তরুণীর পোশাক নিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনায় বিচারের দাবি

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ মে ২০২২, ০৬:৪৬ পিএম


তরুণীর পোশাক নিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনায় বিচারের দাবি

নরসিংদীতে তরুণীর পোশাক নিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনায় বিচারের দাবি জানিয়েছেন নারী নেত্রীরা। সোমবার (২৩ মে) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রগতিশীল নারী সংগঠনসমূহের ব্যানারে আয়োজিত এক বিক্ষোভ সমাবেশে এ দাবি জানান তারা।

সমাবেশে বিপ্লবী নারী ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমেনা আক্তার বলন, নরসিংদীর ঘটনায় আমরা লজ্জিত। আমাদের সমাজে লিঙ্গ বৈষম্য এবং ধর্মীয় বিদ্বেষ দূর করতে না পারলে মানুষ হিসেবে আমরা বাঁচতে পারব না। বর্তমানে দেশের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে নারীরা ভালো অবস্থানে আছে। এ রাষ্ট্রে নারী এবং শিশুরা কুসংস্কারের শিকার হচ্ছে সেটিও রুখে দিতে হবে। এমন ঘটনাগুলোতে প্রশাসন নির্বিকার থাকে। গণমাধ্যম এবং মানুষ যখন ক্ষুব্ধ হয় তখন সরকারের টনক নড়ে। ৫৪ ধারার মামলা দিয়ে কোর্টে উঠেছে। এটাও একটা ঘৃণ্য কাজ হয়েছে।

গার্মেন্টস শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের সভাপতি শবনম হাফিজ বলেন, পারিবারিক সামাজিক এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে সব জায়গাতেই নারীদের হেনস্তার শিকার হতে হয়। সমাজের কিছু পুরুষ নারীদের সম্মান ও শ্রদ্ধা করতে জানে না। পুরুষদের একটা অংশের মাঝে কর্তৃত্বপরায়ণ ভাবনা আছে, এটা দূর করতে হবে। নারীদের হাতে একটা ঝাঁটা  রাখতে হবে এ ভাবনা দূর করতে।

সমাজতান্ত্রিক মহিলা পরিষদের দপ্তর সম্পাদক রোখসানা আফরোজা বলেন, লাঞ্ছিত তরুণী শারীরিক নিপীড়নের পাশাপাশি মানসিক নিপীড়ন বেশি হয়েছে। সেই তরুণী বেড়াতে গিয়েছিলেন। তার পোশাক খুলে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। নিজের ইচ্ছা এবং পছন্দের জীবন যাপন করা সাংবিধানিক অধিকার। সবার রুচি এবং সংস্কৃতি এক নয়। পছন্দের পোশাক পরা অপরাধ নয়, পোশাক নিয়ে কটূক্তি বা হেনস্তা করা অপরাধ। রাষ্ট্রে পরিকল্পিতভাবে নারীকে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক করে রাখা হয়েছে। কোথাও বলা হয়নি, নারী-পুরুষ সমান। সম্পত্তিতে নারীর অধিকার দেওয়া হয়নি। ওয়াজ মাহফিলের নামে নারীবিদ্বেষী মনোভাব ছড়ানো হয়। এটা প্রতিহত করতে সরকারের কোন তৎপরতা নেই।

তিনি আরও বলেন, নাটক, সিনেমা ও বিজ্ঞাপনে নারীরা পণ্য। পাঠ্যবইয়ে নারীর সংগ্রাম নেই, প্রীতিলতা, জাহানারা ইমাম, বেগম রোকেয়ার লড়াই পাঠ্যবইয়ে নেই। নরসিংদির ঘটনা বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। পোশাকে সমস্যা হলে, তনুর কী অপরাধ ছিল। চিন্তার সংকট আছে সমাজ ও রাষ্ট্রের।

সমাবেশের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাকসুদা আক্তার লাইলী বলেন, একজন নারী পরিবারের সবাইকে ভালো রাখতে সারাদিন কাজ করে। কিন্তু সে নারী ঘরের বাইরে নিগ্রহ ও বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। যে পরিবারে নারী সম্মান পায়, সে পরিবারের সন্তান নিপীড়ন করে না। নারী-পুরুষকে সমমর্যাদা দিয়ে দেশকে সমতাভিত্তিক সমাজ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এ জন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে পাড়া মহল্লায়।

সমাবেশে আরও বিভিন্ন সংগঠনের নারী নেত্রীরা বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (১৮ মে) ঢাকা থেকে বেড়াতে যাওয়া ঢাকাগামী ট্রেনের জন্য অপেক্ষমাণ তরুণীকে পরিহিত পোশাকের জন্য নরসিংদী রেলস্টেশনে তার দুই বন্ধুসহ হেনস্থার শিকার হতে হয়েছে। পরে মেয়েটি দৌড়ে স্টেশন মাস্টারের কক্ষে গিয়ে নিজেকে উগ্রজনতার হাত থেকে রক্ষা করেন।

এমএইচএন/আইএসএইচ

Link copied