মা ইলিশ পাহারায় থাকবে অতিরিক্ত দেড় হাজার নৌ পুলিশ

Dhaka Post Desk

জেলা প্রতিনিধি, চাঁদপুর 

০১ অক্টোবর ২০২২, ০৩:১৬ এএম


মা ইলিশ পাহারায় থাকবে অতিরিক্ত দেড় হাজার নৌ পুলিশ

মা ইলিশ রক্ষা অভিযান সফল করতে নিয়মিত দায়িত্বের বাইরে নৌ পুলিশের আরও দেড় হাজার সদস্য মোতায়েন করা হবে। এমনটি জানিয়েছেন দিয়েছেন নৌ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি পংকজ চন্দ্র রায়। 

শুক্রবার বিকেলে চাঁদপুর সদর উপজেলার রাজরাজেশ্বর চরে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষে আয়োজিত সচেতনতামূলক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনের বিষয়টি জানান। 

চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনাসহ অভিযানের আওতায় থাকা নদীগুলোতে মা ইলিশ রক্ষায় দায়িত্ব পালন করবেন নৌ পুলিশের এ সদস্যরা। 

নৌ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি পংকজ চন্দ্র রায় বলেন, মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান সফল করতে আমরা বদ্ধপরিকর। আমরা আশা করি, জেলে ভাইয়েরা নিষেধাজ্ঞাকালে নদীতে ইলিশসহ সব প্রকার মাছ ধরা থেকে বিরত থাকবেন। 

তিনি বলেন, মা ইলিশ ডিম ছাড়ার সুযোগ না পেলে আগামীতে নদীতে ইলিশ পাওয়া যাবে না। একইসঙ্গে জাটকা সংরক্ষণ করতে হবে। তাহলেই নদীতে ইলিশ মাছ বাড়বে। তখন আরও বেশি পরিমাণে ইলিশ আহরণ করা যাবে। 

তিনি আরও বলেন, ইলিশের ডিম ছাড়ার জন্য চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার অংশ অনেক গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে অনেক অসাধু জেলে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নদীতে নামার চেষ্টা করেন। কেউ যদি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নদীতে ইলিশ ধরতে নামেন, তবে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিষেধাজ্ঞাকালে কোনো পুলিশ সদস্য যদি অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করেন, তার বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন নৌ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি পংকজ চন্দ্র রায়। 

রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হযরত আলীর সভাপতিত্বে ও চাঁদপুর নৌ থানার ওসি কামরুজ্জামানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় গেস্ট অব অনারের বক্তব্য রাখেন নৌ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের পুলিশ সুপার আকতারুজ্জামান বসুনিয়া।
 
প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর নৌ অঞ্চলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কামরুজ্জামান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ হেলাল চৌধুরী, সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা তানজিমুল ইসলাম, চাঁদপুর মডেল থানার ওসি তদন্ত সুজন কান্তি রায়, এখন টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার তালহা জুবায়ের প্রমুখ। 

সভায় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের পাশাপাশি জেলেরা উপস্থিত ছিলেন। পরে সবার অংশগ্রহণে একটি শোভাযাত্রা বের হয়। অতিথিরা স্থানীয় জেলেদের মাঝে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করেন।

আগামী ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২দিন চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনার ৭০ কিলোমিটারসহ নির্ধারিত নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ।

আনোয়ারুল হক/আরএইচ  

Link copied