হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনে বৃষ্টিতে ভিজল শহর!

Dhaka Post Desk

বিনোদন ডেস্ক

১৩ নভেম্বর ২০২১, ০১:৫৩ পিএম


হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিনে বৃষ্টিতে ভিজল শহর!

বৃষ্টির প্রতি হুমায়ূন আহমেদের ছিল বিশেষ ভালোবাসা। প্রিয় নুহাশ পল্লীতে তিনি গড়েছেন ‘বৃষ্টি বিলাস’ নামের বাংলো। একই নামে রয়েছে তার উপন্যাসও। তার বিভিন্ন নির্মাণেও নান্দনিকভাবে ধরা দিয়েছে শ্রাবণের ধারা। একটি গানের কথা তো না বললেই নয়- ‘যদি মন কাঁদে, তুমি চলে এসো এক বরষায়’।

ক্যালেন্ডার বলছে, আজ ১৩ নভেম্বর। অর্থাৎ হুমায়ূন আহমেদের জন্মদিন। বিশেষ এই দিনে তিনি সশরীরে আসেননি, কিন্তু তার জন্য বৃষ্টি এসেছে ঠিকই। শীতের আগমনী বার্তা হয়ে শহর ভিজেছে গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিতে। এ বৃষ্টি যেমন বিখ্যাত নভেম্বর রেইনকে মনে করিয়ে দিয়েছে, একইভাবে সবার হৃদয়ের হিমুকে নতুনভাবে জাগিয়ে দিয়েছে।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন হুমায়ূন আহমেদ। ৬৩ বছরের জীবন কাটিয়ে ২০১২ সালে তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। কিন্তু চলে যাবার আগে যে সমৃদ্ধ, বর্ণিল জগত সৃষ্টি করে গেছেন, তা ধ্রুবতারার মতো দ্যুতি ছড়ায় আজও।

হুমায়ূন আহমেদকে বলা হয় নন্দিত কথাসাহিত্যিক। গল্প-উপন্যাস লিখে তিনি যতটা জনপ্রিয়তা, সাফল্য পেয়েছিলেন, তা বিরল। তার রচিত প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ প্রকাশিত হয় ১৯৭২ সালে। এরপর তিন শতাধিক গ্রন্থ রচনা করে অমরত্ব পেয়েছেন।

চলচ্চিত্র ও নাটকের ইতিহাসে তার নামটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। তিনি যেসব নাটক রচনা করেছেন, নির্মাণ করেছেন, সেগুলো আজ অব্দি আদর্শ হিসেবে বিবেচিত হয়। তার সৃষ্ট বাকের ভাই, মিসির আলী কিংবা হিমু চরিত্রগুলো এখনো যেন হেঁটে বেড়ায় শহর থেকে মফস্বলে।

চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে হুমায়ূন আহমেদের অভিষেক হয় ১৯৯৪ সালে। সে বছর তিনি নির্মাণ করেছিলেন ‘আগুনের পরশমণি’। যেটি আটটি বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেছিল।

পরবর্তীতে তিনি ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘দুই দুয়ারী’, ‘শ্যামল ছায়া’, ‘নয় নম্বর বিপদ সংকেত’, ‘চন্দ্রকথা’, ‘আমার আছে জল’ ও ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ চলচ্চিত্রগুলো। এগুলো বিভিন্ন শাখায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিল।

সাহিত্য ও নির্মাণে অসামান্য দক্ষতা দেখিয়ে হুমায়ূন আহমেদ অর্জন করেছিলেন বহু পুরস্কার-সম্মাননা। এর মধ্যে রয়েছে একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

ব্যক্তিগত জীবনে হুমায়ূন আহমেদ দুটি বিয়ে করেছিলেন। তার প্রথম স্ত্রীর নাম ছিল গুলতেকিন। ১৯৭৩ সাল থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত তারা দাম্পত্যে আবদ্ধ ছিলেন। এই সংসারের সন্তান অভিনেত্রী শীলা আহমেদ, নোভা আহমেদ, বিপাশা আহমেদ ও নুহাশ হুমায়ূন। ২০০৫ সালে তিনি বিয়ে করেন অভিনেত্রী ও গায়িকা মেহের আফরোজ শাওনকে। এই সংসারে তিনি নিশাত হুমায়ূন ও নিনিত হুমায়ূন দুই ছেলের বাবা হন।

কেআই

Link copied