জয় বাংলার, বাংলার জয়

Probhash Amin

২৭ জুলাই ২০২১, ১১:০৫ এএম


জয় বাংলার, বাংলার জয়

বঙ্গবন্ধুর পাঁচ সন্তানের সবার বড় শেখ হাসিনা। সেই শেখ হাসিনার প্রথম সন্তানের জন্মটা খুব উৎসবমুখর হওয়ার কথা ছিল। বাঙালি মায়েরা এ সময়টা মেয়ের পাশে থাকেন। সাধ খাওয়ানো থেকে শুরু করে নানান আয়োজন হয়। সেই সময়টায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা শেখ হাসিনার পাশেই ছিলেন। কিন্তু উৎসব ছিল না, আনন্দ ছিল না। সে বড় কঠিন সময় ছিল।

মৃত্যু পরোয়ানা মাথায় নিয়ে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি। অবরুদ্ধ বাংলাদেশে নিজ গৃহে বন্দি বঙ্গবন্ধুর পরিবার। এই অবরুদ্ধ সময়েই আশার বারতা, বিজয়ের আকাঙ্ক্ষা নিয়ে আসেন শেখ হাসিনা-ড. ওয়াজেদ দম্পতির প্রথম সন্তান- সজীব ওয়াজেদ, বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে যার নাম রেখেছেন জয়।

সজীব ওয়াজেদ জয় বাংলাদেশের সমান বয়সী। বাংলাদেশের বর্তমান গড়ে দিয়েছেন তিনি, ভবিষ্যৎও কি তার হাতেই? আওয়ামী মহলে একটা বাক্য খুব জনপ্রিয়- শেষ ভরসা শেখ হাসিনা। এটা সত্যিও। ইদানীং পাশাপাশি আরেকটি কথাও উচ্চারিত হচ্ছে, শেখ হাসিনার পরে কে? এই প্রশ্নের কোনো নিশ্চিত উত্তর কারো জানা নেই। তবু আওয়ামী লীগের সবাই মনেপ্রাণে সজীব ওয়াজেদ জয়কেই তাদের পরবর্তী নেতা হিসেবে গ্রহণ করেছেন।

অবরুদ্ধ সময়েই আশার বারতা, বিজয়ের আকাঙ্ক্ষা নিয়ে আসেন শেখ হাসিনা-ড. ওয়াজেদ দম্পতির প্রথম সন্তান- সজীব ওয়াজেদ, বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে যার নাম রেখেছেন জয়।

 

সজীব ওয়াজেদ জয়ই আওয়ামী লীগের হাল ধরবেন, এখন পর্যন্ত এর কোনো বিকল্প নেই। সুশীলদের কেউ কেউ হয়তো একে পরিবারতন্ত্র বলবেন। হয়তো পরিবারতন্ত্রই। কিন্তু আপনারাই বলুন, এখন কি আওয়ামী লীগের পরবর্তী নেতৃত্ব হিসেবে জয়ের কোনো বিকল্প আছে? বাস্তবতা মেনে নিতে হবেই। তাই চাওয়া হলো, পারিবারিক উত্তরসূরিরা যেন শিক্ষিত হন, যোগ্য হন, দক্ষ হন, দেশপ্রেমিক হন, আদর্শে অটল থাকেন। এসব গুণাবলি বিবেচনায় নিলেও জয়ই এগিয়ে থাকবেন।

সজীব ওয়াজেদ জয় দেশের বাইরে পড়াশোনা করেছেন। আমাদের দেশের অন্য অনেক রাজনীতিবিদের সন্তানের মতো বিলাসিতা দেখাতে দেশের বাইরে পড়েননি। ’৭৫ এর পর বঙ্গবন্ধুর বেঁচে থাকা দুই কন্যা শেখ হাসিনা আর শেখ রেহানাকে উদ্বাস্তুর জীবনযাপন করতে হয়েছে। সঙ্গে উদ্বাস্তু হতে হয়েছে তাদের সন্তানদেরও।

জয়ের শৈশব ও কৈশোর কাটে ভারতে। সেখানকার নৈনিতালের সেন্ট জোসেফ কলেজে লেখাপড়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব টেক্সাস অ্যাট আর্লিংটন থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে স্নাতক করেন তিনি। পরে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকপ্রশাসনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। দীর্ঘদিন দেশের বাইরে থাকা এবং বিভিন্ন দেশে পড়াশোনার কারণে জয়ের দৃষ্টিভঙ্গিতে একটা আন্তর্জাতিকতা আছে। তাই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে তিনি তার আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতাকে দেশীয় স্টাইলে প্রয়োগ করতে পারবেন।

ভবিষ্যতে কী হবে জানি না, সজীব ওয়াজেদ জয় এখন আওয়ামী রাজনীতিতে সক্রিয় নন। যদিও ২০১০ সালেই পীরগঞ্জ আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে আওয়ামী লীগে আনুষ্ঠানিকভাবে নাম লিখিয়েছেন। তবে সরাসরি দলীয় রাজনীতিতে সম্পৃক্ত না হলেও সজীব ওয়াজেদ জয় দীর্ঘদিন ধরেই বুদ্ধি দিয়ে, পরামর্শ দিয়ে তার মা শেখ হাসিনার পাশে থাকছেন। এখন সজীব ওয়াজেদ জয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে উপদেষ্টা হওয়ার আগে থেকেই তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছেন এবং সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিরলস পরিশ্রম করছেন।

এখানেই সজীব ওয়াজেদ জয়কে আমি ব্যতিক্রম মানি, ধন্যবাদ। অন্য অনেকের চেয়ে অনেক আগেই তিনি বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ দেখতে পেয়েছিলেন। আসলে একটা দেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করে নেতৃত্বের ওপর। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার এক সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ পাঁচ বছর পিছিয়ে গিয়েছিল।

রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য পাচারের শঙ্কায় তিনি সাবমেরিন ক্যাবলে বাংলাদেশকে সংযুক্ত করেননি, পরে অনেক অর্থ ব্যয়ে সেটা করতে হয়েছে। আমি অবশ্য খালেদা জিয়াকে দোষ দেই না। সেই বয়সে প্রযুক্তি ভীতি থাকতেই পারে। এখনও প্রবীণ অনেকে ঠিকমতো মোবাইল চালাতে পারেন না। সমস্যায় পড়লে নাতিকে ডাকেন, সেই শিশু সমাধান করে দেয়।

প্রযুক্তি নিয়ে শঙ্কা শেখ হাসিনারও ছিল। শেখ হাসিনা অনেকবার বলেছেন, সব ভয়-শঙ্কা কাটিয়ে তাকে প্রযুক্তিবান্ধব করে তোলা এবং তার মাথায় ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নটা দিয়েছিলেন সজীব ওয়াজেদ জয়। ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে লিখতে গেলে, আলাদা মহাকাব্য লিখতে হবে। খালি একটা কথা বলি, আপনি যে আপনার মোবাইলে চাকরি-বাকরি, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনোদন, পড়াশোনা, জুম মিটিং, ব্যাংকিং-শেয়ারবাজার, সিনেমা দেখা, গান শোনা, ছবি তোলা- সব করে ফেলতে পারছেন; তার জন্য হলেও সজীব ওয়াজেদ জয়কে একটা ধন্যবাদ দিতে পারেন। জয় ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন না দেখলেও আপনি এই সুবিধা পেতেন। তবে সে জন্য হয়তো আরও এক যুগ অপেক্ষা করতে হতো।

শেখ হাসিনা অনেকবার বলেছেন, সব ভয়-শঙ্কা কাটিয়ে তাকে প্রযুক্তিবান্ধব করে তোলা এবং তার মাথায় ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নটা দিয়েছিলেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র, শেখ হাসিনার ছেলে; এই কারণেই সজীব ওয়াজেদ জয় অনেকের চক্ষুশূল।’৭৫ সালে যারা বঙ্গবন্ধু এবং তার উত্তরসূরিদের নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিল, তাদের কাছে জয় মূর্তিমান এক আতঙ্ক। কিন্তু এটা বাদ দিলে জয়ের বিরুদ্ধে বলা কঠিন।

ক্ষমতার কেন্দ্রে থাকার সুযোগ ফেলে তিনি বাস করেন যুক্তরাষ্ট্রে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগ নেই। তিনি কোনো হাওয়া ভবন বানাননি। তার নাম ভাঙ্গিয়ে তার কোনো বন্ধু সম্পদের পাহাড় গড়েননি। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে সজীব ওয়াজেদ জয় তার মাকে সাহায্য করেছেন, পরামর্শ দিয়েছেন; বিরক্ত করেননি, বিব্রত করেননি।

দূরে থাকলেও সজীব ওয়াজেদ জয় বাংলাদেশকে ভালোবাসেন। এখন করোনার কারণে পারছেন না, কিন্তু সুযোগ পেলেই তিনি দেশের টানে ছুটে আসেন। বাংলাদেশে এলেই তিনি মতবিনিময় করেন তরুণদের সাথে। সজীব ওয়াজেদ জয় জানেন, তারুণ্যই বাংলাদেশের মূল সম্পদ। এই তারুণ্যের হাত ধরেই উন্নতির নতুন ধাপে পৌঁছে যাবে বাংলাদেশ। তাই তাদের পেছনেই তিনি বিনিয়োগ করছেন বেশি সময়। নিশ্চয়ই এই বিনিয়োগ অনেক বেশি লাভ দেবে জাতিকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সক্রিয় থেকে তরুণদের সাথে যোগাযোগ রাখেন তিনি। দেশের নানা বিষয়ে ফেসবুকে তার মতামত তুলে ধরেন। ভার্চুয়ালি মতবিনিময় করেন তরুণদের সাথে।

তবে বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের মতো কৌশলী নন সজীব ওয়াজেদ জয়। যা বলার বলে দেন মুখের ওপর। কখনো মনে হয়, সজীব ওয়াজেদ বাংলাদেশের আর দশটা রাজনীতিবিদের মতো না হলেই ভালো, যা মনে আসে তাই বলুন। পছন্দ-অপছন্দ স্পষ্ট করে বলাই ভালো। অন্তরে বিষ রেখে মুখে মধু আনার কৌশল না শিখুন জয়। আবার কখনো মনে হয়, বাংলাদেশের রাজনীতিতে সফল হতে হলে একটু কৌশলী হতেই হয়। আরও বেশি সহিষ্ণু হতে হবে।

সজীব ওয়াজেদ জয় জন্মেছেন অবরুদ্ধ বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের সময়। বঙ্গবন্ধুর ডাকে স্বাধীন হয়েছে দেশ। এখন তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে চলছে অর্থনৈতিক মুক্তির লড়াই। উদার, গণতান্ত্রিক, উন্নত, সমৃদ্ধশালী, অসাম্প্রদায়িক, ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন নিয়ে স্বাধীন হয়েছে; তা এগিয়ে নেওয়ার লড়াই চলছে। এই লড়াইটাও কঠিন। লড়তে হবে দলের ভেতরে, বাইরে। এ লড়াই চালিয়ে যেতে হাল ধরতে হবে জয়দেরকেই।

আসলে জয় বাংলাদেশের সমান বয়সী। বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীর বছরেই পূর্ণ হলো সজীব ওয়াজেদ জয়ের ৫০ বছর। জয় বাংলার, বাংলার জয় ভালো থাকুক, ভালো রাখুক বাংলাদেশকে।

প্রভাষ আমিন ।। বার্তা প্রধান, এটিএন নিউজ

[email protected]

Link copied