পণ্যের দাম আর কত বাড়বে?

Dhaka Post Desk

ঢাকা পোস্ট ডেস্ক

২৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০২:৪৬ পিএম


পণ্যের দাম আর কত বাড়বে?

ছবি : সংগৃহীত

২৩ জানুয়ারি ২০২৩।

মানি লন্ডারিং বাড়ছে। ২০ বছরে মানি লন্ডারিংয়ের ৭৫২টি মামলার তথ্য মিলেছে। এর মধ্যে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে এই আইনে মামলা হয়েছে মাত্র ২০টি। স্বর্ণ চোরাচালানিদের বিরুদ্ধে ৮টি, মুদ্রা পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ১৫টি এবং মানব পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ৫টি মামলা হয়েছে। এর পাশাপাশি আজকের জাতীয় দৈনিকের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলো একবার দেখে আসি—

প্রথম আলো

মাদক, চোরাচালানে মামলা কম

মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের অন্যতম উদ্দেশ্যই ছিল মাদক ব্যবসা, মানব পাচার, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থ জোগান ও চোরাচালান বন্ধ করা। অথচ এসব অপরাধে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে এই আইনে মামলা হয়েছে খুবই কম। যদিও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার প্রতিবেদনে মাদক ব্যবসা ও মানব পাচারের মতো গুরুতর অপরাধের ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় বাংলাদেশের নাম উঠে এসেছে। এতে বলা হচ্ছে, এসব অপরাধমূলক কাজে দেশি-বিদেশি চক্র বাংলাদেশকে রুট হিসেবে ব্যবহার করছে।

আরও পড়ুন >>> অর্থ পাচার : অর্থনীতির অশনিসংকেত!

ব্যবসায়ীদের দাম বাড়ানোর অজুহাত বেশ শক্ত, সুদৃঢ়। তারা সুযোগ খোঁজে কবে, কোন ইস্যুতে দাম বাড়ানো যায়।

প্রথম আলো

আমনের উৎপাদন বেশি, তবু চড়া চালের বাজার

আমন ধান কাটা শেষ। এ বছর বেড়েছে উৎপাদনও। শুরু হয়েছে বোরো মৌসুম। সাধারণত ধান কাটার মৌসুমে চালের দাম কমতে থাকে। কিন্তু বর্তমানে চালের দাম কমার কোনো লক্ষণ নেই। মোটা চালের কেজি ৫২ টাকায় (ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে) স্থির আছে, যা গত বছরের এ সময়ের তুলনায় ৪ থেকে ৫ শতাংশ বেশি। অপর দিকে, দেশের মানুষের দ্বিতীয় প্রধান খাদ্য আটার দামও বেড়েছে।

বণিক বার্তা

লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আমন উৎপাদন বেড়েছে ৪ শতাংশ

চলতি বছর বোনা ও রোপা আমন মিলিয়ে মোট ৫৮ লাখ ৯৯ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছিল। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ কোটি ৬৩ লাখ ৪৫ হাজার টন। তবে এসব জমিতে এবার চাল উৎপাদন হয়েছে ১ কোটি ৭০ লাখ ২৯ হাজার টন। হেক্টর প্রতি গড় ফলন হয়েছে ২ দশমিক ৮৮ টন, যার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ দশমিক ৭৬ টন।

জ্বালানি তেল, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে সরকার, যা জিনিসপত্রের দাম বাড়ার প্রবণতাকে আরও উস্কে দিচ্ছে। সরকার গত আগস্টে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায়। আর ওই মাসেই গত এক যুগের মধ্যে সর্বাধিক মূল্যস্ফীতি হয়।

সমকাল

পণ্যমূল্য কমানোর উদ্যোগ নেই

মূল্যস্ফীতির চাপ বজায় থাকার ইঙ্গিত দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকও। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুদ্রানীতির বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অনেক দিন ধরে মূল্যস্ফীতির চাপ থাকায় তা আরও বাড়বে এমন শঙ্কা মানুষের মধ্যে তৈরি হতে পারে। অন্যদিকে, জ্বালানি পণ্যের দাম বাড়ানোর প্রভাব তো রয়েছেই। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যমূল্য কমে এলেও স্থানীয় বাজারে মূল্যস্ফীতির চাপ আরও বাড়তে পারে।

সরকার প্রতি বছরই বিপুল অংকের ঘাটতি রেখে বাজেট ঘোষণা করছে। চলতি অর্থবছরেও ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট ঘাটতি দেখানো হয়েছে, যা মোট বাজেটের ৩৬ শতাংশ।

কালের কণ্ঠ

তেল ডালে স্বস্তি, অস্বস্তি চিনি ছোলায়

পাইকারি বাজারে সাধারণত রমজানের পণ্য বিক্রি শুরু হয় ৪০ দিন আগে। সেই হিসাবে আগামী এক মাসের মধ্যেই রমজানের ভোগ্য পণ্য আমদানি করে বাজারে পৌঁছাতে হবে। কিন্তু আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এত কম সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ভোগ্য পণ্য পৌঁছানো চ্যালেঞ্জিং হবে। তবে ঋণপত্র খোলা পণ্যগুলো যদি সময়মতো আমদানি করে এনে বাজারে যথাযথভাবে সরবরাহ করা যায়, তাহলে কোনো সমস্যা হবে না।

সরকারের ঋণ বাড়ছে, কীভাবে তা শোধ হবে?

বণিক বার্তা

অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে পাঁচ বছরে সরকারের ঋণ বেড়েছে প্রায় ৪ লাখ কোটি টাকা

ব্যাংকসহ অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে সরকারের ঋণ বেড়েই চলেছে। শুধু গত পাঁচ বছরেই এ খাত থেকে ঋণ বেড়েছে প্রায় ৪ লাখ কোটি টাকা। এক্ষেত্রে ঋণ বেড়েছে ১২৪ শতাংশ। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর শেষেও অভ্যন্তরীণ খাত থেকে সরকারের মোট ঋণ ছিল ৩ লাখ ২০ হাজার ২৭২ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন >>> আর কত চাপ সামলাবে? 

জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে সরকারের আস্থা ভাজন কর্মকর্তাদের দিয়ে কয়েক স্তরে জনপ্রশাসন সাজানো হচ্ছে। সরকারের নীতিনির্ধারকরা আগেভাগেই নির্বাচনমুখী প্রশাসন সাজানোর তৎপরতা শুরু করেছেন।

প্রতিদিনের বাংলাদেশ

সাজানো হচ্ছে নির্বাচনী প্রশাসন

ক্ষমতাসীনদের পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রশাসনের শীর্ষ থেকে শুরু করে মাঠপর্যায়েও সরকারের প্রতি আনুগত্যের প্রশ্নে শতভাগ আস্থাশীল, চৌকস ও সাহসী এবং একই সঙ্গে প্রগতিশীল হিসেবে পরিচিত কর্মকর্তাদের পদায়ন করা হবে। যাদের ভূমিকা ও আদর্শ নিয়ে সংশয় রয়েছে; তাদের সরিয়ে দেওয়া হবে গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে। এরই মধ্যে অনেককে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে, পাঠানো হতে পারে আরও কয়েকজনকে। বিএনপি আমলে নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তাদের রাখা হয়েছে বিশেষ নজরদারিতে। দায়িত্বশীল বিভিন্ন সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এছাড়াও স্মার্ট ডিভাইসে মস্তিষ্ক ক্ষয়, কিডনি রোগের কারণে এক বছরে রোগী ও মৃত্যু দ্বিগুণ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় চুরি ঠেকানোর সংবাদ গুরুত্ব পেয়েছে।

Link copied