনা বাসমালিক সমিতি পটুয়াখালী-আমতলী-তালতলী রুটে নির্ধারিত সংখ্যার চেয়ে বেশি পরিমাণ বাস নামিয়ে সড়কে পরিচালনা করছে। আমরা তাদের বাস আটকাইনি। উল্টো তারা আমাদের সব বাস আটকে রেখেছে।

এ বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, পটুয়াখালী ও বরগুনা বাস মালিক সমিতির মধ্যে দ্বন্দ্ব রয়েছে। এ কারণে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। যাত্রীদের দুর্ভোগ নিরসনে পটুয়াখালী এবং বরগুনা বাস মালিক সমিতির সঙ্গে আলোচনা করে বাস চলাচলের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এনএ

Link copied