অতিরিক্ত পালংশাক খেলে কী হয়?

Dhaka Post Desk

লাইফস্টাইল ডেস্ক

২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১২:৩৭ পিএম


অতিরিক্ত পালংশাক খেলে কী হয়?

সবুজ শাক সব সময়ই স্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে পরিচিত। কিন্তু সুস্থ থাকার মানে এই নয় যে. আপনি প্রতিদিন তিনবেলা এগুলো খাবেন! কারণ কোনো খাবার অতিরিক্ত গ্রহণ করলে তা আপনার স্বাস্থ্যকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে এবং সবুজ শাকের ক্ষেত্রেও এটি দেখা যায়। 

পালং শাক এমনই একটি শাক যা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভীষণ উপকারী। তবে এর উপকারিতা পেতে সাবধানে এবং সীমিত খাওয়া দরকার। এই শাক কাঁচা এবং রান্না উভয়ভাবেই খাওয়া যেতে পারে। সেইসঙ্গে এটি দিয়ে স্মুদি, স্যুপ তৈরি করতে পারেন, অমলেটে যোগ করতে পারেন বা মসুর ডাল এবং অন্য যেকোনো শাকসবজির সঙ্গে রান্না করতে পারেন। এবার জেনে নিন অতিরিক্ত পালংশাক খেলে কী হয় এবং কাদের এটি এড়ানো উচিত-

পালং শাক খাওয়ার স্বাস্থ্য উপকারিতা

পালং শাককে সুপারফুড বলার অনেক কারণ রয়েছে। যেমন এতে ক্যালোরি কম, এটি স্বাস্থ্যকর পুষ্টিতে ভরপুর এবং অনেক উপায়ে আপনার স্বাস্থ্য ভালো রাখে। এটি ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, ভিটামিন এ, সি এবং কে-এর মতো প্রয়োজনীয় খনিজ এবং ভিটামিন সমৃদ্ধ। নিয়মিত এই সুপারফুড খেলে তা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে, স্বাস্থ্য বজায় রাখতে, ওজন কমাতে সাহায্য করতে পারে এবং রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ায়। পালং শাকের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকায় এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করতে পারে।

Dhaka Post

পালং শাক বেশি খেলে কী হয়

প্রতিদিন এক বাটি পালং শাক খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয় বা কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও হয় না। তবে প্রতিদিন অতিরিক্ত পালং শাক খেলে তা ধীরে ধীরে এভাবে আপনার স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে:

পুষ্টির ঘাটতি

পালং শাকে রয়েছে অক্সালিক অ্যাসিড, যা উদ্ভিদে প্রাকৃতিকভাবে ঘটে যাওয়া যৌগ। শরীরে এই যৌগের পরিমাণ স্বাভাবিক মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে তা শরীরের অন্যান্য খনিজ শোষণের ক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে শুরু করে। অক্সালিক অ্যাসিড জিঙ্ক, ম্যাগনেসিয়াম এবং ক্যালসিয়ামের সঙ্গে আবদ্ধ হলে খনিজ ঘাটতি হতে পারে।

অ্যালার্জি

সবুজ শাক-সবজিতে হিস্টামিন থাকে, যা শরীরের কিছু কোষে পাওয়া যায় এমন একটি রাসায়নিক। এটি কিছু ক্ষেত্রে সামান্য অ্যালার্জির প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে।

বিষাক্ত প্রতিক্রিয়া

খুব বেশি পালং শাক একবারে বা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে খেলে শরীরে বিষাক্ত প্রভাব পড়তে পারে।

পেটের সমস্যা

অতিরিক্ত পালং শাক খেলে তা গ্যাস, পেট ফোলাভাব এবং ক্র্যাম্পের কারণ হতে পারে। এই শাক উচ্চ ফাইবার সামগ্রীর কারণে পেটের এই সমস্যাগুলোও হতে পারে। জেনে নিন কখন পালং শাক এড়িয়ে চলবেন-

Dhaka Post

যদি কিডনিতে পাথরের ইতিহাস থাকে

পালং শাক বেশি খাওয়ার কারণে যখন শরীরে অক্সালিক অ্যাসিড বেশি থাকে, তখন এটি সিস্টেম থেকে বের করে দেওয়া আমাদের শরীরের জন্য কঠিন হয়। এর ফলে কিডনিতে ক্যালসিয়াম অক্সালেট স্টোন জমা হয়, যা কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়।

যদি জয়েন্টের সমস্যায় ভোগেন

অক্সালিক অ্যাসিডের পাশাপাশি পালং শাকেও প্রচুর পিউরিন রয়েছে। এটি এক ধরনের যৌগ। এই দুটি যৌগ একসাথে গেঁটেবাত বাড়িয়ে তুলতে পারে। যারা ইতিমধ্যে জয়েন্টে ব্যথা, ফোলাভাব এবং প্রদাহে ভুগছেন, তাদের জন্য অতিরিক্ত পালংশাক খাওয়া ক্ষতিকর।

যদি রক্ত ​​পাতলা করার ওষুধ গ্রহণ করেন

ভিটামিন কে-এর একটি সমৃদ্ধ উৎস হওয়ায়, পালং শাক অ্যান্টিকোয়াগুল্যান্ট ওষুধের সঙ্গে প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে, যা রক্ত ​​পাতলা করার উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়। এটি রক্তে উপস্থিত অন্যান্য জমাট বাঁধার কারণকেও প্রভাবিত করতে পারে।

Link copied