সিনেমার কৌশলে ভল্টের টাকা গায়েব করেছে তারা

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

১৯ জুন ২০২১, ১১:৩৮ পিএম


সিনেমার কৌশলে ভল্টের টাকা গায়েব করেছে তারা

ব্রিফকেসের ভেতর সাদা কাগজের বান্ডিলের দুই পাশে ৫০০ কিংবা ১০০০ টাকার নোট। নাটক ও সিনেমায় এমন দৃশ্যের সঙ্গে কম-বেশি সবাই পরিচিত।

সিনেমার এমন দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি ঘটেছে ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখায়। আসামিরা ভল্টের ৩ কোটি ৭৭ লাখ টাকা গায়েব করতে এই অভিনব কৌশলের আশ্রয় নিয়েছিলেন। ভল্টের ১০০ টাকার বান্ডিলের দুইপাশে ৫০০ টাকার নোট ও ৫০০ টাকার বান্ডিলের দুইপাশে ১০০০ টাকার নোট রেখে সবাইকে প্রতিনিয়ত বোকা বানিয়ে গেছেন। ২০২০ সালের আগস্ট থেকে ২০২১ সালের ১৬ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন সময় আসামিরা এমন কৌশলে ওই টাকা গায়েব করেছেন। বিপরীতে ব্যাংকের ক্যাশ খাতায় হিসাব মিলিয়ে রাখতেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমন সব তথ্য-উপাত্ত। যে কারণে ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখার ভল্ট থেকে তিন কোটি ৭৭ লাখ টাকা গায়েবের ঘটনায় মামলা করেছে সংস্থাটি। মামলায় আটক করা দুই জনকে আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন- ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের এফভিপি ও বংশাল শাখার ম্যানেজার (অপারেশন) এমরান আহম্মেদ এবং সিনিয়র অফিসার ও ক্যাশ ইনচার্জ রিফাতুল হক।

শনিবার (১৯ জুন) দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মো. আতিকুল আলম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। দুদকের জনসংযোগ দফতর ঢাকা পোস্টকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ব্যাংকটির বংশাল শাখার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক গত ১৭ জুন বাদী হয়ে রিফাতুল হক ও এমরান আহম্মেদকে আসামি করে বংশাল থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন। রিফাত ওই শাখায় ২০১৮ সালের ৩১ অক্টোবর থেকে কর্মরত আছেন। গত ১৭ জুন আইসিসি ডিভিশনের ইন্টারনাল অডিট অ্যান্ড ইন্সপেকশন ইউনিট বাৎসরিক নিরীক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে বংশাল শাখা পরিদর্শনে যায়। তদন্তে ইউনিট শাখার ভল্টে মোট ৩ কোটি ৭৭ লাখ ৬৬ হাজার টাকার অসামঞ্জস্যতা পায়। তাৎক্ষনিক জিজ্ঞাসাবাদে সত্যতা স্বীকার করেন রিফাতুল হক। ২০২০ সালের আগস্ট থেকে ২০২১ সালের ১৬ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন সময় অল্প অল্প করে টাকা সরান তিনি।

প্রাথমিকভাবে দেখা যায়, আসামিরা ভল্টের টাকা সরানোর জন্য অভিনব কৌশলের আশ্রয় নেন। ভল্টে ১০০ টাকার বান্ডিলের দুইপাশে ৫০০ টাকার নোট ও ৫০০ টাকার বান্ডিলের দুইপাশে ১০০০ টাকার নোট দেখিয়ে টাকার হিসাব মিলিয়ে রাখতেন। অর্থাৎ ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোটের সংখ্যা বেশি দেখিয়ে কাগজে-কলমে হিসাব সঠিক করে রাখতেন। যাতে প্রাথমিকভাবে দেখে মনে হয় সব ঠিকই আছে। আর ভল্টের চাবির দুই সেট রিফাতুল ও এমরান আহম্মেদের কাছে রক্ষিত ছিল। তারা যৌথভাবে ভল্টের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তাই ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রতারণার মাধ্যমে ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের বংশাল শাখার ভল্টে রক্ষিত টাকা থেকে ৩ কোটি ৭৭ লাখ ৬৬ হাজার টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/১০৯ ধাৱা এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ১৯৪৭ এর ৫ (২) ধারায় তাদের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়।

গত ১৮ জুন ঢাকা ব্যাংকের বংশাল শাখার ভোল্ট থেকে তিন কোটি ৭৭ লাখ টাকা গায়েব হয়ে গেছে বলে অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় ইমরান ও রিফাতকে আটক করা হয়। প্রাথমিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। শুক্রবারই (১৮ জুন) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ উর রহমান তাদের কারাগারে পাঠান।

আরএম/এমএইচএস

Link copied