পুলসিরাত কী? কীভাবে পার হবে মানুষ? 

হাশরের মাঠ থেকে বের হয়ে গন্তব্যে যেতে একটি পুল স্থাপন করা হবে। আরবিতে পুলকে বলা হয় সিরাত। সিরাত হাশরের ময়দান থেকে জাহান্নামের ওপর দিয়ে জান্নাত পর্যন্ত বিস্তৃত থাকবে এবং অনেক ভয়ঙ্কর হবে। মানুষের আমলনামা ওজন এবং হিসাব-নিকাশের পর সবাইকে ফেরেশতারা আল্লাহর নির্দেশে পুলসিরাত দেখিয়ে দিয়ে বলবেন, ‘এটা তোমাদের গন্তব্যে পৌঁছার পথ। এ পুল পেরিয়েই তোমাদের যেতে হবে।’

আল্লাহ যাদের অপছন্দ করেন

কেউ যখন কাউকে ঘৃণা করে, তখন বিষয়টি কেমন খারাপ খারাপ দেখায়। কিন্তু এরচেয়েও বড় দুঃখের কথা হলো- আমাদের সমাজে এমন কিছু দুর্ভাগা রয়েছে, যাদের আল্লাহ তাআলা অত্যন্ত ঘৃণা করেন। কিয়ামতের দিন এই হতভাগাদের সঙ্গে আল্লাহ তাআলা কোনো ধরনের কথা বলবেন না। তাদের প্রতি দয়ার দৃষ্টিও দেবেন না।

আখিরাতে মানুষ যেসব কারণে আফসোস করবে

কিয়ামতের দিন বহু মানুষ আফসোস করবে। এ জন্য এ দিবসকে পরিতাপের দিবস বলা হয়। জাহান্নামিরা সেদিন পরিতাপ করবে এ কারণে যে তারা ঈমানদার ও সৎকর্মপরায়ণ হলে জান্নাত লাভ করত; কিন্তু এখন তাদের জাহান্নামের আজাব ভোগ করতে হচ্ছে। পাশাপাশি বিশেষ এক প্রকার পরিতাপ জান্নাতিদেরও হবে।

বক্তা বেড়ে যাওয়া কি কিয়ামতের আলামত?

একটা বাস্তাব সত্য হলো- ইদানিং প্রচুর পরিমাণে বক্তার সংখ্যা বেড়ে চলছে। কিন্তু দুঃখজনক কথা হলো- অনেক বক্তার আলোচনা শুধু অযথা কথার ফুলঝুড়ি। কোনো ধরনের ইলম ও হিকমতও নেই তাদের। অবশ্য সত্যিকার ইলমের ধারক-বাহক অনেক আলেম ও বক্তা দাওয়াত-ওয়াজের ময়দানে রয়েছেন। কিন্তু বক্তার সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ব্যাপারে মহানবী (সা.)-এর ভবিষ্যদ্বাণী রয়েছে।

কিয়ামতের ময়দান যেমন হবে

কিয়ামত সংঘটিত হবে। অমোঘ সত্য ও অনিবার্য এক বাস্তবতা। কেয়ামতের দিন আল্লাহ তাআলা তাবৎ সৃষ্টিজগৎ তছনছ করে দেবেন। ধ্বংস করে দেবেন সবকিছু। সেদিন শুধু তিনি থাকবেন, বাকি সবকিছু তার মহা পরাক্রমশীলতায় বিনাশ হয়ে যাবে। তিনি নিজে সবার উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করে আবার নিজে উত্তর দেবেন।

আরশের ছায়ায় আশ্রয় পাবেন যারা

কিয়ামতের দিন আল্লাহর আরশের ছায়া ব্যাতীত অন্য কোনো ছায়া থাকবে না। সূর্য মাথার একেবারে উপরে অবস্থান করবে। সেদিন মানুষ দলে দলে বিভক্ত হবে। তাদের নিজেদের ঘামের সাগরে হাবুডুবু খেতে থাকবে। কিন্তু এই কঠিন দিনেও কিছু মানুষ আল্লাহর আরশের ছায়া পাবে।

যাকে নিঃস্ব ও হতদরিদ্র বলেছেন বিশ্বনবী

আপনি নিঃস্ব ও হতদরিদ্র? অর্থ-সংকট ও দারিদ্র্য আপনাকে কি প্রকটভাবে পেয়ে বসেছে? আপনার ঘরে ‘নুন আনতে পান্তা ফুরোয়’? সবকিছু হারিয়ে আপনি দেউলিয়া হওয়ার যোগাড়? কী করবেন— ভেবে দিশকুল হারিয়ে প্রায় ভবঘুরে? জীবনের সব অর্জন হারিয়ে শূন্য ও রিক্তহস্ত?

কিয়ামতের দিন যারা আল্লাহর সুদৃষ্টি পাবে না

আল্লাহ তাআলা কিছু মানুষের প্রতি কেয়ামতের দিন তাকাবেন না। তাদের দিকে তিনি রহমতের দৃষ্টি দেবেন না। কারণ, তাদের পাপ ও গুনাহ। তারা আলাদা আলাদা ক্ষেত্রে আল্লাহর দেওয়া সীমা লঙ্ঘন করার অপরাধে।

কিয়ামতের পূর্বনিদর্শন ‘আল-ওয়াহান’

কেয়ামত, কেয়ামতের লক্ষণ, কেয়ামতের ১০ টি আলামত, কেয়ামতের আলামত ও বর্তমান বিশ্ব, কেয়ামত কবে হবে, কেয়ামতের আলামত, কিয়ামতের আলামত কি কি, কিয়ামত কখন হবে, কিয়ামত অর্থ কী, কিয়ামতের ৪১ টি আলামত, কিয়ামত বলতে কি বুঝায়, কিয়ামত কিভাবে সংঘটিত হবে, কিয়ামতের আলামত, কিয়ামত শব্দের অর্থ কি ও কিয়ামতের দিন কি হবে ও কিয়ামতের আলামত মহামারী ইত্যাদি বিষয়ে লেখা।

Link copied