১০ কোটি টাকার সম্পদ নিয়ে দুদকের কাঠগড়ায় অতিরিক্ত সচিব

FM Abdur Rahman Masum

২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১০:৫৯ পিএম


১০ কোটি টাকার সম্পদ নিয়ে দুদকের কাঠগড়ায় অতিরিক্ত সচিব

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মো. আবুল কালাম আজাদের ১০ কোটিরও বেশি টাকার সম্পদের খোঁজ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। তার দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে সোয়া ৮ কোটি টাকার গরমিল পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার তাকে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে ডাকা হয়।

হজ-ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধানে, ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারি সাবেক ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমানের একান্ত সচিব (পিএস) আবুল কালাম আজাদকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। সেই জিজ্ঞাসাবাদে তার বিরুদ্ধে আনিত দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন তিনি। পরবর্তীতে দুদকের অনুসন্ধানে তার অঢেল সম্পদের তথ্য পাওয়া যায়।  

দুদকের অনুসন্ধানে সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকে জমা ও নগদ মিলিয়ে আবুল কালাম আজাদের ৮ কোটি ৩০ লাখ ৬৪ হাজার টাকার সন্ধান মিলেছে। আয়কর বিবরণীতে এসব অর্থের ঘোষণা থাকলেও আয়ের প্রাথমিক উৎস দেখাতে পারেননি তিনি।

এছাড়া তার স্থাবর সম্পদও রয়েছে প্রায় ৮ কোটি টাকার। ধানমন্ডিতে দুই হাজার বর্গফুটের ফ্ল্যাট, কল্যাণপুরে বাড়ি ও পল্লবীতে প্লট আছে আবুল কালাম আজাদের। স্থাবর ও অস্থাবর মিলিয়ে সোয়া ৮ কোটি টাকার হিসাবে গরমিল রয়েছে বলে সন্দেহ করছে দুদক।

এসব সন্দেহভাজন স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বিষয়ে জানতে মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে ডাকা হয় আবুল কালাম আজাদকে। সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত প্রায় এক ঘণ্টা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা ও সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ জাফর সাদেক শিবলী।

আরও পড়ুন : ঢাকা ওয়াসায় সমিতির ৩৫৫ কোটি টাকা নয়-ছয়!

দুদকের ঊর্ধ্বতন একটি সূত্র ঢাকা পোস্টকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। যদিও এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি অনুসন্ধান কর্মকর্তা জাফর সাদেক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে দুদকের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ঢাকা পোস্টকে বলেন, হজ-ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতির অভিযোগের সূত্র ধরে আজাদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। অনুসন্ধানে সম্পদের বড় ধরনের গরমিলের তথ্য মেলে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের আগে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি। আজ তার সম্পদের বিষয়ে রেকর্ডপত্র চাওয়া হয়েছে। কিছু কিছু তিনি সরবরাহ করেছেন। তবে সকল তথ্য-উপাত্ত পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে আবুল কালাম আজাদকে ফোন করা হলে তিনি সেটি রিসিভ করেন কিন্তু কোনো প্রশ্নের উত্তর দেননি।

হজ-ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতির অভিযোগ বিষয়ে এর আগে দুদকের কাছে লিখিত বক্তব্য দিয়েছিলেন আবুল কালাম আজাদ।

আরও পড়ুন : ঢাকা রিজেন্সি হোটেলে জমি ক্রয়-বিক্রয়ে লুটপাট, আছে পাচারের অভিযোগও

লিখিত বক্তব্য তিনি উল্লেখ করেন, ১৯৮৯ সালের ২২ সেপ্টেম্বর সিবা গেইগী’র মার্কেটিং অফিসার হিসেবে চাকরি শুরু করেন আবুল কালাম আজাদ। পরবর্তীতে বিসিএস-আনসার ক্যাডারে ১৯৯৩ সালর ৩১ মার্চ পর্যন্ত চাকরি করেন। ১৯৯৩ সালে বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে সহকারী কমিশনার হিসেবে যোগ দেন। ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমানের একান্ত সচিব (পিএস) হিসেবে চার বছর সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও ষড়যন্ত্রমূলক।

আয়কর বিবরণীতে যা আছে

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সূত্রে জানা যায়, আবুল কালাম আজাদের নামে স্থাবর ও অস্থাবরসহ মোট ১০ কোটি ২৪ লাখ ২৯ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য পাওয়া গেছে।

স্থাবর সম্পদের বিবরণের মধ্যে রয়েছে, দিনাজপুর সদর থানার কয়েকটি মৌজায় মোট ১.৮৩৪৪ একর জমি, একই মৌজায় ২২ শতাংশ জমি, ধানমন্ডিতে ২০০৯ বর্গফুট আয়তনের ফ্ল্যাট, আউলিয়াপুর মৌজায় ১৮ শতাংশ জমি, রাজধানীর পল্লবী থানায় বাউনিয়া মৌজায় .০১২১০ অযুতাংশ জমি ও কল্যাণপুরে ৪.৯৫ শতাংশ জমিসহ বাড়ি।

আরও পড়ুন : বেবিচকের বকেয়া ৫৮২ কোটি টাকা, বিপাকে ভ্যাট অফিস

স্থাবর সম্পদের বিবরণের মধ্যে রয়েছে, দিনাজপুর সদর থানার কয়েকটি মৌজায় মোট ১.৮৩৪৪ একর জমি, একই মৌজায় ২২ শতাংশ জমি, ধানমন্ডিতে ২০০৯ বর্গফুট আয়তনের ফ্ল্যাট, আউলিয়াপুর মৌজায় ১৮ শতাংশ জমি, রাজধানীর পল্লবী থানায় বাউনিয়া মৌজায় .০১২১০ অযুতাংশ জমি ও কল্যাণপুরে ৪.৯৫ শতাংশ জমিসহ বাড়ি।

আয়কর নথি অনুসারে তার অস্থাবর সম্পদের মধ্যে রয়েছে- ৬০ হাজার টাকার শেয়ার, অন্যান্য খাতে বিনিয়োগ পাঁচ লাখ ২৬ হাজার টাকা, ৩২ লাখ টাকার গাড়ি (ঢাকা মেট্রো গ-৩৪-২২১১) এবং ব্যাংকে জমা ও নগদ ৮ কোটি ৩০ লাখ ৬৪ হাজার ৪৪৩ টাকাসহ মোট ৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

যা বলছে দুদকের অনুসন্ধান

দুদকের প্রাথমিক অনুসন্ধানে দেখা গেছে, আবুল কালাম আজাদের নামে ১ কোটি ৫৩ লাখ ২৮ হাজার ৫০০ টাকার স্থাবর (এটি দলিল মূল্য, প্রকৃত মূল্য তার থেকে অনেক বেশি বলে ধারণা দুদকের) এবং ৮ কোটি ৭১ লাখ টাকার অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। অনুসন্ধানকালে তার দেওয়া তথ্য এবং বিভিন্ন উৎস থেকে মোট আয়ের প্রমাণ পাওয়া গেছে ২ কোটি ৪৮ লাখ ৭৯ হাজার টাকার।

আরও পড়ুন : ৮০ ভাগ অভিযোগই আমলে নেয়নি দুদক

অনুসন্ধানকালে বিভিন্ন নথিপত্র যাচাই-বাছাই শেষে পারিবারিক ও অন্যান্য ব্যয় বাবদ ৫০ লাখ টাকার হিসাব পাওয়া গেছে। যা বাদ দিলে নিট আয় থাকে ১ কোটি ৯৮ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। অন্যদিকে, তার স্থাবর ও অস্থাবর মিলিয়ে ১০ কোটি ২৪ লাখ ২৯ হাজার ২০৩ টাকা মূল্যমানের সম্পদের প্রমাণ মিলেছে। সেখান থেকে তার ব্যক্তিজীবনের নিট আয় ১ কোটি ৯৮ লাখ ৭৯ হাজার টাকা বাদ দিলে ৮ কোটি ২৫ লাখ ৫০ হাজার টাকার হিসাব পাওয়া যায়। যা জ্ঞাত আয়ের উৎস-বহির্ভূত সম্পদ বলে মনে হয়েছে দুদকের কাছে।

যদিও অনুসন্ধানকালে আয়ের একটি উৎস হিসেবে আবুল কালাম আজাদ জমি বিক্রি বাবদ ১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা দেখিয়েছেন। ওই আয়ের পক্ষে রেকর্ডপত্র কিংবা প্রকৃত তথ্য উপস্থাপন করতে পারেননি তিনি। দুদকের কাছে ওই সোয়া আট কোটি টাকা ‘অবৈধভাবে’ও ‘দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত’ বলেই মনে হয়েছে।

এ কারণে তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর ২৬ (১) ধারায় সম্পদ বিবরণী নোটিশ জারির সুপারিশ করেন অনুসন্ধান কর্মকর্তা সংস্থাটির উপপরিচালক রেজাউল করিম। এরই পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনের অনুমোদন নিয়ে সম্পদ বিবরণী নোটিশ জারি করা হয় গত বছরের ২৬ জুলাই। এরপর নভেম্বরে দুদকে সম্পদের হিসাব দেন আবুল কালাম আজাদ। আর ওই সম্পদ যাচাই-বাছাইয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয় বর্তমান অনুসন্ধান কর্মকর্তাকে।

আরএম/এসকেডি

Link copied