রোজার আগেই অস্থির নিত্যপণ্যের বাজার : অসহায় ক্রেতা-ভোক্তা

S M Nazer Hossain

০৯ মার্চ ২০২২, ১০:২১ এএম


রোজার আগেই অস্থির নিত্যপণ্যের বাজার : অসহায় ক্রেতা-ভোক্তা

ছবি : সংগৃহীত

রমজানের দেরি নেই। প্রতিবছর রমজান মাস আসার পূর্বেই নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়। আর রমজানে এই নিত্যপণ্যের দাম সহনীয় রাখতে সরকার ও ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো প্রতিবছর নানারকম অঙ্গীকার-প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকেন। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন, যেকোনো পূজা-পার্বণ-ঈদ উপলক্ষে বাজারের চাবিকাঠি চলে যায় অশুভ চক্রের হাতে। নিত্যপণ্যের দাম বাড়বে-এ যেন অলিখিত নিয়ম হয়ে গেছে। আবার বেশ কিছুদিন ধরেই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম।

উৎসব, পূজা-পার্বণ উপলক্ষে সব দেশেই কিছু পণ্যের চাহিদা বাড়ে। ওই পণ্যগুলো শুধু নিছক উপহারের পণ্য, নিত্যপণ্য নয়। প্রতিদিন এসমস্ত পণ্য কেনা হয় না। কেবল বিশেষ দিনেই কেনা হয়। তাই ওই পণ্যগুলোর দাম বাড়লেও সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বাড়ে না। এদিক দিয়ে আমাদের দেশ ভিন্ন। দামি বিলাসী পণ্য নয়, সুযোগ পেলেই সবগুলো নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে দেওয়া হয়।

প্রতি বছরই রমজানকে সামনে রেখে নিত্যপণ্যের দাম বাড়ে। এবারও ব্যত্যয় হয়নি, তবে রমজান আসার আগেই ইফতারি ও সাহরিকে সামনে রেখে নতুনভাবে ভোজ্যতেল সয়াবিন, পাম অয়েল, পেঁয়াজ, আটা-ময়দা ও ডালের দাম বাড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা। পর্যাপ্ত মজুত, সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলেও কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে কিংবা নানা অজুহাতে বাড়ানো হচ্ছে চাল, চিনি, মসুর ডাল, প্যাকেট আটা ও ময়দার দাম।

দাম বাড়াতে ব্যবসায়ীদের অজুহাতের শেষ নেই। আন্তর্জাতিক বাজারের দোহাই দিয়ে টানা ছয় মাস ধরে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। এখন যোগ হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধ। ভোজ্যতেলের আমদানিকারক ও রিফাইনারি প্রতিষ্ঠান ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব দেন। আর তখন থেকেই বাজারে ভোজ্যতেল উধাও হয়ে যায়।

ব্যবসায়ীরা প্রতিবছরই নানা কৌশলে আগেই দাম বাড়িয়ে দেন সংঘবদ্ধভাবে। ব্যক্তিবিশেষের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার সুযোগ নেই। আর রমজানে দাম বৃদ্ধি না পাওয়ায় অভিযোগ করারও সুযোগ থাকে না। বরং ব্যবসায়ীরাই বলেন, ‘দাম বাড়েনি’। বাজারে দাম তদারকি ও নিয়ন্ত্রণে সরকারের সংস্থাগুলোও বাজার যাচাই করে জানায়, রমজানে নিত্যপণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। কিন্তু রমজানের প্রাক্কালে পণ্যের দাম যে পরিমাণ বাড়ানো হয়, পরে তা আর কমানো হয় না।

দাম বাড়াতে ব্যবসায়ীদের অজুহাতের শেষ নেই। আন্তর্জাতিক বাজারের দোহাই দিয়ে টানা ছয় মাস ধরে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। এখন যোগ হয়েছে রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধ।

সাধারণ ভোক্তাদের অভিযোগ, সরকার নিত্যপণ্যের বাজারের মূল দায়িত্ব ব্যবসায়ীদের ওপর ছেড়ে দিয়েছে, ফলে বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা দৃশ্যমান নেই। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট কোনো কর্তৃপক্ষও সাধারণ মানুষের এই আকাঙ্ক্ষিত নিত্যপণ্যের বাজার তদারকির ন্যূনতম কোনো দায়িত্ব পালনে আগ্রহ নেই। যার কারণে বাজারে এক লাফে জিনিসের দাম দ্বিগুণ হারে বেড়েই চলেছে।

পুরো বছর জুড়েই দফায় দফায় চক্রাকারে একেকবার একেকটি পণ্যের চাহিদা বেড়েই চলেছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সীমিত ২/১জন কর্মকর্তা নিয়মিত বাজার তদারকি করেও এই নিত্যপণ্য মূল্যের ঊর্ধ্বগতির লাগাম টানতে পারছেন না।

রমজানে ভোজ্যতেল, চিনি, ছোলা, পেঁয়াজ, ডাল ও খেজুরের চাহিদা বাড়ে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, দেশে সারাবছর ভোজ্যতেলের চাহিদা ২১ লাখ টন, যার ৯০ শতাংশই আমদানি করতে হয়। কেবল রমজান মাসেই এ তেলের চাহিদা থাকে ৪ লাখ টনের মতো। সারা বছরের জন্য প্রয়োজন হয় ১৮ লাখ টন চিনি, এর মধ্যে ৩ লাখ টনের চাহিদা থাকে কেবল রমজান মাসে।

সারাবছর যেখানে ৫ লাখ টন মসুর ডাল লাগে, সেখানে রমজানে চাহিদা থাকে ৮০ হাজার টনের মতো। ডালের চাহিদা মেটাতে ৫০ শতাংশ আমদানি করতে হয়। বছরে ৮০ হাজার টন ছোলার প্রয়োজন হয় দেশে, যার ৮০ শতাংশই ব্যবহার হয় রমজান মাসে। এই সময় সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয় পেঁয়াজের। ২৫ লাখ টন বার্ষিক চাহিদার ৫ লাখ টনই ব্যয় হয় রমজান মাসে। তাই রমজান এলে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের অপতৎপরতা শুরু হয়। পণ্যমূল্য বাড়াতে তারা কারসাজির আশ্রয় নেয়। এতে করে বাজার অস্থিতিশীল হয়ে পড়ে।

মহামারি করোনায় এলোমেলো হয়ে পড়েছে মানুষের জীবন। করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের কারণে এই অভিঘাত আরও বেশি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ওমিক্রনের প্রভাবে বিভিন্ন দেশে জারি করা হয়েছে নানা বিধিনিষেধ। বাংলাদেশেও এর প্রভাব বাড়ছে। সঙ্কুচিত হয়ে পড়েছে কর্মক্ষেত্র। চাকরি হারিয়ে অনেকে বেকার হয়ে পড়েছে। এর বাইরে নিত্যপণ্যের মূল্য প্রান্তিক ও সীমিত আয়ের মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে।

ভোক্তা ও বাজার বিশ্লেষকদের মতে, সরকার ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিত্যপণ্যের বাজারের দায়িত্ব পুরোটাই ব্যবসায়ীদের হাতে ছেড়ে দিয়েছে। সরকারের ব্যবসায়ী তোষণনীতির কারণে ব্যবসায়ীরা সন্তুষ্ট হলেও সাধারণ মানুষের মুখে হাসি নেই।

মূল্যস্ফীতিও বেশ ঊর্ধ্বমুখী। মূল্যস্ফীতি বাড়া মানেই প্রান্তিক ও সীমিত আয়ের মানুষের ভোগান্তি বৃদ্ধি। এতে খাদ্য উৎপাদন, বণ্টন, সরবরাহ ও মূল্যস্তরে পড়তে পারে নেতিবাচক প্রভাব; যা খাদ্যমূল্যের ওপর অস্বস্তিকর প্রভাব ফেলবে।

বাংলাদেশে চলমান শীতে সবজির ভরা মৌসুমেও তরিতরকারির দাম সাধারণ ক্রেতার নাগালের বাইরে। চাল, ডাল, তেল, আটা, চিনিসহ নিত্যপণ্যের দামও চড়া প্রায় দুই বছর ধরে। এই অবস্থায় প্রান্তিক ও সীমিত আয়ের মানুষের ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে।

অবশ্য ব্যবসায়ীরা নিত্যপণ্যের দাম অস্বাভাবিক বাড়ালেও ভোক্তাদেরও দায় কোনো অংশে কম নয়। সামর্থ্যবান ভোক্তাদের অনেকেই রোজার আগেই পরিবারের বাজার-সদাই সেরে ফেলেন। রমজান সংযম ও আত্মশুদ্ধির মাস। পবিত্র এই মাসে ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা সিয়াম সাধনার মাধ্যমে স্রষ্টার নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের চেষ্টা করেন।

ধর্মপ্রাণ ব্যবসায়ীরাও ধর্মকর্ম নিয়েই ব্যস্ত থাকলেও তাদের কর্মীরা ধর্মীয় অনুশাসন না মেনে পণ্য মজুদ করেন। তাই রোজার মাসে যেন নিত্যপণ্যের বাজারে চাহিদা ও সরবরাহে সংকট তৈরি না হয়, সেজন্য একসাথে বাজার না করে সপ্তাহে বাজার করা, দরিদ্রদের মাঝে ইফতারি বিতরণের পরিবর্তে নগদ অর্থ বিতরণের আহ্বান জানিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

বাজার ব্যবস্থার স্বাভাবিক গতি যোগসাজশের মাধ্যমে বাধাগ্রস্ত করা হলে অবশ্যই ভোক্তাস্বার্থ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। যা দেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। ভোক্তা ও বাজার বিশ্লেষকদের মতে, সরকার ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিত্যপণ্যের বাজারের দায়িত্ব পুরোটাই ব্যবসায়ীদের হাতে ছেড়ে দিয়েছে। সরকারের ব্যবসায়ী তোষণনীতির কারণে ব্যবসায়ীরা সন্তুষ্ট হলেও সাধারণ মানুষের মুখে হাসি নেই।

উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর্যায়ে থাকলে করোনার সময় সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতা যে কমেছে, তা মানতে হবে। গত কয়েক বছরে সরকারের পদক্ষেপ সত্ত্বেও নিত্যপণ্যের অযৌক্তিক মূল্যবৃদ্ধি কেন থামানো যায়নি, তা খতিয়ে দেখা উচিত।

ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে মুনাফা করতেই হবে। কিন্তু মুনাফা অর্জনের নামে তিন থেকে চারগুণ পর্যন্ত অতিরিক্ত মুনাফা অর্জনের মতো অনৈতিক কর্মকাণ্ড সমর্থনযোগ্য নয়। এই অবস্থায় পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে বাজার তদারকি বাড়ানো; বিকল্প ব্যবস্থাপনায় চাল, ভোজ্যতেল, আটা, চিনি, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্য প্রান্তিক, শ্রমজীবী ও সীমিত আয়ের মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য একটি ব্যবস্থাপনা কাঠামো তৈরি; প্রয়োজনে প্রান্তিক ও শ্রমজীবিদের জন্য রেশনিং কার্ড প্রবর্তন করা যেতে পারে।

বিশেষ করে করোনাকালে যাদের আয় কমে গেছে, তাদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর কর্মসূচির আওতা বাড়াতে হবে। গ্রাম ও শহরাঞ্চলের প্রান্তিক ও শ্রমজীবী মানুষ যাতে খেয়ে-পরে বাঁচতে পারে, সেজন্য নিত্যপণ্য্যের দাম যেমন স্থিতিশীল রাখতে হবে, তেমনি তাদের আয় বাড়ানো ও কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির ওপর জোর দিতে হবে।

আমদানিকারক, উৎপাদক, পরিবেশক, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ী পর্যায়ে সমন্বিত বাজার (ভোক্তা ও গণমাধ্যম প্রতিনিধি সমন্বয়ে) তদারকি নিশ্চিত, কার্যকর টিসিবি, সর্বোপরি ট্যারিফ কমিশন, কৃষি, খাদ্য, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং রাজস্ব বোর্ডের মধ্যে কার্যকর সমন্বয় নিশ্চিত করতে হবে। আসন্ন রমজানে যাতে নিত্যপণ্যসহ সব ধরনের পণ্যের দাম স্থিতিশীল রাখতে সরকারকে এখন থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

এস এম নাজের হোসাইন ।। ভাইস প্রেসিডেন্ট, কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)

Link copied