ভোগান্তি ভেবে কাটেননি টিকিট, বাড়ি যাবেন না অনেক বাইকার

Dhaka Post Desk

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

০৬ জুলাই ২০২২, ১০:২৩ পিএম


ভোগান্তি ভেবে কাটেননি টিকিট, বাড়ি যাবেন না অনেক বাইকার

কয়েকবছর ধরে ঈদের দুয়েকদিন আগে ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল নিয়ে ঢাকা থেকে বগুড়ায় যান রাইড শেয়ারিংয়ের চালক হাসিবুর রহমান। কিন্তু এবার যেতে পারছেন না। কেননা, সরকার এবারের ঈদে সাত দিন মহাসড়কে এক জেলা থেকে আরেক জেলায় মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

শুধু হাসিবুরই নন, তার মতো অনেকে এবারের ঈদে মোটরসাইকেলে বাড়ি যেতে পারছেন না। বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ডজনখানেক বাইকারের সঙ্গে কথা বলে এমনটি জেনেছে ঢাকা পোস্ট।

হাসিবুর ঢাকা পোস্টকে বলেন, ঈদে বাড়ি যেতে ভোগান্তি নিয়ে অগ্রিম টিকিট কাটতে হয়। তবুও লাইনে দাঁড়িয়েও অনেকে টিকিট পান না। ভরসা ছিল মোটরসাইকেল নিয়েই প্রতিবারের মতো বাড়ি যাব। কিন্তু এবার বাইক চলাচল বাতিল হয়েছে। আর লাইনে দাঁড়িয়েও ট্রেনের টিকিট পাইনি, যানজট হয় তাই বাসের টিকিটও কাটিনি। ফলে এবার আর ঈদ করতে বাড়িতে যাওয়া হচ্ছে না।

রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনাল এলাকায় এনামুল হক নামে এক রাইডারের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, প্রতিবার ঈদের দুয়েকদিন আগে গ্রামের বাড়ি বগুড়ায় যাই। বছরের অন্য সময় ঢাকায় রাইড শেয়ারিং ও চুক্তিভিত্তিক যাত্রী পরিবহন করি, এটিই আমার পেশা। দুই ঈদসহ বছরে তিন-চারবার বাড়ি যাই। এবার নিষেধাজ্ঞার কারণে ঈদে বাড়ি যাওয়া হবে না। কারণ ঈদের সময় অগ্রিম টিকিট কেটে বাসে বা ট্রেনে বাড়ি যেতে হয় সবাইকে। ট্রেনের অগ্রিম টিকিট পাইনি, বাসেরও টিকিট করিনি। এসব কারণে আমার মতো অধিকাংশ বাইকারের ঈদে বাড়ি যাওয়া হচ্ছে না।

একটি বেসরকারি কোম্পানির মার্কেটিং বিভাগের চাকরিজীবী কামরুজ্জামান তমাল। তার গ্রামের বাড়ি নাটোর। তিনিও এবার ঈদে বাড়ি যাচ্ছেন না। আলাপকালে কামরুজ্জামান তমাল বলেন, ঈদ এলেই সবার এক ধরনের ভোগান্তি হয় ট্রেন ও বাসের অগ্রিম টিকিট কাটা নিয়ে। অনেকে টিকিট পান, আবার অনেকে পান না। সড়ক পথে তীব্র যানজট, ট্রেনের সফিউল বিপর্যয়ের নানান ঘটনা ঘটে। সব দিক বিবেচনা করে এবারের ঈদে স্ত্রীকে সঙ্গে করে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য মোটরসাইকেল বেছে নিয়েছি গত কয়েক বছর ধরে। এ বছর ঈদে সাত দিন এক জেলার মোটরসাইকেল অন্য জেলায় চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকায় ঈদ করতে বাড়িতে যেতে পারছি না। বাস-ট্রেনের অগ্রিম টিকিটও কাটিনি।

dhakapost

রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকায় কথা হয় মুনতাছির আহমেদ নামে এক মোটরসাইকেল চালকের সঙ্গে। তিনি বলেন, দূরের পথের চালকরা হেলমেটসহ নিরাপত্তা সরঞ্জাম ব্যবহার করেই বাইকে যাত্রা করেন। বাইকে করে ঈদ উদযাপনে গ্রামের বাড়িতে অনেকেই যান। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে এ বাইকাররা এবার তাদের পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

৩ জুলাই সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে (ভার্চুয়ালি) মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঈদযাত্রা নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আসন্ন ঈদুল আজহায় সাত দিন সারাদেশের মহাসড়কে যৌক্তিক কারণ ছাড়া মোটরসাইকেল না চালানোর পাশাপাশি এক জেলায় রেজিস্ট্রেশন করা মোটরসাইকেল অন্য জেলায় না চালানোর নির্দেশ দেয় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, ঈদের আগে ও পরে সাত দিন এক জেলা থেকে অন্য জেলায় মোটরসাইকেল চালানো যাবে না। বন্ধ থাকবে মহাসড়কে রাইড শেয়ারিং। ৭ জুলাই থেকে ১৩ জুলাই পর্যন্ত এটি বলবৎ থাকবে। সরকারি এ নির্দেশনা পরিপালনে আগামী ৭ জুলাই থেকে রাজধানীর প্রতিটি প্রবেশমুখে মোটরসাইকেল আটকানো হবে। তবে রাজধানীর আশপাশে ঢাকা জেলার অধীন কোনো গন্তব্যে চলাচলকারী যানবাহন এর আওতামুক্ত থাকবে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, বর্তমানে দেশে ৩৭ লাখের বেশি মোটরসাইকেল রাস্তায় চলছে। গণপরিবহন সংকট, বাস মালিকদের স্বেচ্ছাচারিতা, পদে পদে যাত্রী হয়রানি, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্য, রেলের টিকিট অব্যবস্থাপনা, শিডিউল বিপর্যয়, যানজটসহ নানা কারণে ক্রমে মানুষ মোটরসাইকেলের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে। তবে ঝুঁকিপূর্ণ এ বাহনটি কখনোই গণপরিবহনের বিকল্প হতে পারে না।

dhakapost

তিনি আরও বলেন, গত ঈদুল ফিতরে প্রায় ২৫ লাখ মোটরসাইকেল রাস্তায় নামার কারণে স্বস্তিদায়ক ঈদযাত্রা হলেও সড়ক দুর্ঘটনা বেড়েছে। আপাতত গণপরিবহন সংকট সমাধান না হওয়া পর্যন্ত ব্যক্তিগত মোটরসাইকেলে ঈদযাত্রা নিষিদ্ধ না করে বাহনটির স্পিড লিমিট করে দেওয়া, লাগেজ-ব্যাগেজ নিয়ে না যাওয়া, পরিবারের একাধিক সদস্য নিয়ে চলতে না দেওয়ার পাশাপাশি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে চলাচলের সুযোগ দেওয়া যেতে পারে। এর ফলে গণপরিবহনের অপ্রতুলতা-সঙ্কট সমাধান কিছুটা হলেও হবে। আর লাখ লাখ মানুষ বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সঙ্গে ঈদ করার সুযোগ পাবে।

একই বিষয়ে বাংলাদেশ সাধারণ নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, মোটরসাইকেল বন্ধ করে দেওয়া কোনো সঠিক সিদ্ধান্ত নয়, বরং নিয়ন্ত্রণ করে শৃঙ্খলায় আনা জরুরি। তাই বর্তমান সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে আলাদা লেন মেনে সুশৃংখলভাবে চালানোর নির্দেশনা দেওয়া যেতে পারে। না মানলে জেল জরিমানার জরুরি বিধান করা, অবৈধ লাইসেন্সবিহীন মোটরসাইকেল বন্ধে ঘন ঘন চেকপোস্ট বসানো, চলাচলের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা দিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অতিরিক্ত ক্ষমতা প্রদান করা যেতে পারে। তাই বলে পুরোপুরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক হয়নি। এতে করে লাখ লাখ মানুষ পরিবারের সঙ্গে ঈদ করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে।

এদিকে ঈদের আগে ও পরে মহাসড়কে সাতদিন মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবিতে মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছেন বাইকাররা। আয় কমার ভয়ে মহাসড়কে বাইক বন্ধ করিয়েছেন বাসমালিকরা, এমন অভিযোগও করা হয় ওই মানববন্ধন থেকে। 

এএসএস/আরএইচ

Link copied